August 11, 2022, 11:29 pm

সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর যুক্তরাষ্ট্রে বন্ধ হচ্ছে গর্ভপাত ক্লিনিক

যমুনা নিউজ বিডিঃ গর্ভপাত আর সাংবিধানিক অধিকার নয়—মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের এমন রায়ের পর বন্ধ হতে শুরু করেছে গর্ভপাত ক্লিনিক। এদিকে সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, আজ মার্কিনিদের দুঃখের দিন। আর সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, গর্ভপাত বাতিলের রায় ঈশ্বরের সিদ্ধান্ত। অন্যদিকে এই রায়ের নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘ ও বিশ্ব নেতৃবৃন্দ।

শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর যুক্তরাষ্ট্রের কিছু রাজ্যে গর্ভপাত ক্লিনিক বন্ধ হতে শুরু করেছে। আরকানসাস অঙ্গরাজ্যের লিটল রক শহরে শুক্রবার একটি ক্লিনিকে গর্ভপাত করতে যে নারীদের আগে থেকেই নির্ধারণ করা ছিল তাদের সেই সূচি বাতিল করা হয়েছে। ফোন করে নারীদেরকে সেটি জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। ৫০ বছর আগের এক মামলায় সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর বিভিন্ন রাজ্যে বিক্ষোভ করেছে গর্ভপাতপন্থিরা। অ্যারিজোনায় বড় ধরনের বিক্ষোভ হয়েছে। এ সময় বিক্ষোভ দমনে পুলিশ টিয়ার গ্যাস ছুড়ে। লসঅ্যাঞ্জেলসে গর্ভপাতপন্থিরা রাস্তা আটকে দেয়। শনিবারও বিভিন্ন রাজ্যে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।

প্রায় অর্ধেক রাজ্য গর্ভপাতে বিধিনিষেধ বা নিষিদ্ধ করতে পারে। ১৩টি রাজ্যে ৩০ দিনের মধ্যেই আইনের মাধ্যমে গর্ভপাত নিষিদ্ধ হতে পারে। সব মিলিয়ে দেশটিতে প্রজননক্ষম প্রায় ৩ কোটি ৬০ লাখ নারী গর্ভপাতের অধিকার হারাতে পারে বলে হিসাব দেওয়া হয়েছে গর্ভপাত নিয়ে কাজ করা স্বাস্থ্যসেবা সংগঠন ‘প্ল্যানড প্যারেন্টহুড’-এর গবেষণায়। সুপ্রিম কোর্টের আদেশের পর কেন্টাকি, লুইজিয়ানা, আরকানসাস, সাউথ ডাকোটা, মিসৌরি, ওকলাহোমা ও অ্যালাবামায় গর্ভপাতের ওপর নিষেধাজ্ঞা বা বিধিনিষেধ তাত্ক্ষণিকভাবে কার্যকর হয়ে গেছে। মিসিসিপি ও নর্থ ডাকোটায় এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে তাদের অ্যাটর্নি জেনারেলের অনুমোদনের পর। উওমিংয়ে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে পাঁচ দিনের ভেতর। উটাহর নিষেধাজ্ঞা তাদের আইনপরিষদে স্বীকৃত হতে হবে। আইডাহো, টেনেসি ও টেক্সাসে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে ৩০দিনের মধ্যে। গর্ভপাত নিয়ে দেশের সুপ্রিম কোর্টের রায়কে মর্মান্তিক ভুল বলে মন্তব্য করেছেন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। শীর্ষ আদালতের রায় ঘোষণার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে দেশবাসীর উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন তিনি। সেই ভাষণে তিনি বলেন, যেভাবে নারীদের সংবিধানপ্রদত্ত অধিকারকে কেড়ে নেওয়া হলো, তা অত্যন্ত দুঃখজনক। আজ মার্কিনিদের দুঃখের দিন।

আইন বাতিল হওয়াকে ‘ঈশ্বরের সিদ্ধান্ত’ বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। মার্কিন সংবাদমাধ্যম ফক্স নিউজকে দেওয়া প্রতিক্রিয়ায় দেশটির ৪৫তম সাবেক প্রেসিডেন্ট বলেন, সংবিধান মেনেই এটা হচ্ছে। অধিকার ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে, যা তাদের আরো অনেক আগেই ফিরিয়ে দেওয়া উচিত ছিল। প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতায় থাকাকালীন আদালতে তিন জন রক্ষণশীল বিচারপতি নিয়োগ দিয়েছিলেন ট্রাম্প। এই ফলাফলে তিনি ভূমিকা রেখেছেন বলে মনে করেন কি না, জানতে চাইলে ট্রাম্প বলেন, ঈশ্বরই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এর কিছুক্ষণ পরই এ আদেশের জন্য কৃতিত্ব দাবি করেন তিনি। তিনি বলেন, কেবল সম্ভব হয়েছে অঙ্গীকার অনুযায়ী আমি সবকিছু বাস্তবায়ন করেছিলাম বলে। এর মধ্যে রয়েছে তিন জন সম্মানিত এবং শক্তিশালী সংবিধান বিশেষজ্ঞকে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসেবে মনোনয়ন ও নিয়োগ নিশ্চিত করা। এ কাজ করতে পারা আমার জন্য অনেক বড় সম্মানের।

জাতিসংঘ ও বিশ্ব নেতৃবৃন্দের নিন্দা : জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান মিচেল ব্যানলেট এক বিবৃতিতে বলেন, সুপ্রিম কোর্টের এই রায় নারীদের মানবাধিকার এবং নারী সমতার বিপরীত। জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র জানিয়েছেন, এই বাধা গর্ভপাতকে বন্ধ করতে পারবে না। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আডহানোম গেব্রেসিয়াস আশা প্রকাশ করে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র নারী অধিকারের বিষয়ে আরো কিছু করবে। এছাড়া ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রঁ, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের রায়ের নিন্দা জানিয়েছেন।—বিবিসি ও সিএনএন

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © jamunanewsbd.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD