July 4, 2022, 5:57 am

বগুড়া রেলষ্টেশনে রেলকর্মচারীদের রেললাইন অবরোধ

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ গাইবান্ধার বোনারপড়ায় প্রকৌশলীকে মারধরের অভিযোগে বৃহস্পতিবার দুপরে বগুড়া রেলওয়ে স্টেশন এলঅকায় প্রায় ১৫ মিনিট অবরোধ করে বগুড়ায় রেল লাইন অবরোধ করেছে সংস্থাটির কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।  পরে রেলওয়ের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের বিচারের আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেন তারা।

রেলওয়ে ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গাইবান্ধার বোনারপড়া স্টেশনে সরকারি উন্নয়ন কাজ চলছে। বুধবার বিকেলে চারটার দিকে এই কাজে বাধা দেন বোনারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নাসিরুল আলম স্বপন ও তার বাহিনী। এ সময় রেলওয়ের বগুড়ার সহকারি নির্বাহী প্রকৌশলী সাইদুর রহমানের সঙ্গে চেয়ারম্যানের কথাকাটাটি হয়। এক পর্যায়ে চেয়ারম্যান স্বপন তাকে থাপ্পড় মারেন। পরে প্রকৌশলী সেখান থেকে চলে আসেন।

এই ঘটনার জের ধরেই বগুড়া রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ আজ দুপুর সাড়ে ১২ টা থেকে রেলাইন অবস্থান নেন। এর মধ্যে ১ টা ২৬ মিনিটে দোঁলনচাপা এক্সপ্রেস ট্রেন বগুড়া স্টেশন পৌঁছায়। তখন কর্মচারীরা এই ট্রেনের সামনে লাল কাপড় নিয়ে লাইনে শুয়ে পড়েন। প্রায় ১৫ মিনিট এভাবে শুয়ে থাকার পর সেখানে পশ্চিমাঞ্চল (লালমনিরহাট) রেলওয়ের বিভাগীয় ব্যবস্থাপক নূর মোহাম্মদ এসে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন।

নূর মোহাম্মাদ বলেন, যেহেতু একজন সরকারি কর্মকর্তাকে থাপ্পড় মারা হয়েছে। চেয়ারম্যান ও তার সহযোগিরা সরকারি উন্নয়ন কাজে বাঁধা প্রদান করেছেন। সরকারিভাবে মামলার প্রস্তুতি চলছে। আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আশা করছি এ ঘটনায় জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে। আমরা আপনাদের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করছি। আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেওয়া হলে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

রেলের টাইম কিপার আহসান হাবীব জানান, বিনা কারণে কেন একজন সরকারি কর্মকর্তাকে মারধর করা হয়েছে। এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানান তিনি। একই সাথে অবিলম্বে জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে শাস্তির দাবি করেন।

বগুড়া রেলওয়ে শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মোহাম্মদ আলী বলেন, চেয়ারম্যান স্বপন অনৈতিকভাবে সরকারি কাজে বাঁধা দিয়েছেন এবং একজন রেল কর্মকর্তারা গায়ে হাত তুলেছেন। এর সুষ্ঠু বিচার করতে হবে।

তবে গায়ে হাত তোলার বিষয়টি পুরোটাই মিথ্যা বলে দাবি করেন বোনারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নাসিরুল আলম স্বপন।

মুঠোফোনে তিনি বলেন, বোনারপাড়া স্টেশনের ৬টি পুকুর ভরাট হওয়ার কারণে স্টেশন ও বাজারের সব বর্জ্য পানি যাওয়ার রাস্তা বন্ধ হয়েছে। এদিকে স্টেশনের প্রাচীর নির্মাণের কাজ চলছে। তাই এ বিষয়টি সমাধানের জন্য ড্রেন নির্মাণ নিয়ে স্টেশনের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করতে চেয়েছিলাম। বিকেলে বগুড়া থেকে প্রকৌশলী আসলে তার সঙ্গে কথা বলতে যাই। সেখানে স্থানীয় কয়েকজন ছেলেরা উত্তেজিত হয়ে ওঠে। কিন্তু কারও গায়ে হাত তোলার মতো ঘটনা ঘটেনি।

চেয়ারম্যান স্বপন আরও বলেন, ওই ছেলেদের তৎক্ষনাৎ আমি শাসন করেছি। পরে সন্ধ্যার দিকে স্টেশন মাস্টারের রুমে গিয়ে মাফ চাওয়া হয়েছে। কিন্তু তারপরেও আমার বিরুদ্ধে মারধরের অভিযোগ কেন উঠল, বুঝলাম না।

নিউজটি শেয়ার করুন


© All rights reserved © jamunanewsbd.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD