বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৫৭ অপরাহ্ন

News Headline :
নারীর প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর ফরিদপুরে দুর্নীতির বিরুদ্ধে একসাথে থাকার অঙ্গীকার নাগরিকদের বগুড়ার শেরপুরে শেখ হাসিনার স্বপ্নের ঠিকানা পাচ্ছে ৪৫টি পরিবার বগুড়ায় বেগম রোকেয়া দিবসে ৫ নারী পেলেন জয়িতা সম্মাননা বগুড়ায় বর্ণাঢ্য আয়োজনে আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস পালিত সিরাজগঞ্জ কামারখন্দ উপজেলায় দুর্নীতি বিরোধী দিবস পালিত সাপাহারে বেগম রোকেয়া দিবসে জয়িতাদের সম্বর্ধনা নন্দীগ্রামে ইউপি নির্বাচনে প্রতিদ্ব›দ্বী প্রার্থীদের সাথে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের মতবিনিময় সভা রাজশাহীর ছাত্রলীগ নেতা শাহিন হত্যায় ৯ জনের ফাঁসি, ২২ জনের যাবজ্জীবন পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর কুমিল্লা এলাকা পরিচালক নির্বাচিত হলেন সাংবাদিক সৈয়দ আহাম্মদ লাভলু

১৬ আগস্ট থেকে খুলছে হাইকোর্টের সব বেঞ্চ

যমুনা নিউজ বিডিঃ আগামী ১৬ আগস্ট থেকে দেশের সকল হাইকোর্ট বেঞ্চ অর্থাৎ হাইকোর্ট বিভাগের ৫৩টি বেঞ্চ খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। এর আগে জরুরী মামলা নিষ্পত্তির জন্য ৮ আগস্ট থেকে ১২ আগস্ট পর্যন্ত আপিল বিভাগের ফুল বেঞ্চ এবং হাইকোর্ট বিভাগের ১০টি বেঞ্চ বসতে পারে। তবে সব আদালতেই তথ্য পযুক্তি ব্যবহার করে ভার্চুয়ালি বিচার কাজ পরিচালিত হবে।

বৃহষ্পতিবার প্রধান বিচারপতির সভাপতিত্বে এরকম সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে সংশ্লিস্ট সুত্রে জানা গেছে। এবিষয়ে আজ শুক্রবার অথবা আগামীকাল শনিবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন নির্দেশনা জারি করতে পারেন। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ এবং হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতিদের অংশগ্রহণে এই ফুলকোর্ট সভা অনুষ্ঠিত হয়। এবিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ফুলকোর্ট সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কি সিদ্ধান্ত হয়েছে জানিনা। পরে এবিষয়ে নির্দেশনা জারি হবে।

এছাড়া সরকার ঘোষিত বিধি নিষেধ শিথিল সাপেক্ষে নিম্ন আদালতের বিচারিক কার্যক্রম ধাপে ধাপে বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে কঠোর বিধি নিষেধ চলাকালীন সীমিত পরিসরেই নিম্ন আদালতে বিচার কাজ চালু থাকছে।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের প্রেক্ষাপটে গতবছর ২৫ মে থেকে ভার্চুয়াল আদালত কার্যক্রম চালু হয়। এর আগ পর্যন্ত সাধারণ ছুটির মধ্যে ছিল আদালতগুলো। তবে ভার্চুয়ালি আদালত কার্যক্রম চালুর শুরু দিকে ৩৫/৩৬টি হাইকোর্ট বেঞ্চ বসে। আর করোনা ভাইরাসের সংক্রমন কমে গেলে পরে প্রতিদিন নিয়মিতভাবে ৫২/৫৩টি হাইকোর্ট বেঞ্চ বসে। এসময় অর্ধেকের বেশি হাইকোর্ট বেঞ্চ ভার্চুয়ালি বিচার কার্যক্রম পরিচালনা করেন। আর সারা দেশে অধস্তন আদালত পর্যায়ক্রমে খুলে দেওয়া হয়। অধস্তন আদালতে শারীরিক উপস্থিতিতেই নিয়মিত আদালত কার্যক্রম অব্যাহত ছিল। কিন্তু দ্বিতীয় পর্যায়ে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় গত ৫ এপ্রিল থেকে ৪টি বেঞ্চ দিয়ে হাইকোর্ট বিভাগের বিচার কাজ শুরু হয়। যা ধাপে ধাপে বাড়িয়ে ১৬টি করা হয়েছিল। কিন্তু করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সরকার কঠোর বিধিনিষেধ জারি করায় হাইকোর্ট বিভাগের বেঞ্চের সংখ্যা কমিয়ে দেন প্রধান বিচারপতি। আজ ৫ আগষ্ট পর্যন্ত মাত্র তিনটি বেঞ্চ চালু ছিল। যদিও আইনজীবীদের অব্যাহত দাবির পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৫ জুলাই ৩৮টি বেঞ্চ এবং ১৯ জুলাই বসে ৩৬টি বেঞ্চ বসে।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com