সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৫৮ পূর্বাহ্ন

এবছরও করোনা আতঙ্কে গরুর দাম নিয়ে হতাশ শিবগঞ্জের খামারীরা

সাজু মিয়া (শিবগঞ্জ) বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলায় ঈদুল আযহাকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে অনেক গরুর খামার । উপজেলায় প্রায় ২ হাজার খামারী ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে ষাড় ১৬ হাজার ৫শত ২০, বলদ ২ হাজার ২শত ৫, গাভী ২দুই ৪৭, মহিষ ৩৫, ছাগল ১৯ হাজার ৮শত ২, ভেড়া ২ হাজার ১শত ৬৬ গবাদি পশু মোটা তাজা করার লক্ষ্যে দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। বর্তমানে করোনাভাইরাসের কারণে উপজেলার হাট বাজার গুলোতেও মাংসের চাহিদা তুলনামুলক ভাবে কম।
এ বছরও ঈদুল আযহায় করোনাভাইরাসের আতঙ্কে গরু হাটে বিক্রিকরা ও বাজার দাম নিয়ে হতাশ হয়ে পড়েছে এখানকার খামারীরা। বিষয়টি নিশ্চিত করে শিবগঞ্জ উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা জাফরিন রহমান এক সাক্ষাৎকারে এসব তথ্য জানিয়েছেন।
জানা গেছে, বগুড়া শিবগঞ্জ উপজেলার ১২ টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় ঈদুল আযহাকে কেন্দ্র করে গরু মোটা তাজা করছেন খামারীরা। গরুর মাংস উৎপাদনের দিক থেকে এ উপজেলা অনেক এগিয়ে। উপজেলায় ছোট বড় প্রায় ২ হাজার গরু মোটা তাজা করণ খামার গড়ে উঠেছে। স্থানীয় ভাবে উৎপাদিত গরু থেকে ৯০ ভাগ মাংসের চাহিদা পূরণ করা হয়। ঈদুল আযহায় গরু বিক্রি করার জন্য প্রায় ষাড় ১৬ হাজার ৫শত ২০, বলদ ২ হাজার ২শত ৫, গাভী ২দুই ৪৭, মহিষ ৩৫, ছাগল ১৯ হাজার ৮শত ২, ভেড়া ২ হাজার ১শত ৬৬ গবাদি পশু লালন পালন করছে খামারীরা।
এ উপজেলায় গবাদীপশু কেনা বেঁচা করার জন্য বড় হাট গুলোর মধ্যে ঐতিহ্যবাহী মহাস্থান হাট, বুড়িগঞ্জ হাট, দাড়িদহ হাট, ডাকুমারা হাট উল্লেখ করার মতো। এই হাট গুলো ছাড়াও ঈদুল আযহায় উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আরও ২৫ থেকে ৩০ টি অস্থায়ী হাট বসে। করোনার কারণে এসব হাট বসবে কিনা তা নিয়েও সঙ্খিত খামারীরা। উপজেলার খামারীদের মধ্যে অনেক বেকার যুবকেরা সরকারি , আধা সরকারি, এনজিও চালিত ব্যাংক ঋণ নিয়ে গবাদি পশুর খামার গড়ে তুলছে।
এখানকার গরু স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে রপ্তানি করা হয়। খামারে গরু মোটা তাজা করণের প্রক্রিয়া চলছে। এখন শুধু ঈদুল আযহার আপেক্ষায় দিন গুনছে এলাকার গরু খামারীরা। উপজেলার গরু ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, মাদারীপুর, রাজশাহী , সিলেট, চট্টগ্রাম সহ দেশের বড় বড় বাজারে বিক্রির জন্য নিয়ে যাওয়া হয়।
শিবগঞ্জ উপজেলার রায়নগর ইউনিয়নের খামারী মাস্টার ডেইরী এন্ড পোল্ট্রি ফার্ম এর স্বত্বাধিকারী রেহেনা বেগম বলেন গত বছর ৯টি গুরু তিনি ২৪ লক্ষ টাকায় বিক্রি করেছেন। এ বছর তার তিনি ৪টি গরু বিকি করবেন। তার গরুর মূল্য প্রায় ৪০ লক্ষ টাকা হাকছেন। শিবগঞ্জ ইউনিয়নের আলাদীপুর এরুলিয়া পাড়া গ্রামের পশু চিকিৎসক জাফর মন্ডল বলেন, গত বছর আমার ২টি ষাড় মন্ডল ও সন্দর কম দাম হওয়ায় বিক্রি করিনি তবে এবছর আমার ষাড়ের ওজন সাড়ে ২৭ মন হয়েছে। তবে আমি আশা করছি। এ বছর ভাল দামে বিক্রি করতে পারবো। তবে বাজারে গোখাদ্যের দাম অগের তুলনায় অনেক বেশি। গরু বিক্রি করে ভালো দাম না পেলে অনেক টাকা লোকসান গুনতে হবে।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা জাফরিন রহমান আরও বলেন, খামারীদের সার্বক্ষনিক পরামর্শ প্রদান করে আসছি। তাদের পালনকৃত গবাদীপশু নিয়ে যে কোন সমস্যায় প্রাণী সম্পদ বিভাগ পাশে থাকবে।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com