সোমবার, ২১ Jun ২০২১, ০৩:২২ পূর্বাহ্ন

বগুড়ায় মাদ্রাসা অধ্যক্ষকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা

শাজাহানপুর প্রতিনিধিঃ বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার খরনা ইউনিয়নের বীরগ্রাম এলাকায় প্রকাশ্যে গুলি করে মোজ্জাফর হোসেন নামের ব্যক্তিকে খুন করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১০ টার দিকে উপজেলার বীরগ্রাম কৃষিকলেজ এলাকায় তাকে গুলি করে দুর্বৃত্তরা।  

নিহত ব্যক্তির নাম মোজাফ্ফর হোসেন ওরফে বাবা হুজুর (৫০)। তার বাড়ি নাটোরের  সিংড়া উপজেলার সুকাশ ইউনিয়নে। মোজাফ্ফর বগুড়ার নিশিন্দারা এলাকার একটি কওমী মাদ্রাসার অধ্যক্ষ। এই মাদ্রাসায় আসার উদ্দেশ্যে তিনি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে বগুড়ায় আসছিলেন। 

শাজাহানপুর থানার এসআই আব্দর রাজ্জাক বলেন, মোজ্জাফর হোসেন বগুড়ার নিশিন্দারা এলাকার একটি কওমী মাদ্রাসার অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। 

ঘটনার বর্ণনায় অটোরিকশাতে থাকা এ পুরুষ যাত্রী বলেন, ‘ঘটনাস্থলেই একটি মোটরসাইকেল দাঁড় করানো ছিল। সেখানে দুইজন লোক  দাঁড়িয়ে ছিলেন। ওই দুজন এমন স্থানে দাঁড়িয়ে ছিলেন, যেখানে সড়কের সংস্কার কাজ হচ্ছিল। ওই স্থানে অটোরিকশার গতি কমাতেই হবে, এছাড়া আর উপায়ই ছিল না। আমাদের অটোরিকশাটি ওখানে পৌঁছা মাত্রই ওই দুইজনের একজন মোজাফ্ফরকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়া শুরু করেন। আমি অটোরিকশার সিটের মাঝে বসে ছিলাম। আমার বাম পাশেই ছিলেন মোজাফ্ফর।’

তিনি বলেন, ‘গুলি ছোঁড়া শুরু হওয়া মাত্রই আমিসহ অটোরিকশার মহিলা আরেক যাত্রী গাড়ি থেকে নেমে দৌঁড় দেই।’ 

বগুড়া মেডিকেল ফাঁড়ির পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, অটোরিকশাটি বীরগ্রাম এলাকার কৃষি কলেজের সামনে দুইজন দুস্কৃতিকারী মোটরসাইকেলযোগে এসে সিএনজির পথরোধ করেন। এ সময় দুস্কৃতিকারীরা কোন কথা না বলেই মোজাফ্ফর হোসেনকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়েন। প্রথম গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে যায়। পরে সিএনজির গতি কমলে ফের গুলি করা হয় মোজ্জাফ্ফরকে লক্ষ্য করে। এ সময় গুলি মোজ্জাফরের বুকে লাগে। গুলি করার পর মোটরসাইকেল গে চলে যান দুই দৃর্বৃত্ত। ঘটনার পর পরই ওই সিএনজির যাত্রীরা দ্রুত তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে মোজাফ্ফর মারা যান। 

বগুড়া মেডিকেল ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম জানান, সকাল ১০টার দিকে মোজাফ্ফর হোসেন একটি সিএনজি যোগে শহরে আসার পথে বগুড়া- রাজশাহী সড়কের শাজাহানপুর বীরগ্রাম কৃষি কলেজের সামনে গুলিবিদ্ধ হন। মৃতদেহ শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালের মর্গে রয়েছে। 

লাশ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা বলেন, ঘটনার পরপরই পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছে। বিভিন্ন বিষয় মাথায় রেখে এই বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। আশা করা হচ্ছে খুব দ্রুতই এই হত্যার কারণ উদঘাটিত হবে। 

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com