June 13, 2024, 6:16 pm

নেহরু-ইন্দিরার যে রেকর্ড ভেঙে দিতে পারেন নরেন্দ্র মোদি

যমুনা নিউজ বিডি: মোদির আগে ভারতের স্বাধীন ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু পরপর তিনবার প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন। নেহরুর রেকর্ড বজায় রাখেন কন্যা ইন্দিরা। তিনিও পরপর দু’বার প্রধানমন্ত্রী হন। তারা দু’জনেই শরিক দলের সাহায্য ছাড়াই ম্যাজিক ফিগার ছুঁয়ে সরকার গঠন করেন। সেই বিখ্যাত পিতা-পুত্রীর রাজনৈতিক রেকর্ডও ভেঙে যেতে পারে গুজরাটের এক অতিসাধারণ এক ব্যক্তির হাতে, যার জীবন শুরু হয়েছিল রেলস্টেশনে চা বিক্রি করে।

তিনি ৭৩ বছর বয়সী নরেন্দ্র ভাই দামোদরদাস মোদি, যিনি হয়তো আজই ভোট গণনার শেষে টানা তৃতীয়বারের মতো ভারতের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার বিরলতম গৌরব অর্জন করে ফেলবেন। অন্তত ভারতের লোকসভা নির্বাচনের শেষে প্রতিটি এক্সিট পোল বা বুথফেরত জরিপের রায় সে রকমটাই বলছে।

সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির তথ্যানযায়ী, ভারতের অষ্টাদশ লোকসভা নির্বাচনের ফল ঘোষিত হবে আজ মঙ্গলবার। জানা যাবে ৯৭ কোটি ভোটারের রায়। বিশ্বের ইতিহাসে এত ভোটার দেখা যায়নি আর কোনো নির্বাচনে।

জনতার রায়ের জন্য সারাদিনের অপেক্ষা পড়ে আছে, তবে এরই মধ্যে বুথফেরত জরিপ বলে দিচ্ছে, সরকার গঠনে হ্যাটট্রিক করতে যাচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি। বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটের সামনে ভরাডুবিই হতে যাচ্ছে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন বিরোধী জোটের।

এক্সিট পোলগুলো একবাক্যে বলছে, নরেন্দ্র মোদির দল বিজেপি ও তাদের জোট অনায়াসে ৩৫০ বা তার বেশি আসন পেতে যাচ্ছে। কোনো কোনো সমীক্ষায় এই জোট ৪০০ আসনও পেরিয়ে যেতে পারে বলা হচ্ছে এবং বিজেপি একাই ৩৬০ বা ৩৭০-এর কাছাকাছি পৌঁছে যাবে বলে জানানো হচ্ছে।

বিভিন্ন জরিপের মধ্যে সংখ্যার তারতম্য থাকলেও মোদির নেতৃত্বে এনডিএ জোট যে বিরোধী শিবিরের জোট ইন্ডিয়াকে বহু পেছনে ফেলে দিয়েছে এবং নরেন্দ্র মোদি অনায়াসে আবার সরকার গঠন করতে চলেছেন, তা নিয়ে এক্সিট পোলগুলো কার্যত সবাই একমত। আর সেটা যদি শেষ পর্যন্ত সত্যিই হয়, তাহলে নরেন্দ্র মোদি পেছনে ফেলবেন ভারতীয় রাজনীতির ‘কিংবদন্তি’ ইন্দিরা গান্ধিকেও। কিন্তু কীভাবে?

