সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৩:০৪ অপরাহ্ন

ল্যানসেটে প্রকাশিত গবেষণায় দাবি করোনাভাইরাস বায়ুবাহিত

যমুনা নিউজ বিডিঃ কোভিড-১৯-এর জন্য দায়ী সার্স-কোভ-২ ভাইরাস বায়ুবাহিত কিনা সেটি নিয়ে এত দিন যথেষ্ট সংশয় ছিল গবেষকদের। বরং করোনা ছড়ানোর ক্ষেত্রে ভাসমান জলকণা বা ড্রপলেটের ভূমিকার নিয়েই সতর্ক করেছেন জনস্বাস্থ্যবিদরা। কিন্তু আন্তর্জাতিক জার্নাল ‘ল্যানসেট’-এ প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে উল্টো কথা। করোনা বায়ুবাহিত। তার বেশ কিছু প্রমাণ নাকি ইতিমধ্যেই পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। এই দাবি প্রমাণিত হলে, কোভিড সুরক্ষাবিধিতেও বড়সড় বদল আসতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে। আমেরিকা, ব্রিটেন ও কানাডার ৬ গবেষক যুক্ত রয়েছেন এই গবেষণায়। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক এবং এই দলের প্রধান ত্রিস গ্রিনহালগের জানিয়েছেন, এমন দাবির পিছনে অন্তত ১০টি কারণ রয়েছে। ভাসমান জলকণা বা ড্রপলেটের মাধ্যমে করোনাভাইরাস ছড়ানোর সপক্ষে যথেষ্ট প্রমাণ পাননি তারা। বরং বিভিন্ন ধরনের পরিবেশে কোভিডের সংক্রমণ পরীক্ষা করে তারা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে যে করোনার জীবাণু ছড়ানোর জন্য বাতাসই যথেষ্ট।

গবেষকরা বলছেন, এমন কিছু পরিবেশে কোভিডের সংক্রমণ হয়েছে যেখানে ভাসমান জলকণা ছড়িয়ে পড়ার কোনও আশঙ্কা নেই। শুধুমাত্র বায়ু চলাচলের মাধ্যমগুলি দিয়েই ভাইরাসের সংক্রমণ হতে পারত। এমনকি হাসপাতালে বহু সংখ্যক স্বাস্থ্যকর্মীই যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলেও, পর্যাপ্ত সাবধানতা নিয়েও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ভাইরাসটি শুধু জলকণার মাধ্যমে সংক্রমিত হলে, এমনটি হতো না বলে দাবি গবেষকদের। বায়ুবাহিত বলেই এসব ক্ষেত্রে সংক্রমণ হয়েছে বলে মনে করছেন তারা। জনস্বাস্থ্য সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো যদি বায়ুবাহিত ভাইরাস হিসেবে এটিকে চিহ্নিত করে ব্যবস্থা না নেয়, তবে মানুষকে সুরক্ষিত রাখা সম্ভব না। ভাইরাসটি আরও ছড়িয়ে পড়বে। গবেষণায় বলা হয়েছে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও অন্যান্য জনস্বাস্থ্য সংস্থাগুলোর উচিত জরুরিভিত্তিতে ভাইরাসটির সংক্রমণের যে বিবরণ তারা দিয়েছে, সেটিকে বৈজ্ঞানিক প্রমাণের সঙ্গে মিলিয়ে নেওয়া। বায়ুবাহিত রোগ হিসেবে চিহ্নিত করা হলে এর সংক্রমণ কীভাবে কমানো যায়, সেদিকেও অতি দ্রুত মনোনিবেশ করতে হবে। গবেষণাটি বলছে, উপসর্গহীন ব্যক্তি, যাদের কাশি বা হাঁচি নেই, তারাও অন্যদের সংক্রমিত করতে পারেন। মোট সংক্রমণের অন্তত ৪০ শতাংশই উপসর্গহীনদের মাধ্যমে হয়ে থাকে। যদি সংক্রামক ভাইরাসটি প্রাথমিকভাবে বায়ুবাহিত হয়, তবে করোনা রোগীর শ্বাস-প্রশ্বাস, কথা বলা, চিৎকার করা, গান গাওয়া বা হাঁচি দেওয়ার সময় অন্যরা যদি একই বাতাসে শ্বাস নেয়, তবে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি আছে। সেক্ষেত্রে বায়ুবাহিত এ রোগটির নিয়ন্ত্রণের জন্য বিভিন্ন ব্যবস্থা নিতে হবে। তার মধ্যে রয়েছে- সুষ্ঠু বায়ু চলাচলের ব্যবস্থা করা, বায়ু পরিস্রাবণ, ভিড় কমানো, আবদ্ধ ঘরে কম থাকা, বাড়ির অভ্যন্তরে থাকলে মাস্ক পরা, মাস্কের গুণগত মান যাচাই করে নেওয়া, মুখের আকারের সঙ্গে সঠিক মাপের মাস্ক পরা ও সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি আছে এমন ব্যক্তিদের সংস্পর্শে কাজ করার সময় স্বাস্থ্যসেবা ও অন্যান্য কর্মীদের জন্য ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জামের (পিপিই) ব্যবস্থা করা। করোনাভাইরাসকে বায়ুবাহিত হিসেবে চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বিশ্বনেতাদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন এই গবেষকদল।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com