বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৫৪ পূর্বাহ্ন

ভাদ্রের পাকা তাল

আতিকুর রহমান তুষারঃ তালপাকা গরমে তাল নিয়ে লেখাটা বেষ বেতাল ও বটে । এই ভাদ্রের গরমেই আমরা পাকা তাল খেয়ে থাকি। তালগাছকে ঘিরে আবার মজার মজার কবিতাও লিখে গেছেন কবিরা, তালগাছ এক পায়ে দাঁড়িয়ে সব গাছ ছাড়িয়ে উঁকি মারে আকাশে । আকাশে উঁকি মারা তালগাছ প্রায় ৫০, ৬০ ফুটের মতো উঁচু হতে পারে। আর সে কারণেই বহুদুর থেকে সে তাল গাছ দেখে বলা যায় ওই দেখা যায় তালগাছ, ওই আমাদের গাঁ। সব তালগাছেই যে তাল হবে , তা নয়। ছোটবেলা থেকেই শুনে এসেছি তাল হয় নারী গাছে , পুরুষ গাছে তাল ধরেনা সে গাছ থেকে শুধুই রস পাওয়া যায়। কাঁচা ও পাকা দুই অবস্থাতেই তাল সুস্বাদু খাবার। তালের ফল এবং বীজ দুইই বাঙ্গালি খাদ্য, ভাদ্র মাসে পাকা তালের বড়া একটি অত্যÍ সুস্বাদু খাবার।

কচি তাল কচি ডাবের মতোই সুস্বাদু, জ্যৈষ্ঠের খরতাপে এই কচি তাল শাষ তৃষ্ণা নিবারণ তো করেই, এ ছাড়াও তালের শাঁসে থাকা জলীয় অংশ শরীরের পানিশূন্যতা দূর করে দেহ রাখে ক্লান্তিহীন। পুষ্টিবিদদের মতে, ডাবের পানি এবং তালের শাঁসের গুণাগুণ একই রকমের। ডাবের পানির পুরোটাই তরল, অন্যদিকে তালের শাঁসে কিছুটা শক্ত অংশ থাকে। পাঁকা তালের প্রতি ১০০ গ্রাম খাদ্যয়োগ্য অংশে রয়েছে খাদ্যশক্তি ৮৭ কিলো ক্যালরি , ৮ মিলিগ্রান ক্যালসিয়াম, জলীয় অংশ ৮৭ .৬ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট ১০.৯ গ্রাম, ফসফরাস ৩০ মিলিগ্রাম, থাদ্য আঁশ ১ গ্রাম, লোহা ১ মিলিগ্রাম,। এ ছাড়া আছে আমিষ, চর্বি, থায়ামিন, রিবোফাভিন, নিয়াসিন, ভিটামিন সি। দেখা যাচ্ছে, বেশ পুষ্টিকর খাবার এই তাল।

এয় সময়ে বগুড়া শহরের বেষ কছু জায়গায় পাঁকা তাল বক্রিয় করতে দেখা যায়, তাল বিক্রেতা হারুন ও ছাদেকের কাছ থেকে জানা যায় আকার ভেদে প্রতিটি তাল বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ টাকায়।

বগুড়া শহরের বউবাজারের একজন প্রবীণ বাসিন্দা জানান এই ভাদ্র মাসে নাকি তালপাকা গরম পড়ে। আর পাকা তালের মৌ মৌ গন্ধে ভরে যায় চারিদিক বাংলার ঘরেঘরে, অজঁপাড়ায় চলে তালের রসে বাহারী পিঠা তৈরির আয়োজন । পাকা তাল খুব অল্প সময়ের জন্য পাওয়া যায়। তাই এর কদরও একটু বেশী। তালের তৈরি খাবার যেমন সুস্বাদু তেমনি এর প্রস্তুত প্রনালী একটু কষ্টসাধ্য। খুব ধৈয্য নিয়ে আমাদের দাদী নানী, মা, চাচী, খালা, ফুফুরা তালের আঁশ থেকে নির্যাস বের করে তৈরি করেন তালের পিঠা, তাল বড়া, তাল রুটি, তালের পায়েশ, কলাপাতায় তাল পিঠা, দুধের সঙ্গে তালের রস মিশিয়ে বানানো হয় তালক্ষীর তালের রসভরি আরো কতকি, তাল দিয়ে তৈরি বাহারি খাবার। তাই আমি বলি, স্বাদে-গন্ধে বেতাল করে তোলা এই ভাদ্র মাস হোক তালময়।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com