সোমবার, ২১ Jun ২০২১, ০৬:৩৫ পূর্বাহ্ন

১৬ ওভারে বাংলাদেশের লক্ষ্য ১৭০

যমুনা নিউজ বিডিঃ নিউজিল্যান্ড সফরে প্রথম জয়ের দেখা পেতে নেপিয়ারে টি-টোয়েন্টি সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে বাংলাদেশ দলের সামনে লক্ষ্য ১৬ ওভারে ১৪৮ রান। বৃষ্টির কারণে দুই দফা খেলা বন্ধ হওয়ায় এ পরিবর্তিত লক্ষ্য দেয়া হয়েছে বাংলাদেশকে। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম জয় পেতে ওভারপ্রতি ৯ রানের বেশি করতে হবে টাইগারদের। বৃষ্টির সম্ভাবনা মাথায় রেখে টস জিতে আগে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তবে ঠিক সময়েই শুরু হয়েছিল খেলা। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের ইনিংস পুরোটা শেষ হওয়ার আগেই দফায় দফায় বৃষ্টিতে দুবার বন্ধ হয়ে যায় খেলা।

প্রথমে ১৩তম ওভারের দ্বিতীয় বল করার পর আর এবার ১৮তম ওভারের পঞ্চম বল করার নামল বৃষ্টি। যার ফলে ঢেকে দেয়া হয়েছে মাঠ, বন্ধ করে দেয়া হয়েছে খেলা। দ্বিতীয়বার বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ হওয়ার আগে নিউজিল্যান্ডের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৭.৫ ওভারে ৫ উইকেটে ১৭৩ রান। এরপর লম্বাসময় ধরে বৃষ্টি চলায় সেখানেই থামিয়ে দেয়া হয়েছে খেলা। ফলে বাংলাদেশের সামনে এখন লক্ষ্য দাঁড়িয়েছে ১৬ ওভারে ১৪৮ রান। খেলা বন্ধ হওয়ার আগে মাত্র ২৭ বলে ফিফটি করা ফিলিপস ৩১ বলে ৫৮ এবং মিচেল ১৬ বলে ৩৪ রান করেছেন। টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই মারমুখী খেলতে থাকেন দুই ওপেনার মার্টিন গাপটিল ও ফিন অ্যালেন। নাসুম আহমেদের করা প্রথম ওভারে দুই চারের মারে নিয়ে নেন ৯ রান, সাইফউদ্দিনের করা পরের ওভারে আসে আরও ৭ রান। নিজের দ্বিতীয় ওভারে প্রথম বলে বাউন্ডারি হজম করেও ৪ রানের বেশি দেননি নাসুম। ইনিংসের চতুর্থ ওভারে প্রথমবারের মতো বোলিং পরিবর্তন করেন মাহমুদউল্লাহ। সাইফউদ্দিনের জায়গায় আনা হয় তাসকিন আহমেদকে। তার প্রথম বলেই ডিপ মিডউইকেট দিয়ে বিশাল ছক্কা মারেন অ্যালেন। ঘুরে দাঁড়াতে সময় নেননি তাসকিন। সুযোগ তৈরি করেন পরের বলেই। অতি আক্রমণাত্মক খেলার চেষ্টায় মিড অফ ক্যাচ তুলে দিয়েছিলেন অ্যালেন। বলের নিচে গিয়েও সেটি তালুবন্দী করতে পারেননি মাহমুদউল্লাহ। সেই ওভারের চতুর্থ বলে লংঅন দিয়ে ইনিংসের দ্বিতীয় ছক্কা মারেন গাপটিল। তবু দমে যাননি তাসকিন, আপোস করেননি গতি ও বাউন্সের সঙ্গে। এর ফলও পান হাতেনাতে। তার ওভারের শেষ বলটিতেও ছক্কার জন্য বড় শট নেন অ্যালেন। কিন্তু টাইমিংয়ের গড়বড়ে সেটি উঠে যায় আকাশে। স্কয়ার লেগ থেকে অধিনায়কের করা ভুলের পুনরাবৃত্তি ঘটতে দেননি নাঈম শেখ। তার নিরাপদ হাতে বিদায়ঘণ্টা বাজে ১০ বলে ১৭ রান করা অ্যালেনের। পরের ওভারে নাসুমকেও আক্রমণ থেকে সরিয়ে নেন মাহমুদউল্লাহ, বল তুলে দেন আরেক তরুণ শরিফুল ইসলামের হাতে। দারুণ গতি ও বাউন্সের সঙ্গে দুর্দান্ত এক ওভার করেন শরিফুল। তবে কোনো বাউন্ডারি না পেলেও সেই ওভার থেকে ৭ রান তুলে নেয় নিউজিল্যান্ড। নিজের প্রথম ওভারে উইকেট পেলেও তাসকিনকে টানা দুই ওভার করাননি বাংলাদেশ অধিনায়ক। ষষ্ঠ ওভারে ফের আক্রমণে আনেন সাইফউদ্দিনকে। প্রথম পাঁচ বলে জোড়া চার হজম করে ১২ রান দিয়ে বসেন সাইফউদ্দিন। কিন্তু শেষ বলে তাসকিনের দুর্দান্ত ক্যাচে ওভারটি শেষ হয় ভালোভাবে। সাইফউদ্দিনের