সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:০২ পূর্বাহ্ন

News Headline :
শেখ রাসেলের জন্মদিনে বগুড়া জেলা আ’লীগের কর্মসূচি ঘোষণা প্রথমবার জাতীয়ভাবে পালিত হচ্ছে ‘শেখ রাসেল দিবস’ নওগাঁর সাপাহারে বিএমএসএফ’র পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান  সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে বগুড়ায় শ্রমিক লীগের মানববন্ধন ইউপি নির্বাচনে ভোট চুরির চেষ্টা করলে জনতা হাত গুঁড়িয়ে দেবে : হেলালুজ্জামান লালু বগুড়ায় ৫ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার দৈনিক বগুড়ার ১৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বগুড়ায় করোনার টিকা নেয়ার সময় বৃদ্ধার চেইন ছিনতাই, ৫ নারী গ্রেফতার মুজিব শতবর্ষ বগুড়া জেলা দাবা লীগ উদ্বোধন হবু স্ত্রীকে ৬০ কেজি সোনার গহনা উপহার দিলেন যুবক!

‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’ পরিদর্শনে কৃষিমন্ত্রী

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ায় ‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’ শিল্পকর্ম পরিদর্শন করেছেন কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক। তিনি ‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু জাতীয় পরিষদ’ প্রধান উপদেষ্টা।

রোববার (১৪ মার্চ) বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের বালেন্দা গ্রামের ফসলের ক্যানভাসে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এ প্রতিকৃতি পরিদর্শন করেন তিনি। এরপর সেখানে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কৃষিমন্ত্রী।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘শস্য দিয়ে বঙ্গবন্ধুর যে মুখচ্ছবি ফুটিয়ে তোলা হয়েছে তা দেখে আমি মুগ্ধ ও আবেগাপ্লুত। বঙ্গবন্ধু ছিলেন কৃষি ও কৃষকের অকৃত্রিম বন্ধু। তিনি সদ্য স্বাধীনতাপ্রাপ্ত দেশের পুনর্গঠনে প্রথমেই গুরুত্ব দেন কৃষি উন্নয়নের কাজে। ডাক দেন সবুজ বিপ্লবের। ফলে বঙ্গবন্ধু আমাদের হৃদয়ে যেমন আছেন তেমনি বাংলার আকাশে-বাতাসে আছেন। এ দেশের সবুজ শ্যামল ভূমির প্রতিটি কণা, শস্যক্ষেতসহ সবক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধুর প্রতিচ্ছবি-প্রতিকৃতি আমরা দেখতে পাই। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিব শতবর্ষে আমরা বঙ্গবন্ধুকে ফসলের ক্ষেতে বিশ্বের সর্ববৃহৎ শস্যচিত্রে তুলে ধরেছি। এটা একটা অসাধারণ শিল্পকর্ম।’

তিনি আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর হাত ধরেই খাদ্য বিপ্লবের সূচনা হয়েছে, যা এখন বাংলাদেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা এনে দিয়েছে। আমাদের গ্রামের অর্থনীতি এখনও কৃষিভিত্তিক। কৃষিকে লাভজনক করতে পারলে গ্রামের মানুষের আয় বাড়বে, কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে ও জীবন উন্নত হবে। অন্যদিকে অর্থনীতিতেও তা বিরাট ভূমিকা রাখবে। বর্তমান কৃষিবান্ধব সরকার এ লক্ষ্যেই কৃষিতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আধুনিক ও লাভজনক করতে নিরলস কাজ করছে।’

ড. রাজ্জাক বলেন, ‘গ্রামকে আমাদের ভুলে গেলে চলবে না। গ্রামই বাংলাদেশ, ঢাকা বা চট্টগ্রাম নয়। গ্রামকে আলোকিত করতে হবে, গ্রামের উন্নয়নে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। বঙ্গবন্ধুও এ স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে যেতে চেয়েছিলেন।’

এ সময় বালেন্দা গ্রামের জনপ্রতিনিধিরা সেখানে একটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের দাবি জানালে মন্ত্রী বলেন, ‘উন্নত ফসল উৎপাদনকারী এ জেলায় কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের দাবি পর্যালোচনা করা হবে। এ জেলায় শুধু কৃষি উৎপাদন নয়, প্রচুর কৃষি প্রযুক্তি পণ্য তৈরি হচ্ছে। কৃষি পণ্য আমদানি কমাতে আমরা এসব স্থানীয় প্রযুক্তিকে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। এজন্য আমরা প্রকল্প নিয়েছি।’

শেরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান মজনুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন- সংসদ সদস্য সাহাদারা মান্নান, কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মেসবাহুল ইসলাম, বিএডিসির চেয়ারম্যান ড. অমিতাভ সরকার, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. আসাদুল্লাহ, সাবেক মহাপরিচালক মো. হামিদুর রহমান, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. শেখ মোহাম্মদ বখতিয়ার, বগুড়ার জেলা প্রশাসক জিয়াউল হক, পুলিশ সুপার মো. আলী আশরাফ ভূইয়া, ‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’ জাতীয় পরিষদের সদস্যসচিব মোস্তাফিজুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাগিবুল হাসান ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন শফিক।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com