শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৫০ অপরাহ্ন

নিরপরাধ ব্যক্তির জেলখাটা দুর্ভাগ্যজনক: হাইকোর্ট

যমুনা নিউজ বিডিঃ নিরপরাধ ব্যক্তির জেলখাটা দুর্ভাগ্যজনক বলে মন্তব্য করেছেন হাইকোর্ট। চট্টগ্রামের একটি হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির বদলে মিনু নামের নিরপরাধ একজনের জেলখাটার বিষয়ে শুনানির সময় আদালত এ মন্তব্য করেন।

আদালত বলেন, অর্থের বিনিময়ে বা যেকোনো কৌশলে মূল আসামি নিজেকে বাঁচিয়ে নিরপরাধ ব্যক্তিকে জেলে রাখার ঘটনা দুর্ভাগ্যজনক।

আজ রোববার (৬ জুন) বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মহিউদ্দিন শামীমের হাইকোর্ট বেঞ্চে এ মামলার শুনানি হয়।আদালতে মিনুর পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. শিশির মনির। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ড. মো. বশির উল্লাহ।

শুনানিতে আইনজীবী শিশির মনির বলেন, বিগত দুই বছরে আমাদের দেশে এমন ২৬টি ঘটনা ঘটেছে। একজনের নামে আরেকজন জেলে থাকে।

আইনজীবী বলেন, আসল আসামি শনাক্তের অনেক পদ্ধতি আছে। আইবলিং পদ্ধতি আছে। এই পদ্ধতিতে শনাক্ত করলে কোনো ভুল হবে না। এ বিষয়ে আমি আরও লিখিতভাবে আদালতকে জানাব। তবে মিনুর ঘটনার পেছনে একটি চক্র কাজ করছে তা তদন্তে বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশনা দাবি করছি আদালতের কাছে।

এ সময় আদালত বলেন, ‘আমরা মনে করি এভাবে যদি রিয়েল (আসল) কালপিট (দোষী) অর্থের বিনিময়ে হোক অথবা বিভিন্ন কৌশলের মাধ্যমে নিজেকে বাঁচিয়ে অন্য নিরপরাধ লোককে জেলের মধ্যে আটক রাখে সেটা দুর্ভাগ্যজনক।

এ সময় আইনজীবী শিশির মনিরের সঙ্গে একমত পোষণ করে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ড. বশির উল্লাহ বলেন, আমরাও এটা চাই দোষীদের শাস্তি হোক, নিরাপদ কেউ যাতে জেলে না থাকে।

এর আগে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি কুলসুম আক্তারের হয়ে জেলখাটা মিনুর বিষয়টি আদালতের নজরে আনেন আইনজীবী শিশির মনির।

গত ২৪ মার্চ চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে একটি হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি কুলসুম আক্তার কুলসুমী নামে এক নারীর বদলে সাজা ভোগ করা মিনুর নথি হাইকোর্টে পাঠানো হয়।

তার আগে ২৩ মার্চ চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি কুলসুম আক্তার কুলসুমী নামে এক নারীর বদলে সাজা ভোগ করার অভিযোগ আনা মিনুর উপ-নথি হাইকোর্টে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

চট্টগ্রাম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ শরীফুল আলম ভুঁঞার আদালত এ আদেশ দেন।

কারাগারের একটি বালাম বই দেখতে গিয়ে মিনুর সাজা খাটার বিষয়টি উঠে আসে। সেখানে দেখা যায় একজনের পরিবর্তে যাবজ্জীবন সাজা খাটছেন এই নারী। পরে বিষয়টি আদালতের নজরে আনা হলে এ মামলার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র হাইকোর্টে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

মহনগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউট (পিপি) মো. নোমান চৌধুরী বলেন, আদালতে সংরক্ষিত ছবি সম্বলিত নথিপত্র দেখে কুলসুম আক্তার কুলসুমী আর মিনু এক নয় বলে নিশ্চিত হয়েছেন। যেহেতু এরইমধ্যে এ মামলার রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করা হয়েছে তাই মামলার উপ-নথি দ্রুত সময়ের হাইকোর্টে পাঠানো হয়।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com