পায়ের ওপর করা ডেলিভারিটি জোরের সঙ্গে খেলেছিলেন গাপটিল। ব্যাটের ভেতরের দিকে লেগে বল চলে যায় ফাইন লেগে। সেখান থেকে বাম দিকে ঝাঁপিয়ে এক হাতেই বলটি তালুবন্দী করেন তাসকিন, সাজঘরে ফিরতে হয় ১৮ বলে ২১ রান করা গাপটিলকে। প্রথম পাওয়ার প্লে’তে দুই উইকেট নেয়া বাংলাদেশ, স্বাগতিকদের ওপর আরও চাপ বাড়ায় ঠিক পরের বলেই। শরিফুলের করা ইনিংসের সপ্তম ওভারের প্রথম বলে অনসাইডে বড় শটের চেষ্টা করেন আগের ম্যাচের নায়ক ডেভন কনওয়ে। কিন্তু টপ এজ হয়ে বল চলে যায় সোজা স্কয়ার লেগে থাকা মিঠুনের হাতে। যার সুবাদে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথম উইকেট পেয়ে যান শরিফুল। আগের ম্যাচে ৯৩ রানের ম্যাচজয়ী ইনিংস খেলা কনওয়ে এবার ১৫ রানের বেশি করতে পারেননি। নিজের প্রথম ওভারে ৮ রান খরচ করেছিলেন শেখ মেহেদি হাসান। তিন ওভার বিরতি দিয়ে আবার ১২ নম্বর ওভারে তাকে আক্রমণে আনেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ওভারের প্রথম বলে ছক্কা হজম করলেও চতুর্থ বলে সাজঘরে পাঠিয়ে দিয়েছেন রানের জন্য হাঁসফাঁশ করতে থাকা উইল ইয়ংকে। মেহেদির করা প্রথম বলটিকে সোজা বোলারের মাথার ওপর দিয়ে ছক্কা হাঁকান ইয়ং। পরের দুই বল থেকে কোনো রান করতে পারেননি তিনি। চতুর্থ বলে এগিয়ে এসে বড় শট খেলতে গিয়ে বলের লাইন মিস করেন ইয়ং। বল চলে যায় উইকেটরক্ষক লিটন দাসের হাতে। ভুল করেননি লিটন,স্ট্যাম্পিং হয়ে ফিরে যান ইয়ং, মেহেদি পান নিজের প্রথম উইকেট। অবশ্য সেই ওভারের শেষ বলে আবার ছক্কা হজম করেন মেহেদি। এবার তাকে এক্সট্রা কভার বাউন্ডারি দিয়ে উড়িয়ে মারেন গ্লেন ফিলিপস। এই ছক্কার মারে পূরণ হয় নিউজিল্যান্ডের দলীয় শতরান। পরের ওভারে শরিফুল ইসলাম দুই বল করার পরই বৃষ্টির কারণে বন্ধ হয়ে যায় খেলা। বৃষ্টিতে খেলা থামার আগে ১২.২ ওভার শেষে নিউজিল্যান্ডের সংগ্রহ ছিল ৪ উইকেটে ১০২ রান, ১৭ বলে ৩০ রানে অপরাজিত ছিলেন গ্লেন ফিলিপস। প্রায় ২৫ মিনিট বন্ধ থাকার পর আবার শুরু হয় খেলা, কাঁটা হয়নি কোনো ওভার। ইনিংসের দ্বিতীয় পর্যায়ে নেমে আবারও শুরুতেই উইকেট তুলে নেয় বাংলাদেশ। বৃষ্টির আগে ইয়ংকে ফেরানো মেহেদি, বৃষ্টির পর ফেরান মার্ক চ্যাপম্যানকে। ইনিংসের ১৪তম ওভারের চতুর্থ বলে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে ফেরার আগে ৮ বলে ৭ রান করে চ্যাপম্যান। দলীয় ১১১ রানে অর্ধেক উইকেট হারিয়ে ফেলে নিউজিল্যান্ড। এর পর আর বাংলাদেশকে চেপে বসতে দেননি গ্লেন ফিলিপস ও ড্যারেল মিচেল। ইনিংসের ১৪ ওভার শেষে তাদের সংগ্রহ ছিল ৫ উইকেটে ১১৭ রান। এরপর দ্বিতীয় দফার বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ হওয়ার আগে ২৩ বলে ৫৬ রান যোগ করেন মিচেল ও ফিলিপস। ইনিংসের ১৬তম ওভারে মাত্র ২৭ বলে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিফটি তুলে নেন ফিলিপস। তার সঙ্গে আক্রমণে যোগ দেন মিচেলও। সাইফউদ্দিনের করা ১৭তম ওভারের পরপর তিন বলে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দলীয় সংগ্রহ দেড়শ পার করা ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচে সেঞ্চুরি করা মিচেল। তাসকিনের করা পরের ওভারেআবারও তিন চার মারেন তিনি। সেই ওভারের পঞ্চম বলে বাউন্ডারি হওয়ার পরই নামে বৃষ্টি। দ্বিতীয়বার বন্ধ হয়ে যায় খেলা।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com