February 22, 2024, 12:07 pm

বগুড়া ৪ আসনে নৌকার হাল ধরতে চান রানা

নন্দীগ্রাম প্রতিনিধি: দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে আসতে পারে ব্যাপক চমক। দলীয় অধিকাংশ নেতাকর্মী ও এলাকাবাসীও ঠিক এমনটাই প্রত্যাশা করেন। বগুড়া-৪ আসনে এবার নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়তে মাঠে দিনরাত সক্রিয় রয়েছেন তৃণমূল থেকে বেড়ে ওঠা নেতৃত্ব নন্দীগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন রানা।

সরেজমিনে নির্বাচনী এলাকা নন্দীগ্রাম ও কাহালু উপজেলা ঘুরে জানা যায়, বর্তমান জাসদের সংসদ সদস্য একেএম রেজাউল করিম তানসেন। তিনি এই আসনে ফের ১৪ দল থেকে মনোনয়ন চাইবেন। তিনি গত দু’বারের এমপি। এলাকায় আসেনও কম। যোগাযোগ নেই আওয়ামী লীগের দলীয় নেতাকর্মীদের সাথেও। দিনদিন দূরুত্ব বাড়ছে দলীয় নেতাকর্মীসহ দুই উপজেলার সাধারণ মানুষ ও ভোটারদের সঙ্গে। নির্বাচনী এলাকায় তেমন সময় দেননি বলেও অভিযোগ ভোটারদের।

এই সুযোগ কাজে লাগাতে চান জনপ্রিয় নেতা নন্দীগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন রানা এলএলবি। নন্দীগ্রামের আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে আনোয়ার হোসেন রানা বিভিন্ন পদে থেকে সফলভাবে দায়িত্ব পালন করছেন। বর্তমানে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি তিনি। তার নেতৃত্বে গত কয়েক বছরে এই উপজেলায় সাংগঠনিকভাবে দল যেমন শক্তিশালী তেমনি ভোটাররাও আগ্রহী হয়েছে নৌকার প্রতি। যে কারণে এই দুই উপজেলায় আওয়ামী লীগের কর্মিসভাগুলো জনসভায় পরিণত হয়েছে। তরুণ যুবকদের পাশাপাশি নারীদের মাঝে বেড়েছে নৌকার কদর। ১৯৯৬ সালে নির্বাচন পরবর্তী খালেদা জিয়া সরকার বিরোধী আন্দোলনে সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য পরিষদের সদস্য সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সেই থেকে তার পথচলা শুরু। এরপরে প্রথমে ২০০২ সালে উপজেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগের যুগ্ম-আহবায়ক, ২০০৪ সালে উপজেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগের আহবায়ক, ২০০৬ সালে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য, ২০১২ সালে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক ও জেলা কমিটির সদস্য, ২০২০ সালে উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এ ছাড়া ২০১৬ সালে জেলা পরিষদ নির্বাচনে আনোয়ার হোসেন রানা শতভাগ ভোট পেয়ে সদস্য নির্বাচিত হন।

বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ মহামারীর সময় আনোয়ার হোসেন রানা কাহালু-নন্দীগ্রাম উপজেলার মানুষের নিকট একজন আশীর্বাদ হিসেবে আবির্ভুত হয়েছিলেন। তিনি নিজের জীবনকে তুচ্ছ করে দুই উপজেলায় ১৫ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা, মাস্ক, পিপিই, স্যানিটাইজার এবং সাবান পৌঁছে দিয়েছেন। তার এই সাহসীকতাপূর্ণ ও মানবিক উদ্যোগের কারণে সে সময়ের উপজেলা প্রশাসন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, নেতাকর্মী ও সচেতন মহলসহ সকল শ্রেণির মানুষ তার প্রশংসা করেছেন এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

তিনি ধারাবাহিকভাবে শেখ হাসিনার বিভিন্ন উন্নয়নের স্থিরচিত্র সম্বলিত লিফলেট বিতরণ করে ২০২৪ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সরকারকে টানা চতুর্থ মেয়াদের বিজয়ী করার জন্য দিনরাত পরিশ্রম করে আসছেন। স্থানীয়রা বলছেন, রানা দলের বাইরে স্বতন্ত্র দাঁড়ালেও জিতবেন। বিএনপি-জামায়াতের দুর্গে আ.লীগ থেকে আনোয়ার হোসেন রানা মনোনয়ন পেলেই জয় নিশ্চিত মনে করছেন ভোটাররা। আনোয়ার হোসেন রানা আওয়ামী লীগের একজন তরুন, পরিশ্রমী ও সৎ সংগঠক হিসেবে পরিচিত।

এবিষয়ে নন্দীগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আনোয়ার হোসেন রানা জানান, তিনি বিগত নির্বাচনে এই আসনে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন। তবে জাসদকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছিল। এবার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমার সকল বিষয় বিবেচনা করে আমাকে মূল্যায়ন করলে জনগণ দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-৪ আসনে আমার পক্ষে ব্যাপক গণজোয়ারের সৃষ্টি করবে এবং বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ আমার বিজয়ে একজোট হয়ে কাজ করবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

জানতে চাইলে বগুড়া-৪ আসনের জাসদের সংসদ সদস্য একেএম রেজাউল করিম তানসেন বলেন, এরআগে ১৪ দল থেকে মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করে জয়ী হয়েছি। এবারও ১৪ দল থেকেই মনোনয়ন চাইবো। তবে মনোনয়ন দেয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবেন দলের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উপজেলা পর্যায়ে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি থাকতে পারে। এটাও থাকবে না।

প্রসঙ্গত, নন্দীগ্রাম উপজেলার ৫ ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা এবং কাহালু উপজেলার ৯ ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত ৩৯ বগুড়া- ৪ আসন। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ৭ জানুয়ারি বগুড়া-৪ (নন্দীগ্রাম-কাহালু) আসনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © jamunanewsbd.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD