July 16, 2024, 9:55 am

দেশ বাঁচাতে হলে নদী বাঁচাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

যমুনা নিউজ বিডি:  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশ বাঁচাতে হলে নদী বাঁচাতে হবে। এজন্য নদী দূষণ বন্ধের নির্দেশনা দেন তিনি। তিনি বলেন, ক্ষমতায় আসার পর তার সরকারের লক্ষ্য ছিল নদী রক্ষা, নাব্যতা বজায় রাখা এবং দূষণ থেকে রক্ষা করা। সোমবার (৪ ডিসেম্বর) মন্ত্রিসভা কক্ষে ঢাকার চারপাশের নদীগুলোর নাব্যতা রক্ষা ও দূষণ রোধে প্রণীত মহাপরিকল্পনার আলোকে সমীক্ষা প্রতিবেদন উপস্থাপন এবং সংশ্লিষ্ট প্রকল্প গ্রহণের নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়ে এক সভায় প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের শরীরে যেমন রক্ত চলাচলের জন্য শিরা-উপশিরা আছে ঠিক নদীও আমাদের বাংলাদেশের জন্য তেমন। আমাদের দেশের টিকে থাকাটাও নির্ভর করে এ নদীর ওপরে।
তিনি বলেন, নদী প্রশিক্ষণের নামে এক সময় উর্বর ফসলি জমিতে বেড়িবাঁধ তৈরি করা স্বাভাবিক ঘটনা ছিল, নদীর ধারে যেসব শিল্পকারখানা গড়ে ওঠে সেগুলোর বর্জ্য সাধারণত নদীতে ফেলে। স্যুয়ারেজ লাইনের সব বর্জ্যও নদীতে যায়, যার ফলে দূষণ বাড়ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দূষণের কারণে বুড়িগঙ্গা নদী থেকে দুর্গন্ধ আসা খুবই বেদনাদায়ক। আমরা যাই করি না কেন, প্রথমে আমাদের বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কথা মাথায় রাখতে হবে। তিনি বলেন, নদীর গভীরতা বিবেচনা করতে হবে এবং আমাদের অবশ্যই বর্ষাকালে বৃষ্টির জল সংরক্ষণের লক্ষ্যে নদীর পাশে একটি বাফার জোন তৈরি করতে হবে।

সরকারপ্রধান পরিবেশ সংরক্ষণের কথা মাথায় রেখে যেকোনো উন্নয়ন পরিকল্পনার জন্য সংশ্লিষ্ট সব কর্তৃপক্ষের সমন্বিত প্রচেষ্টার ওপর জোর দেন।

তিনি বলেন, আমি ক্ষমতায় আসার পর থেকে সবাইকে সব শহরের জন্য পরিকল্পনা তৈরি করতে বলেছি। আমরা যে পরিকল্পনাই গ্রহণ করি না কেন সেখানে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এবং পানির প্রবাহ সঠিকভাবে বজায় রাখতে হবে। এটা খুবই দুঃখজনক যে অতীতে দেশের উন্নয়ন কর্মসূচি পরিকল্পিতভাবে হয়নি।

তিনি আরও বলেন, পাকিস্তান আমলে এটি ঘটেনি, এমনকি ১৯৭৫ সালের পরে অবৈধ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখলকারীরা, যারা অস্ত্র নিয়ে সংবিধান লঙ্ঘনের মাধ্যমে এসেছিল, তারা দেশের সামগ্রিক সমন্বিত ও পরিকল্পিত উন্নয়নে মনোযোগ দেয়নি। যে কারণে পরিবেশগত সমস্যাগুলো উপেক্ষিত হয়েছে এবং নদীগুলোও দখল করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © jamunanewsbd.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD