সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন

বগুড়ায় মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানবন্ধন ও সমাবেশ

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ায় স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা হোসেন আলীর ওপর হামলার ঘটনায় করা মামলাকে মিথ্যা দাবি করে তা প্রত্যাহার চেয়ে মানবন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করা হয়েছে।

শুক্রবার দুপুরে বগুড়া শহরের শেরপুর সড়কের বনানী এলাকায় ১৩ নম্বর ওয়ার্ডবাসীর ব্যানারে ঐ মানবন্ধন-সমাবেশ করা হয়।

গত ১৬ নভেম্বর (মঙ্গলবার) দুপুরে হোসেন আলীকে বাড়িতে হামলা চালিয়ে তাকে হত্যাচেষ্টা করা হয়। হামলার শিকার হওয়ার পর গত ২১ নভেম্বর (রোববার) শাজাহানপুর থানায় ১৪ জনকে  আসামী করে মামলা করেন হোসেন। মামলায় বগুড়া পৌরসভার ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর খোরশেদ আলমকে প্রধান আসামী করা হয়। এছাড়াও কলোনী চকফরিদ এলাকার ব্যবসায়ী রঞ্জন আলীসহ মামলায় ১৪ জনকে অভিযুক্ত করা হয়।

সাবেক কাউন্সিলর খোরশেদ আলম বগুড়া পৌরসভার ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের বেতগাড়ী এলাকার বাসিন্দা। মামলার বাদী বগুড়া শহর স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব হোসেন আলীও একই এলাকার বাসিন্দা।

অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সমাবেশে থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বগুড়া শাজাহানপুর উপজেলার বেতগাড়ী দ্বিতীয় বাইপাস সড়ক সংলগ্ন এ. আর. কে. সি এন জি পাম্পের জায়গায় ভাড়া নিয়ে এস আলম গ্রুপের ইউনিটেক্স এল পি গ্যাস প্রতিষ্ঠান নির্মাণের সূচনা লগ্ন থেকে চুক্তিপত্রের মাধ্যমে মেসার্স রুবাইয়া ট্রেডার্সের প্রোপাইটার মো. রঞ্জন আলী ঠিকাদারি সংস্লিষ্ট সাপ্লাইয়ের কাজ করে আসছেন। একপর্যায়ে এ.আর.কে গ্রুপের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তা আব্দুল ফাত্তাহ ভাড়া করা ঐ নিচু জায়গায় মাটি ভরাট বিল ১৩৮০৭৯২ (তের লক্ষ আশি হাজার সাতশত বিরানব্বই) টাকা বকেয়া পাওনা টাকা পরিশোধ না করে আত্বসাৎ করার জন্য চেষ্টা করেন। পরে প্রশাসন ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের হস্তক্ষেপের মাধ্যমে আব্দুল ফাত্তাহ ১৩৮০৭৯২ (তের লক্ষ আশি হাজার সাতশত বিরানব্বই) পাওনা টাকার মধ্যে ৬০০০০০ (ছয় লাখ) টাকা পরিশোধ করে বাকি টাকা নির্মানাধীণ অবশিষ্ট কাজ সম্পন্ন করার মাধ্যমে ক্ষতি পুষিয়ে দেয়ার আশ্বাস দেন। কিন্তু পরবর্তীতে আব্দুল ফাত্তাহ চক্রান্ত করে ঐ জায়গার নির্মানাধীণ বাকি কাজ অন্য প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে  মেসার্স রুবাইয়া ট্রেডার্সের মো. রঞ্জন আলীর সাথে প্রতারণা করেন। একই সঙ্গে বেতগাড়ী এলাকার স্থানীয় ব্যবসায়ীদের মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি করে দেন আব্দুল ফাত্তাহ।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়েছে,  পরিকল্পনা মোতাবেক  আব্দুল ফাত্তাহ ব্যবসায়ের সুষ্ঠু পরিবেশ নষ্ট করে দেন। পরে তিনি (আব্দুল ফাত্তাহ) ষড়যন্ত্র করে মো. রঞ্জন আলীর বিরুদ্ধে হোসেন আলীর ওপর হামলার ঘটনায় মামলা করান। যা ষড়যন্ত্রমূলক ও মিথ্যা একটি মামলা বলে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে দাবি করা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com