October 7, 2022, 7:14 am

রাজশাহীতে অশ্লীল ভাষায় টিকটক করে শাস্তির মুখে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক

মঈন উদ্দীন: অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে টিকটক ভিডিও বানিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার সোনাদিঘী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সানজিদা খাতুন রাখি। সহকারী শিক্ষকের এমন আপত্তিকর ভিডিও তৈরি করে তা ফেসবুক সহ অন্যান্য গণমাধ্যমে ভাইরাল হওয়ায় শিক্ষা অধিদপ্তরের শাস্তির মুখে পড়েছেন সহকারী শিক্ষক সানজিদা খাতুন।
জানা গেছে, বর্তমানে  অগনিত টিকটিক ভিডিও আছে তার। সম্প্রতি তিনি ছয়টি ভিডিওতে অশ্লীল ভাষা ব্যবহার করে টিকটিকে ভিডিও তৈরি করেছেন। পরে সেটি নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে ছাড়ায় তা ভাইরাল হয়। এমন আপত্তিকর ভিডিওতে অনেকটায় বিড়ম্বনায়  পড়েছেন সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানসহ অন্যান্যরা। তবে ভয়ে কেউ মুখ খোলেন না প্রধান শিক্ষক সহ অনেকেই।
জানা গেছে, এর আগেও ফেসবুকে টিকটিক ভিডিও করার কারণে শোকজড হয়েছিলেন সানজিদা। ওই সময় নিজ ভুল স্বীকার করে চেয়েছিলেন ক্ষমা। তাতে মার্জনা পান তিনি। বছর না ঘুরতেই আবারো একই ভুল করেন তিনি।
শিক্ষকরা জানান, শুধু নিজ বাড়িতেই নয়, ক্লাশরুম-অফিসরুম যেখানে খুশি সেখানে তিনি টিকটক করেন। প্রতিবাদ করলেই তার বাবার মুক্তিযোদ্ধার পরিচয় দেখিয়ে উল্টো তিনিই ভয়ভীতি দেখান।
এব্যাপারে গোদাগাড়ী ইউএনও মো. জানে আলম বলেন, কিছু দিন আগেই এসম্পর্কে একটি অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগ পাওয়ার পরপরই তার বিরুদ্ধে গোদাগাড়ী প্রাথমিক উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গস্খহণ করার ব্যাপারে বলা হয়েছে। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা লাইলা নাসরিন বলেন, বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে অবগত হওয়ার পরপরই তার বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত চলমান রয়েছে। এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মহোদয়ের সাথেও কথা হয়েছে। বর্তমানে বিষয়টি তদন্তনাধীন। তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শিক্ষা কর্মকর্তা লাইলা নাসরিন বলেন, এর আগেও এধরনের ঘটনা তিনি ঘটিয়েছিলেন সত্য। ওই সময় নিজ অপরাধের বিষয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করেছিলেন। ঘটনার পুণরাবৃত্তি করায় তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এগুলো প্রতিহিংসামূলক বলে দাবি করেন সহকারী শিক্ষক সানজিদা খাতুন। তবে তিনি স্বীকার করে বলেন, কিছু ব্যক্তি টিকটিক ও ফেসবুকে আমাকে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করার কারণে আমি ৬টি টিকটক ভিডিও রাগের বশবর্তী হয়ে অশ্লীল ভাষা বানিয়েছি। তবে নিজের ভুল বোঝার পর তা সরিয়েও ফেলি এবং ক্ষমা চেয়ে আরেকটি ভিডিও তৈরি করি। তাতেও অনেকে গালিগালাজ করে মন্তব্য করেন কয়েকজন।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © jamunanewsbd.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD