বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৩৯ পূর্বাহ্ন

News Headline :
মিলনের সুস্থতা কামনা করে বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের বিবৃতি বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবীতে বগুড়ার কাগইলে মশাল মিছিল বুড়িচংয়ে এক ইউনিভার্সিটির ছাত্রের গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা  সকল নেতাকর্মীর দলীয় সিদ্ধান্ত মেনে চলা উচিত- মজিবর রহমান মজনু বগুড়া আ. হক কলেজের শিক্ষক পরিষদের নির্বাচনে জয়ী হলেন যারা নন্দীগ্রামে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা বগুড়া জেলা মোটর মালিক গ্রুপের ৭শ’ সদস্যর মাঝে আর্থিক অনুদান প্রদান বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি রফিক ভূঁইয়ার স্মরণ সভা প্রথম স্থান অর্জন গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউটের কাল থেকে পলিথিনমুক্ত হচ্ছে চট্টগ্রামের তিন কাঁচাবাজার

ভারতীয় গরু সরবরাহে জয়পুরহাটে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির শঙ্কা

জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃ ভারত সীমান্তবর্তী জেলা জয়পুরহাটে করোনা সংক্রমণ বেড়ে সম্পৃতি বেশ কয়েকজনের প্রাণহানি ঘটলেও সরকারের জারি করা স্বাস্থ্যবিধি কেউই মানছেন না পশুর হাটগুলোতে। জেলায় অবৈধভাবে ভারতীয় গরু সরবরাহের সঙ্গে সম্পৃক্ত ব্যক্তিদের মাধ্যমে করোনা সংক্রমণ ব্যাপকহারে ছড়িয়ে পড়ছে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয়দের কাছে জানা গেছে, জেলার কুরবানি পশুর হাটকে বাইরে তিনটি স্থানে বসাতে স্থানীয় প্রশাসনের নির্দেশনা থাকলেও তা না মেনেই শহরে একটি পশুরহাটেই চলছে কেনাবেচা।

সরেজমিন ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত কিছুদিন পূর্বে ভারতে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পায়। ভারত সীমান্তের জয়পুরহাট জেলায় বড় দুইটি পশুর হাট বসে শহরের নতুনহাট ও পাঁচবিবি তিন মাথা এলাকায়। এ হাট গুলোতে কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে ভারতীয় গরু সরবরাহ ও সেই সঙ্গে সম্পৃক্ত ব্যক্তিদের মাধ্যমে ব্যাপকভাবে বেড়ে যায়। এ কারণে করোনা সংক্রমণও বেড়ে যাচ্ছে এমন অভিযোগ এলাকাবাসী ও সংশ্লিষ্টদের। ইতিমধ্যে গত কয়েকদিন শহরের নতুনহাটের আশপাশের এলাকায় বেশ কয়েকজন করোনায় মারা গেছেন। পাঁচবিবিতেও এমন মৃত্যু ঘটনা বেশ কয়েকটি। এর কারণ হিসেবে কিছুটা দায়ী করছেন এসব পশুর হাট ও ভারতীয় গরু সরবরাহকারীকে।

জেলায় এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ১২১ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৮৬১ জন। করোনায় মৃত্যু হয়েছে ২৪ জনের। এর মধ্যে চলতি জুন মাসেই মারা গেছেন ১২ জন।

এসব তথ্য দিয়ে পাঁচবিবি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. মো. শহীদ হোসেন বলেন, আমি মিটিংয়ের মাধ্যমে সংশ্লিষ্টদের বলেছি এবং নির্দেশনা দিয়ে পশুর হাটে ভারতীয় গরু সরবরাহের কারণে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাচ্ছে। পশুর হাট বন্ধ রাখতে বলেছিলাম। ইতিমধ্যে কয়েকদিনেই জয়পুরহাট ও পাঁচবিবিতে বেশ কয়েকজনের করোনায় মৃত্যু হয়েছে।

করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির শঙ্কা নিয়ে জেলা রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক গোলাম হক্কানী বলেন, ভারতীয় গরু সরবরাহে যারা আনা নেওয়া করছেন তাদের মাধ্যমে করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ার অবশ্যই আশঙ্কা আছে।

পশুর হাট নিয়ে সরকারি নির্দেশনার বিষয়ে জানতে চাওয়া হয় শহরের নতুন হাট পশুর হাটের ইজারাদার রজনী ট্রেডার্স এর স্বত্বাধীকারী কালীচরণ আগরওয়ালার কাছে। কিন্তু পরে কথা বলবো, বলে কল কেটে দেন হাটের ইজারাদার।

পাঁচবিবি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুনিরুল শহীদ মুন্না বলেন, আমি জেলার মিটিংয়েও বলেছি দেশে কোরবানির গরুর জন্য পর্যাপ্ত দেশী গরু আছে। কিন্তু অবৈধ চোরাইপথে ভারতীয় গরু হাট গুলোতে তোলার কারণে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ছে।

সিভিল সার্জন ডা. মো. ওয়াজেদ আলী বলেন, স্বাস্থ্যবিধি না মানলে অবশ্যই করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাবে। পশুর হাটকে তিন স্তরে বিভক্ত করে লাগানোর কথা। কিন্তু সেটা না করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা প্রশাসক মো. শরিফুল ইসলাম বলেন, সরকারের জারিকৃত স্বাস্থ্যবিধি মেনে তিনটি স্থানে হাট লাগানোর কথা বলা হয়েছে। তা কেউ না মানলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com