ইন্দিরা গান্ধি তিন দফায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী হলেও তিনিও কখনও একটানা তিনবার দলকে নির্বাচনে জেতাতে পারেননি। ১৯৬৭ ও ১৯৭১-এর নির্বাচনে কংগ্রেসের নেতৃত্ব দিয়ে প্রধানমন্ত্রী হলেও দেশে তার জারি করা জরুরি অবস্থা বা ইমার্জেন্সির পর ১৯৭৭ সালে যে ভোট হয়েছিল, তাতে গান্ধি শোচনীয়ভাবে হেরে যান। পরে ১৯৮০ সালের নির্বাচনে জিতে আবার প্রধানমন্ত্রী হলেও ইমার্জেন্সি ও ’৭৭-এর পরাজয় ইন্দিরা গান্ধির রাজনৈতিক কেরিয়ারে কালো দাগের মতোই রয়ে গেছে।

অন্যদিকে ২০১৪ সালে প্রথমবারের মতো নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে বিজেপি লোকসভা ভোটে লড়ে এবং এককভাবে ২৮২টি আসন পেয়ে গরিষ্ঠতা অর্জন করে ফেলে। লক্ষণীয়, তার আগের ৩০ বছরে কখনও কোনও দল ভারতে একক গরিষ্ঠতা পায়নি। ২০১৯ সালেও মোদির নেতৃত্বে বিজেপি আরও বড় জয় পায়, তারা একাই জেতে ৩০৩টি আসন এবং মোদি হন দ্বিতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী।

২০২৪ সালেও যদি মোদি বিজেপিকে জেতাতে পারেন, তাহলে তিনি টানা তৃতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হয়ে ইন্দিরা গান্ধির রেকর্ড যেমন ভাঙবেন, তেমনি স্পর্শ করবেন ইন্দিরার বাবা জওহরলাল নেহরুর রেকর্ডকেও।

পণ্ডিত নেহরুই ভারতের ইতিহাসে একমাত্র রাজনীতিবিদ, যিনি পরপর তিনবার ভোটে জিতে দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। ১৯৪৭-এর ১৫ আগস্ট ভারতের স্বাধীনতার পর থেকে ১৯৬৪ সালের ২৭ মে পর্যন্ত আমৃত্যু তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন, মোট ১৬ বছর ২৮৬ দিন।

এর মধ্যে স্বাধীনতা লাভের পর থেকে দেশের প্রথম সংসদীয় নির্বাচন পর্যন্ত মেয়াদটুকুতে তিনি অবশ্য ছিলেন অনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী। এরপর ১৯৫১-৫২, ১৯৫৭ ও ১৯৬২–দেশে পরপর প্রথম তিনটি নির্বাচনেই নেহরু কংগ্রেসকে জয় এনে দেন এবং প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। তৃতীয় মেয়াদের মাঝপথেই অবশ্য তিনি ৭৪ বছর বয়সে প্রয়াত হন, তারপর দায়িত্ব নেন লালবাহাদুর শাস্ত্রী।

আজ (মঙ্গলবার) ভোট গণনার দিন নরেন্দ্র মোদি বিজেপিকে আবার জেতাতে পারলে তিনি পণ্ডিত নেহরুর রেকর্ড স্পর্শ যেমন করবেন, তেমনি তাকে ছাপিয়ে যাওয়ারও সুযোগ থাকছে নরেন্দ্র মোদির সামনে।

জওহরলাল নেহরুর নেতৃত্বে কংগ্রেস পরপর তিনটি নির্বাচনে জিতলেও তাদের ফলাফল ক্রমেই খারাপ হয়েছিল। সেই জায়গায় নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে বিজেপি একাই ২০১৪ সালে ২৮২টি ও ২০১৯ সালে ৩০৩টি আসন পেয়েছে। এখন ২০২৪ সালে যদি তারা ৩০৩-এর বেশি আসন পায় (যেটা অধিকাংশ এক্সিট পোলেই পূর্বাভাস করা হয়েছে), তাহলে প্রতিবারই বিজেপি আগেরবারের চেয়ে ভালো ফল করে ক্ষমতায় আসবে।

এই কৃতিত্ব কিন্তু জওহরলাল নেহরুরও ছিল না। ফলে নরেন্দ্র মোদির সামনে এদিন থাকছে পিতা-পুত্রী, দুজনকেই টপকে যাওয়ার বিরল এক সুযোগ!

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © jamunanewsbd.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD