রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ১০:৩৩ পূর্বাহ্ন

গাজীপুরের যানজট রাজধানীতে, বিমানবন্দর সড়ক অচল

যমুনা নিউজ বিডিঃ সোমবার রাত থেকে বৃষ্টির কারণে গাজীপুরে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে পানি জমে আছে। ফলে ওই এলাকায় ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। যার প্রভাব পড়েছে রাজধানী ঢাকাতেও।

গাজীপুর থেকে বনানী, মহাখালী, ফার্মগেটসহ রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে যানজট দেখা দিয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা।

রামপুরা থেকে যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে আসতে এক ঘণ্টা সময় লেগেছে বলে জানিয়েছেন রফিকুল ইসলাম নামে এক বেসরকারি চাকরিজীবী। তিনি জানান, যানজটে অনেকেই বাস থেকে নেমে হাঁটতে দেখেছি।
যানজটে আটকা থাকার কথা অনেকে ফেসবুকে পোস্ট করেও অনেকে জানাচ্ছেন।

যানজটের বিষয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ ট্রাফিকের (উত্তর) যুগ্ম পুলিশ কমিশনার মো. আবদুর রাজ্জাক গণমাধ্যমকে বলেন, ‘গাজীপুরে গাড়ি আটকে আছে। সেখানকার রাস্তায় পানি জমা, অজস্র গর্ত। তাই কয়েক দিন ধরেই ঢাকার রাস্তায় তীব্র যানজট লেগে আছে।’ তিনি বলেন, ‘যানজট এতই বেশি যে মহাখালী ফ্লাইওভার পর্যন্ত চলে এসেছে।’

মিরপুর-১২ নম্বর থেকে সকাল ৮টা ১০ মিনিটে নুর-এ মক্কা পরিবহনের একটি বাসে ওঠেন আবদুর রহমান। বাস চলা শুরুর পর জিল্লুর রহমান উড়াল সেতুতে ওঠার আগেই যানজট শুরু হয়। তিনি এই উড়াল সেতুর ওপরই যানজটে ছিলেন দেড় ঘণ্টা।

বললেন, ‘গাড়ি নড়ছিলই না। কী কারণে এ অবস্থা তা-ও জানতে পারিনি। কুড়িল উড়াল সেতু থেকে প্রগতি সরণি অংশে যানজটে ঠায় দাঁড়িয়ে নষ্ট হয়েছে আরও আধঘণ্টা। সকাল পৌনে ১১টায় তিনি বারিধারায় তার কর্মস্থলে পৌঁছান। তিনি বলেন, অন্যান্য দিন প্রায় আধ ঘণ্টায় তিনি এ পথ বাসে অতিক্রম করে কর্মস্থলে পৌঁছাতে পারেন। কিন্তু আজকে খুব বেশি সময় লেগেছে এবং ভোগান্তি হলো।

মঙ্গলবার (১৫ জুন) রাজধানীর মহাখালী থেকে বিমানবন্দর সড়ক হয়ে একেবারে গাজীপুর পর্যন্ত যানজট তীব্র ছিল। স্থানে স্থানে যানজটের কারণ ছিল সড়কে বৃষ্টির পানি জমে চলাচলের পথ কমে যাওয়া। যাত্রী ও চালকরা অভিযোগ করেন নিকুঞ্জ-১ গেটের সামনে, ইসিবি চত্বর, কুড়িলে ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের দেখা গেলেও তারা পরিস্থিতি সামাল দিতে পারেননি।

বিমানবন্দর সড়কের কুড়িলে রাইদা পরিবহন, তুরাগ পরিবহন, প্রজাপতি পরিবহনসহ বিভিন্ন বাসের চালকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সকাল সাতটার আগে থেকেই যানজট শুরু হয়েছে। এ যানজটের ফলে মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে বৃহত্তর ময়মনসিংহসহ বিভিন্ন জেলার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া বাসগুলোও আটকে পড়ে।

যানজটের কবলে পড়ে রাজধানীতে কারও কারও গন্তব্যে যেতে তিন ঘণ্টার বেশি সময় লেগে যায়। মঙ্গলবার সকালে ইসিবি চত্বর থেকে বিমান বন্দর সড়কে প্রজাপতি পরিবহনের বাসে বসে ঘামছিলেন অফিসযাত্রী শিমু রহমান। বাইরে বৃষ্টি হলেও তিনি উদ্বেগে, উৎকণ্ঠায় ঘামছিলেন। বললেন, উত্তরায় অফিসে আজ সময়মতো যেতে পারবো না। ঘড়িতে তখন সকাল সাড়ে ৯টা ছুঁইছুঁই। তিনি বলেন, উত্তরায় অফিসে গত কয়েকদিন ধরেই সময়মতো যাওয়া অসম্ভব হয়ে পড়েছে। আজ অবস্থা ভয়াবহ।

মঙ্গলবার সকাল থেকে বৃষ্টির কারণে যান চলাচলের অংশ কমে যাওয়া ছাড়াও ৬টি মেগা প্রকল্পের নির্মাণ কাজে বিভিন্ন সংস্থার সমন্বয়হীনতা ও যান চলাচলে উপযোগী ব্যবস্থাপনার অভাবে রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে চলাচলকারী যাত্রীরা দুর্ভোগে পড়েন।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com