May 24, 2024, 7:02 am

বগুড়ায় ভোরের শিশির ছড়িয়ে দিচ্ছে মৃদু শীতলতা

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ কার্তিক মাসের শুরুতেই কুয়াশায় আচ্ছন্ন হয়েছে উত্তরের প্রবেশদ্বার বগুড়া । ভোর থেকে সকাল সাড়ে ৮ টা পর্যন্ত হালকা কুয়াশায় ঢেকে থাকে বগুড়া । আশ্বিনের কয়েক দিনের বৃষ্টির পর চলতি বছর আগাম শীত অনুভব হচ্ছে উত্তরের বিভিন্ন জেলায়। ফসলের মাঠে উঁকি দিচ্ছে নতুন বীজের প্রস্ফুটিত চারা। তাতে শিশির বিন্দু ছড়িয়ে দিচ্ছে মৃদু শীতলতা।

বগুড়ায় দিনের বেলা কিছুটা গরম থাকলেও সন্ধ্যা নামার পর থেকেই কুয়াশায় আস্তে আস্তে ঢেকে যায় শহরের রাস্তাঘাট। সকাল ৮টা পর্যন্ত হেডলাইট জ্বালিয়ে সড়কে চলছে যানবাহন।

কার্তিকের শুরু থেকেই চারদিকে কুয়াশার মৃদু আবরণ আর নতুন ধানের মিষ্টি গন্ধ জানান দিচ্ছে হেমন্তের উপস্থিতি। কার্তিক ও অগ্রহায়ণ মাস জুড়েই হেমন্তের বিস্তৃতি। শরতের কাশফুল মাটিতে নুইয়ে পড়ার পরপরই হাজির হয় হেমন্ত। এরই মধ্যে পড়তে শুরু করেছে ঘন কুয়াশা। শেষ রাতের দিকে অথবা খুব সকালে শীত অনুভূত হচ্ছে।

সারিয়াকান্দী উপজেলার কাজলা ইউনিয়নের অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম বলেন, প্রতিবছর যমুনার চর এলাায় শীতের তীব্রতা বেশি থাকে। গত কয়েকদিন থেকে রাতে ও সকালে পুরো এলাকায় কুয়াশাচ্ছন্ন থাকে। এসব এলাকায় শীতের অনুভব হচ্ছে।

সারিয়াকান্দী উপজেলার কামালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাছেল বলেন, এক সপ্তাহ ধরে চর এলাকায় শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পেয়েছে। সকাল হলে কুয়াশায় ঢেকে যায় পুরো যমুনা চর। বৃষ্টির মত পড়ছে কুয়াশা। প্রতিবছর চর এলাকার মানুষ শীতে কষ্টের দিন যাপন করেন।

জেলার আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন, গত সপ্তাহ থেকে তাপমাত্রা কিছুটা কমতে শুরু করেছে। আগামী সপ্তাহ থেকে তাপমাত্রা আরও কমে আসবে। শুক্রবার বগুড়া জেলায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ২২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © jamunanewsbd.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD