June 21, 2024, 8:04 pm

বগুড়ায় প্রতিবন্ধী কার্তিক পেলেন নতুন ঠিকানা

স্টাফ রিপোর্টার: নতুন করে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পেলেন প্রতিবন্ধী কার্তিক কুমার মোহন্ত । ৬ সদস্যের পরিবারের জন্য ছোট হলেও নিজের করে একটা ঘর পেলেন তিনি। বগুড়া সদরের নিশিন্দারা ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের কাছেই রাস্তা সংলগ্ন বাড়ির সাথে একটা দোকানও পেলেন উপর্জনের জন্য।

কেউ গৃহহীন থাকবে না প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষনা অনুযায়ী মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে গৃহহীনদের মাঝে ঘর দেওয়ার কাজ শুরু হয় ২০২০ সালে। ওই বছরই প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পান আশরাফুল ও আদরীর পরিবার। এই পরিবার ঘর পেলেও এক রাতের জন্যও ওই ঘরে থাকেননি।

ওই ঘরে থাকতেন আদরীর মা শাখেরা। মেয়ে জামাইয়ের নামে বরাদ্দ নিয়ে এতদিন শাখেরা ঘরটি দখলে রেখেছিলেন। শাখেরা জানান, তিনি নিজে একটা ঘর পেয়েছেন। তার ছেলে জুয়েলের নামে একটা আছে, তার মেয়ে আদরীর নামেও একটা ছিলো।

তার জামাই নিজে উপজেলার বিভিন্ন কাজ করেন, তার মেয়ে ও জামাইয়ের নামে ঘর থাকলেও তারা শুরু থেকেই এই ঘরে থাকতেন না। তাই উপজেলা থেকে তাদেরকে ঘর ছাড়তে বলা হলে জামাই ঘর ছাড়তে বলে তাই তারা ঘর ছেড়ে দিয়েছেন।

নতুন ঘর পেয়ে প্রতিবন্ধী কার্তিক কুমার মোহন্তÍ জানান, তিনি এতদিন বগুড়া শহরের শিববাটি শাহী মসজিদের কাছে আড়াই হাজার টাকায় বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকতেন। তার স্ত্রী অন্যের বাড়িতে কাজ করে যা পান তাই দিয়ে ঘর ভাড়া ও  সংসার চালাতেন।

আগে তিনি কাঠের কাজ করতেন তিনি অসুস্থ হওয়ায় এখন কাঠের কাজ করতে পারেন না। তার স্ত্রীর উপর সংসার নির্ভর। তিনি একটি ঘরের জন্য আবেদন করেছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে, আবেদনের ২ মাসের মধ্যেই তিনি ঘর পেলেন।

কার্তিকের স্ত্রী পলি রানী মোহন্ত জানান, তার স্বামী প্রতিবন্ধী কোন কাজ করতে পারেন না। তার উপর সংসার নির্ভর করে। তিনি আরও বলেন উপজেলা পরিষদ থেকে যে দোকান করে দেওয়া হয়েছে সেই আয় থেকেই সংসার চালাবেন। তিনি জানান তাদের ৪ মেয়ে রয়েছে এরা হলো ডলি মোহন্ত, শান্তনা মোহন্ত, তিথি মোহন্ত এবং তনু মোহন্ত।

এদিকে আজ শনিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় আনুষ্ঠানিক ভাবে ঘরটি হস্তান্তর করেন বগুড়ার জেলা প্রশাসক মোঃ সাইফুল ইসলাম। বগুড়া সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের তত্ত্বাবধানে ঘর হস্তান্তর অনুষ্ঠানে সহকারি কমিশনার(ভূমি) রায়হানুল ইসলাম, নিশিন্দারা ইউপি চেয়ারম্যান সরকার শহিদুর রহমান, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় জেলা প্রশাসক বলেন, সরকার চায় কেউ যেন গৃহহীন না থাকে। সবার জন্য আবাসন ব্যবস্থা করতে বদ্ধ পরিকর। আর কেউ খোলা আকাশের নিচে থাকবে না। নিজের একটা বাড়ি হবে। নিজে থাকবে। বাড়ির আশে পাশে সবজি বাগান করবে।

তিনি আরও বলেন, জমিসহ বাড়ি হস্তান্তর করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এই বাড়িতে আগে যে ছিলো সে আর না থাকায় তার বরাদ্দ বাতিল করা হয়েছে। এখন যে ঘর পেল এখন তার নামে বরাদ্দ হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © jamunanewsbd.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD