বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ন

এসডিজি বাস্তবায়নে শীর্ষ তিনে বাংলাদেশ

যমুনা নিউজ বিডিঃ জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বাস্তবায়নে উন্নতির তিনে আছে বাংলাদেশ। এসডিজি অর্জনের তালিকায় বাংলাদেশের সঙ্গে আছে আফগানিস্তান ও আইভরি কোস্টও।

মহামারি করোনাভাইরাসের ধাক্কা সব দেশের টেকসই উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করলেও এর মধ্যেই এসডিজি বাস্তবায়নে সবার চেয়ে ভালো করেছে বাংলাদেশসহ তিন দেশ। এসডিজির সবগুলো সূচকেই দেশ তিনটি উন্নতি করেছে বলে জাতিসংঘের সাসটেইনেবল ডেভলপমেন্ট সল্যুশন নেটওয়ার্ক (এসডিএসএন) ২০২১ সালের এসডিজির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

সোমবার প্রকাশিত হওয়া প্রতিবেদনে ২০৩০ সালের বৈশ্বিক এজেন্ডায় এসডিজি ইনডেক্সে দেখা যায়, আফগানিস্তান ও আইভরি কোস্টের সঙ্গে বাংলাদেশ অগ্রগতি অর্জন করেছে। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও আইভরি কোস্ট এসডিজি বাস্তবায়নে অগ্রগতি করেছে। আর ভেনিজুয়েলা, টুভালু ও ব্রাজিল অগ্রগতিতে পিছিয়ে গেছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২১ সালের এসডিজি ইনডেক্সে ১৬৫টি দেশের মধ্যে ৬৩.৫ স্কোর নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ১০৯তম।

‘সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল (এসডিজি)’ বা টেকসই উন্নয়ন বলতে ওই ধরনের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডকে বোঝায় যার মাধ্যমে অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রাও নিশ্চিত হয় আবার প্রকৃতি এবং বাস্তুতন্ত্র বা ইকোসিস্টেমেও কোনো বাজে প্রভাব পড়ে না।

১৯৮৭ সালে ব্রুন্টল্যান্ড কমিশন রিপোর্টের মাধ্যমে প্রথম টেকসই উন্নয়নের ব্যাপারটা আলোচনায় আসে। ২০০০ সালে শুরু হওয়া ‘মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোল’ বা এমডিজি অর্জনের সময় শেষ হয় ২০১৫ সালে। এরপর জাতিসংঘ ঘোষণা করে ১৫ বছর মেয়াদি ‘সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল’ বা এসডিজি।

২০১৫ সালে জাতিসংঘ দারিদ্র্য বিমোচন, বিশ্ব রক্ষা এবং একটি নতুন টেকসই উন্নয়নের এজেন্ডা হিসেবে সকলের জন্য সমৃদ্ধি নিশ্চিতে ১৭টি লক্ষ্য ও ১৬৯টি সহায়ক লক্ষ্যমাত্রা গ্রহণ করে। ২০৩০ সালকে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) পূরণের সময়সীমা ধরে নেয়া হয়েছে। জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্রগুলোকে ২০৩০ সাল পর্যন্ত এসডিজির ১৭টি লক্ষ্যপূরণ করতে হবে, যার কার্যক্রম শুরু হয় ২০১৬ সালের জানুয়ারি থেকে।

এখানে যে ১৭টি লক্ষ্যমাত্রা আছে সেগুলো হচ্ছে, দারিদ্র্য বিমোচন ও ক্ষুধামুক্তি, খাদ্যনিরাপত্তা ও উন্নত পুষ্টির লক্ষ্য অর্জন, টেকসই কৃষিব্যবস্থা, স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন নিশ্চিত করা, সব বয়সের সবার কল্যাণে কাজ করে যাওয়া, অন্তর্ভুক্তি ও সমতাভিত্তিক মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করা, আজীবন শিক্ষার সুযোগ তৈরি করা, লিঙ্গসমতা অর্জন, নারীর ক্ষমতায়ন ইত্যাদি।

জাতিসংঘের সাসটেইনেবল ডেভলপমেন্ট সল্যুশন নেটওয়ার্ক (এসডিএসএন) ২০২১ সালের এসডিজির যে প্রতিবেদন দিয়েছে সেখানে এসডিজি বাস্তবায়নে শীর্ষ তিন দেশের মধ্যে আছে বাংলাদেশও। গত ৫ বছরের এ মূল্যায়নের ভিত্তিতে এই প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। এক বছরেরও বেশি সময় চলা করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও এসডিজি বাস্তবায়নে এই তিনটি দেশ ভালো করেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, আর্থিক দৈন্যের কারণে স্বল্পোন্নত দেশগুলো (এলআইডিসি) মহামারির সংকট কাটিয়ে উঠতে পারছে না। অন্যদিকে উন্নত দেশগুলো অঢেল অর্থ ব্যয় করে দ্রুত এই সংকট থেকে বের হয়ে আসছে। সব মিলিয়ে কম আয়ের দেশগুলো কঠিন সময়ের মুখোমুখি হয়েছে। এর মধ্যেও বাংলাদেশ, আইভরি কোস্ট এবং আফগানিস্তান জাতিসংঘ ঘোষিত এসডিজি বাস্তবায়নে ভালো করছে।

এসডিজি সূচকে এবার বাংলাদেশের সার্বিক স্কোর ১০০ এর মধ্যে ৬৩.৫। গতবছর এই স্কোর ছিল ৬৩.২৬। তার আগের বছর স্কোর ছিল ৬৩.০২।

আইভরি কোস্ট ৫৭.৫৬ স্কোর নিয়ে এবারের সূচকে ১৩১তম অবস্থানে রয়েছে। ২০১৫ সালে দেশটির স্কোর ছিল ৫৩.৩৫। আর ৫৩.৯৩ স্কোর নিয়ে আফগানিস্তান এবার আছে সূচকের ১৩৭তম অবস্থানে।

এদিকে ৮৫.৯ স্কোর নিয়ে তালিকার শীর্ষে রয়েছে ফিনল্যান্ড। শীর্ষে পাঁচে থাকা অন্য দেশগুলো হলো সুইডেন (৮৫.৬), ডেনমার্ক (৮৪.৯), জার্মানি (৮২.৫) ও বেলজিয়াম (৮২.২)।

দক্ষিণ এশিয়ায় ৭৫তম স্থানে রয়েছে ভুটান (৭০), ৭৯তম মালদ্বীপ (৬৯.৩), ৮৭তম শ্রীলঙ্কা (৬৮.১), ৯৬তম নেপাল (৬৬.৫), ১২০তম ভারত (৬০.১), ১২৯তম পাকিস্তান (৫৭.৭) এবং ১৩৭তম স্থানে রয়েছে আফগানিস্তান (৫৩.৯)।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com