May 27, 2024, 3:35 am

খালেদা জিয়ার কিছু হলে সরকারকেই সব দায় নিতে হবে

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবিতে শনিবার গণঅনশন কর্মসূচি পালন করেছে ১২ দলীয় জোটসহ সমমনা রাজনৈতিক দল। একদফা দাবিতে যুগপৎ আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় এ কর্মসূচি পালন করেন তারা। এতে নেতারা সরকারকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, উন্নত চিকিৎসার অভাবে খালেদা জিয়ার কিছু হলে সরকারকেই তার সব দায় বহন করতে হবে।

১২ দলীয় জোট : বেলা সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত রাজধানীর বিজয়নগরে পানির ট্যাংকির সামনে (বিজয় চত্বর) প্রতীকী অনশন করে ১২ দলীয় জোট। এ সময় খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনা করে গণদোয়া করা হয়। দোয়া পরিচালনা করেন মুফতি গোলাম মহিউদ্দিন ইকরাম। উপস্থিত ছিলেন জোট প্রধান ও জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, বাংলাদেশ জাতীয় দলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহসানুল হুদা, বাংলাদেশ এলডিপির মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, অতিরিক্ত মহাসচিব তমিজউদ্দিন টিটু, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব মুফতি গোলাম মহিউদ্দিন ইকরাম, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের (বিএমএল) অ্যাডভোকেট শেখ জুলফিকার বুলবুল চৌধুরী, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) রাশেদ প্রধান প্রমুখ।

মোস্তফা জামাল হায়দার বলেন, সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে কারাবন্দি রেখেছে। বর্তমানে তিনি গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাকে সুস্থ করতে হলে অবিলম্বে বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানোর কোনো বিকল্প নেই। কিন্তু সরকার তা আমলে নিচ্ছে না। অবিলম্বে তাকে মুক্তি দিয়ে বিদেশে পাঠিয়ে উন্নত চিকিৎসার সুযোগ দিন।

জাতীয়তাবাদী সমমনা জোট : খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবি জানিয়েছেন জাতীয়তাবাদী সমমনা জোটের সমন্বয়ক ও এনপিপির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ। তিনি অভিযোগ করেন, সুচিকিৎসা থেকে বঞ্চিত করে সরকার খালেদা জিয়াকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। দুপুরে রাজধানীর পুরানা পল্টন মোড়সংলগ্ন আল রাজি কমপ্লেক্সের সামনে গণ-অনশনে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ফরিদুজ্জামান বলেন, সরকার বিএনপিসহ বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার, হামলা-মামলা, দমন-পীড়ন করে একদফার চলমান আন্দোলন দমাতে চায়। কিন্তু এসব করে দমানো যাবে না। জনগণের অংশগ্রহণে আন্দোলন ক্রমেই বেগবান হবে। চলমান আন্দোলনের মধ্য দিয়েই এ সরকারের পতন ঘটবে। জাগপার সাধারণ সম্পাদক এসএম শাহাদাতের সঞ্চালনায় জাতীয়তাবাদী সমমনা জোটের অন্য নেতারাও বক্তব্য দেন।

গণফোরাম (মন্টু) ও বাংলাদেশ পিপলস পার্টি : বেলা ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত মতিঝিলের গণফোরাম চত্বরে গণঅনশন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করে গণফোরাম ও বাংলাদেশ পিপলস পার্টি। এতে গণফোরাম একাংশের সভাপতি মোস্তফা মহসীন মন্টু বলেন, বাংলাদেশের জনগণ আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমে এসেছে। অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের কোনো বিকল্প নেই। জনগণের জন্য সংবিধান। তাই সংবিধান পরিবর্তন করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনুন। দেশের স্বার্থে কারও সঙ্গে কোনো অবস্থায় আপস হবে না। খালেদা জিয়া ভীষণ অসুস্থ। অবিলম্বে তাকে মুক্তি দিয়ে বিদেশে সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে।

আরও বক্তব্য দেন গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক সিনিয়র অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, বাংলাদেশ পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান বাবুল সরদার চাখারী, মহাসচিব আবদুল কাদের, গণফোরাম নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট একেএম জগলুল হায়দার আফ্রিক, অ্যাডভোকেট মহিউদ্দিন আব্দুল কাদের, সভাপতি পরিষদ সদস্য অ্যাডভোকেট ফজলুল হক সরকার, আব্দুল হাসিব চৌধুরী, ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ রওশন ইয়াজদানী, তথ্য ও গণমাধ্যম সম্পাদক মুহাম্মদ উল্লাহ মধু, পিপলস পার্টির কো-চেয়ারম্যান পারভীন নাসের খান ভাসানী, প্রেসিডিয়াম মেম্বার আতিকুর রহমান, নাজমা আক্তার প্রমুখ।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © jamunanewsbd.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD