Home / লাইফস্টাইল / রূপচর্চায় নিমের যত ব্যবহার

রূপচর্চায় নিমের যত ব্যবহার

যমুনা নিউজ বিডিঃ নিম প্রাকৃতিকভাবে ব্যাক্টেরিয়া ও সংক্রমণরোধী যা ত্বক সুস্থ ও সুন্দর রাখতে সহায়তা করে। আমাদের দেহের অন্যান্য স্থানের তুলনায় মুখের ত্বক একটু বেশি নাজুক। তাই এর জন্য দরকার বাড়তি যত্ন, বাড়তি পরিচর্যা। নিম পাতায় অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিফাংগাল এবং অ্যান্টিভাইরাল উপাদান থাকায় এটি ত্বকের ইনফেকশন সারাতে কাজ করে থাকে। স্বাস্থ্যগত গুণাগুণে ভরা এই নিম পাতা ব্রণ, ব্ল্যাকহেড, বলিরেখা, খুশকি কিংবা চুল পড়ার সমস্যায় নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

আসুন জেনে নেই কীভাবে ত্বকের যত্নে নিম ব্যবহার করবেন-

ত্বক উজ্জ্বল ও সুন্দর করতে

কয়েকটি নিমের পাতা, অল্প হলুদের গুঁড়ো এবং ঠাণ্ডাতরল দুধ দিয়ে পেস্ট তৈরি করে ত্বকে লাগিয়ে মাসাজ করুন। ১৫ মিনিট পর শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। নিম ও হলুদ ত্বকের সংক্রমণ এবং ব্যাকটেরিয়া দূর করে। এ ছাড়া তৈলাক্ততা এবং ব্রণের প্রকোপ কমায়।

৩টি তুলসি পাতা, ২টি নিম পাতা, ২টি পুদিনা পাতা ও ১টি লেবুর রস মিশিয়ে ব্লেন্ড করে নিন একসঙ্গে। পাতলা মিশ্রণ তৈরি হলে পরিমাণ মতো হলুদ গুঁড়ার সঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। মিশ্রণটি ত্বকে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন।

নিমপাতা শুকিয়ে গুঁড়া করে নিন, পরিমাণ মতো গোলাপজল ও লেবুর রস মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। ফেসপ্যাকটি ২০ মিনিট ত্বকে লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুদিন ব্যবহার করলে ব্রণ দূর হবে।

নিম পাউডারের সঙ্গে তরল দুধ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এবার কয়েক ফোঁটা লেবুর রস দিয়ে দিন। মুখ ও ঘাড়ে লাগান। শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে।

শীতে যাদের ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়, এই প্যাকটি তাদের জন্য অনেক কার্যকর। ১ চা চামচ বেসন, ১ চামচ টকদইয়ের সঙ্গে নিম পাউডার দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এই প্যাক মুখে ও ঘাড়ে ভালো করে লাগান। শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ব্রণের দাগ দূর করবে।

১ চা চামচ নিমপাতা গুঁড়ার সঙ্গে ১ টেবিল চামচ বেসন ও পরিমাণ মতো টক দই মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিন। ত্বকে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন।

নিমপাতা গুঁড়া ও অ্যালোভেরা জেল একসঙ্গে মিশিয়ে তৈরি করুন ফেসপ্যাক। মিশ্রণটি ত্বকে ২০ মিনিট লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন।

চুলের যত্নে

চুলের যত্নেও কার্যকর নিমপাতা। এটি চুল ঝলমলে করার পাশাপাশি বাড়ায় চুলের বৃদ্ধি। খুশকি দূর করে চুল পড়া রোধ করতেও জুড়ি নেই নিমপাতার।

২৫০ মিলি নারকেল তেল গরম করুন। ফুটে উঠলে মুঠোভর্তি নিমপাতা দিয়ে চুল বন্ধ করে দিন। ৪ ঘণ্টা পর তেল ছেঁকে আলাদা করুন। রাতে ঘুমানোর আগে তেল ম্যাসাজ করুন চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত, পরদিন সকালে ধুয়ে ফেলুন শ্যাম্পু দিয়ে।

১ টেবিল চামচ নিমপাতা গুঁড়ার সঙ্গে ২ টেবিল চামচ টক দই মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি চুলের লাগান। ১৫ মিনিট পর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

এক মুঠো নিমপাতা বেটে ১ চা চামচ মধু ও কয়েক ফোঁটা গোলাপজল মিশিয়ে নিন। হেয়ার প্যাকটি চুলে লাগান। ১ ঘণ্টা পর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

বলিরেখা দূর করে

ক্যারোটেনয়েডস, ওলেয়িক অ্যাসিড এবং ভিটামিন ই ত্বকের কোষকলা ও স্থিতিস্থাপকতা বাড়ায়। আর ত্বক রাখে আর্দ্র। ফলে বয়সের ছাপ কমে, ত্বক টানটান, কোমল ও মসৃণ হয়।বলিরেখা দূর করতে ৩০ মি.লি. নিমের তেল, ২০০ মি.লি. জোজোবা তেল ও পাঁচ ফোঁটা খাঁটি ল্যাভেন্ডার তেল একসঙ্গে মেশান। ব্যবহারের আগে ভালো মতো ঝাঁকিয়ে নিতে হবে। দিনে দুতিন বার ব্যবহারে ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে।

ব্ল্যাকহেড এবং মুখের গর্ত কমাতে

নিম মুখের ব্ল্যাকহেড, হোয়াইটহেড এবং বড় রোমকূপের সমস্যা সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এ সমস্যাগুলো থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্যে আপনাকে নিম পাতা গুঁড়োর সঙ্গে কমলালেবু খোসার গুঁড়ো মেশাতে হবে। দুই ধরনের গুঁড়ো মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে এর সঙ্গে অল্প মধু, দুধ এবং টক দই মেশান। ভালো ফলাফলের জন্যে সপ্তাহে অন্তত তিনবার ব্যবহার করুন। আপনার শুধু ব্ল্যাকহেডের সমস্যা থাকলে আক্রান্ত স্থানে নিম তেল মালিশ করুন।য

Check Also

তুলসি পাতার উপকারিতা

যমুনা নিউজ বিডিঃ গত কয়েক দিনে শীত জেকে বসেছে। ফলে ঠান্ডা, কাশি কিংবা জ্বরের প্রকোপ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!
%d bloggers like this:

Powered by themekiller.com