May 24, 2024, 6:10 am

অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে দেশব্যাপী চালানো হবে বিশেষ অভিযান

যমুনা নিউজ বিডিঃ আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে দেশব্যাপী চলবে বিশেষ অভিযান। নির্বাচনের আগে যে কোনো ধরনের সহিংসতা রোধে এ ধরনের বিশেষ পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এ ছাড়া নির্বাচনের আগ পর্যন্ত বৈধ অস্ত্র জমা দেয়ার নির্দেশনাও আসছে। পাশাপাশি সীমান্তে অস্ত্র চোরাচালান রোধেও বিশেষ নজরদারি চালানো হবে। সম্প্রতি দেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা বেড়ে গেছে। এই সুযোগে একটি মহল দেশে সহিংসতা করে ফায়দা লুটতে চাচ্ছে। ওই মহলটি সীমান্ত দিয়ে অস্ত্র আনছে। সম্প্রতি সীমান্ত দিয়ে অস্ত্র আনার বিষয়ে নড়েচড়ে বসেছে গোয়েন্দারা। তারা ব্যাপক অনুসন্ধান করে এর সত্যতাও পেয়েছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশের গোয়েন্দারা বিশেষ অভিযানের প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে সরকারের ঊর্ধ্বতনদের জানান। বিষয়টি যাচাই-বাছাই শেষে এই বিশেষ অভিযান চালানো হতে পারে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী হাতে ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন সীমান্ত এলাকা, রাজধানী ও চট্টগ্রামসহ বিভাগীয় শহরগুলোতে অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধারের ঘটনা বেড়ে গেছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে অস্ত্র উদ্ধারের চলমান অভিযানকে সফলতা বলা হলেও গোয়েন্দারা মনে করছে, এর বাইরে আরো অনেক অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র দেশে প্রবেশ করছে। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) দেওয়া তথ্যমতে, জুলাই মাসে একটি পিস্তল, একটি এয়ার পিস্তল, একটি বন্দুক, ৯৫ কেজি সালফার ও ৪৩৯ রাউন্ড গুলি উদ্ধার হয়েছে। জুন মাসে একটি পিস্তল, দুটি ম্যাগাজিন, একটি মর্টার শেল, ১৬ রাউন্ড গুলি ও ১০ কেজি পেট্রোল বোমা তৈরির পাউডার উদ্ধার হয়েছে। গত মে মাসে সীমান্ত এলাকায় চলতি বছরের সর্বোচ্চ আটটি পিস্তল জব্দ করা হয়। সঙ্গে ছিল ৪০ রাউন্ড গুলি ও আটটি ম্যাগাজিন, যা গত কয়েক মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। এছাড়াও উদ্ধার করা হয়েছে ১০০ কেজি সালফার, সাতটি ডেটোনেটর ও চারটি বিস্ফোরক স্টিক। চলতি বছরের প্রথম সাত মাসে সীমান্তে ৬২টি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে একটি সাবমেশিনগানও (এসএমজি) রয়েছে। এর আগের ১০ বছরে মাত্র একটি এসএমজি উদ্ধার হয়েছিল। এ বছর এখন পর্যন্ত ৬৯৫ রাউন্ড গোলাবারুদ ও ২০টি ম্যাগাজিন উদ্ধার করেছে সীমান্তরক্ষী বাহিনী। গোয়েন্দাদের ধারণা সামনে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এসব অস্ত্র ও গোলাবারুদ আনা হচ্ছে। আর এসব অস্ত্র বাহকদের বেশির ভাগই স্থানীয় সাধারণ মানুষ। আর বড় অংশই হাতবদল হয়ে চলে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে। সূত্র জানায়, আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সীমান্ত এলাকা থেকে অবৈধ অস্ত্র রাজধানীতে প্রবেশ করছে। সাম্প্রতিক সময়ে গ্রেপ্তার কয়েক জনকে গ্রেপ্তারের পর এমনই তথ্য বেরিয়ে এসেছে। নির্বাচন ঘিরে সহিংসতার শঙ্কা থাকে। বড় দলের প্রার্থীরা মাঠ দখলে রাখতে চান। কেন্দ্র দখল করে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার প্রবণতা থাকে। সেক্ষেত্রে প্রভাব বিস্তারের বড় উপায় অবৈধ অস্ত্র। এ কারণে নির্বাচনের আগে অস্ত্রের চোরাচালান বেড়ে যায়। সীমান্তরক্ষী বাহিনী বা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সব চালান ধরতে পারে না। ফলে নানা কৌশলে তা অপরাধীদের কাছে পৌঁছে যায়। অস্ত্র কারা আনছে, কারা ব্যবহার করছে, যোগানদাতা কারা সেসব খুঁজে বের করা জরুরি। সীমান্তপথে এক পক্ষ অস্ত্র হস্তান্তর করছে, আরেক পক্ষ গ্রহণ করে সারা দেশে ছড়িয়ে দিচ্ছে। শুধু সমতল নয়, পাহাড়েও এখন সন্ত্রাসী ও জঙ্গিগোষ্ঠীর কাছে অস্ত্র যাচ্ছে। তারা এসব অস্ত্র দিয়ে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। এই প্রশিক্ষিত জঙ্গিরা যে আগামী নির্বাচনি কোনো পক্ষের হয়ে ব্যবহৃত হবে না সেটাও বলা যায় না। তাই অবৈধ অস্ত্রের কারবারিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে পুলিশ সদর দপ্তরের ডিআইজি (অপারেশনস) মো. আনোয়ার হোসেন জানান, নির্বাচনের আগে পুলিশের বিশেষ অভিযানের পরিকল্পনা রয়েছে। ওই সময় বৈধ অস্ত্রগুলো কোথায় আছে, তার হিসাব মেলানো হবে এবং জমা দেওয়ার নির্দেশও দেওয়া হবে। পাশাপাশি অবৈধ অস্ত্র ও মাদক উদ্ধারে জোর অভিযান সব সময়ই চলে। প্রতি মাসের ক্রাইম কনফারেন্সে অবৈধ অস্ত্র ও মাদক উদ্ধারের প্রতি ইউনিটগুলোকে বিশেষ নির্দেশনা দেওয়া হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © jamunanewsbd.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD