February 22, 2024, 10:16 am

চুয়াডাঙ্গায় জমে উঠেছে নির্বাচনী প্রচারণা

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে জেলার দুইটি সংসদীয় আসনে জমে উঠেছে নির্বাচনী প্রচারণা। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মিলে মোট ১৪ জন প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন।

নির্বাচনের দিন যত ঘনিয়ে আসছে, প্রার্থীদের তৎপরতা ততই বাড়ছে। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ভোটারদের কাছে গিয়ে ভোট চাইছেন প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা। এ ছাড়া গানের তালে-তালেও ভোট চাওয়া হচ্ছে নির্দিষ্ট মার্কার পক্ষে। পোস্টারে ছেয়ে গেছে সড়কপথসহ বিভিন্ন অলি-গলি। তবে প্রচারণার ক্ষেত্রে নৌকা মার্কার প্রার্থীরা এগিয়ে রয়েছেন। বিভিন্ন হাট-বাজার, পাড়া-মহল্লা-চায়ের দোকানসহ সর্বত্রই আলোচনা দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে।

চুয়াডাঙ্গা সদরের একাংশ ও আলমডাঙ্গা উপজেলা নিয়ে গঠিত চুয়াডাঙ্গা ১ আসন। এই আসনে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন। তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ট, আওয়ামী লীগের তিনবারের সংসদ সদস্য ও সাবেক হুইপ। তিনি প্রতিদিন বিভিন্ন নির্বাচনী পথসভা ও উঠান বৈঠকে অংশ নিচ্ছেন এবং নৌকার পক্ষে ভোট চাইছেন। একইসঙ্গে সরকারের উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরছেন। গত ১৫ বছরে তিনি চুয়াডাঙ্গায় ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। তাই ভোটের সমীকরণে অন্য প্রার্থীদের তুলনায় হ্যাভিওয়েট প্রার্থী সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন।

নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পাশাপাশি এই আসনে প্রচরাণা চালাচ্ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্যবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য দিলীপ কুমার আগরওয়ালা ঈগল প্রতীক, স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় অর্থ উপ-কমিটির সদস্য এমএ রাজ্জাক খান ফ্রিজ প্রতীক ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক নৌ কমান্ডার এম শহিদুর রহমান ট্রাক প্রতীক, এনপিপি মনোনীত প্রার্থী ইদ্রিস চৌধুরী আম প্রতীক, ও জাতীয় পার্টির লাঙ্গল নিয়ে অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন। তারাও দিনরাত ভোটারদের কাছে ছুটছেন। তবে ভোটাররা বলছেন, যোগ্য প্রার্থীকেই তারা ভোট দেবেন। যে উন্নয়ন করতে পারবে তাকেই তারা চান।

Chuadanga Election-3ছবি: ইত্তেফাক

চুয়াডাঙ্গা সদরের একাংশ, দামুড়হুদা ও জীবননগর উপজেলা নিয়ে গঠিত চুয়াডাঙ্গা-২ আসন। এখানে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে রয়েছেন আলী আজগার টগর। এ ছাড়া জাতীয় পার্টির রবিউল ইসলাম লাঙ্গল প্রতীক, এনপিপির ইদ্রিস চৌধুরী আম প্রতীক, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) দেওয়ান মোহাম্মদ ইয়াসিন উল্লাহ মশাল প্রতীক, জাকের পার্টির আব্দুল লতিফ খান গোলাপ ফুল প্রতীক, স্বতন্ত্র প্রার্থী দৈনিক সকালের সময় পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক নূর হাকিম ঈগল প্রতীক, স্বতন্ত্র প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর্জা শাহরিয়ার মাহমুদ লন্টু ঢেকি প্রতীক ও স্বতন্ত্র প্রার্থী কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য আবু হাশেম রেজা ট্রাক প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন। দিনভর প্রার্থীরা গণ-সংযোগ, উঠান বৈঠক, পথসভা, লিফলেট বিতরণসহ নানান প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

উল্লেখ্য, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৭৯, চুয়াডাঙ্গা-১ সংসদীয় আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৮৩ হাজার ৯৮০ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২ লাখ ৪১ হাজার ৩৮৭ জন এবং মহিলা ভোটার ২ লাখ ৪২ হাজার ৫৮৯ জন। মোট ভোট কেন্দ্র সংখ্যা ১৮১টি।

জাতীয় সংসদের ৮০, চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৬৬ হাজার ৯৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২ লাখ ৩৪ হাজার ৪৪২ জন এবং মহিলা ভোটার ২ লাখ ৩১ হাজার ৬৯২ জন। মোট ভোটকেন্দ্র সংখ্যা ১৭৩টি।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচনের রির্টানিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক ড. কিসিঞ্জার চাকমা বলেন, নির্বাচনে আচরণবিধি প্রতিপালনে ৮জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে কাজ করছেন। একইসঙ্গে দুইজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বাধীন একটি ইলেকশন ইনকোয়ারী টিম কাজ করছে। পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাবসহ অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মাঠে কাজ করছে। শান্তিপূর্ণভাবেই চলছে নির্বাচনী প্রচারণা।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © jamunanewsbd.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD