Home / জাতীয় / মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের বিক্ষোভ, রোগীদের ভোগান্তি

মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের বিক্ষোভ, রোগীদের ভোগান্তি

যমুনা নিউজ বিডিঃ পুলিশ কর্মকর্তা এএসপি আনিসুল করিম শিপন হত্যা মামলায় জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের রেজিস্ট্রার আব্দুল্লাহ আল মামুনকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে হাসপাতালের পরিচালককে তার কক্ষে অবরুদ্ধ করে বিক্ষোভ করেছেন চিকিৎসক-কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

আজ বুধবার (১৮ নভেম্বর) সকাল থেকে তারা এ কর্মবিরতি পালন শুরু করে। পরিস্থিতিতে ওই হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসা সেবা বন্ধ রয়েছে। ফলে চরম ভোগান্তিতে রয়েছেন সেবাপ্রত্যাশী রোগীরা।

মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের আন্দোলনরত চিকিৎসক-কর্মকর্তা-কর্মচারীরারা বলছেন, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কোনো ধরনের যোগাযোগ না করেই একজন সরকারি স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে তার বাসা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এ বিষয়ে ইনস্টিটিউট কর্তৃপক্ষ কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ায় বুধবার সকালে তারা হাসপাতালের পরিচালকসহ কয়েকজন কর্মকর্তাকে তাদের কক্ষে অবরুদ্ধ করে বাইরে থেকে তালা লাগিয়ে দেন।

আন্দোলনে অংশ নেওয়া একজন চিকিৎসক বলেন, ‘ডা. মামুনকে গ্রেফতারের ক্ষেত্রে আইনের বত্যয় ঘটেছে। তিনি একজন সরকারি কর্মকর্তা। তাকে গ্রেফতার করার আগে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে অবহিত করা দরকার ছিল, সেটা পুলিশ করেনি। তা না করে, গভীর রাতে তাকে তুলে নেওয়া হয়েছে। এ প্রেক্ষিতে আমাদের হাসপাতাল প্রশাসন কী ব্যব্স্থা নিয়েছেন সেটা আমরা জানতে চাই।’

এদিকে বিক্ষোভ চলাকালে হাসপাতালের টিকেট কাউন্টার বন্ধ রাখা হয়। সেবা দেওয়া বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়েন আউটডোরে আসা রোগী ও স্বজনরা। এ সময় পরিচালকের কক্ষের তালা খুলে দিয়ে তার সঙ্গে সাংবাদিকদের কথা বলার সুযোগ দেন আন্দোলনকারীরা।

পরিচালক বিধান রঞ্জন রায় পোদ্দার বলেন, ‘নিয়ম অনুযায়ী আমাদের কোনো কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করতে হলে আগে আমাকে জানানোর কথা। কিন্তু আমাকে কেউ কিছু জানায়নি।

তিনি বলেন, রেজিস্ট্রার আব্দুল্লাহ আল মামুন হাসপাতালের ডরমিটোরিতে থাকতেন। তাকে ভোর ৪টার সময় ‘উঠিয়ে নিয়ে যাওয়ার’ খবর পেয়ে বিষয়টি তিনি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে জানিয়েছিলেন।

তিনি আরও বলেন, ডিজি স্যার আমাকে জিডি করার পরামর্শ দেন। সে অনুযায়ী আমি থানায় জিডি করি। কিন্তু পরে বিভিন্ন পত্রপত্রিকার মাধ্যমে পুরো বিষয়টা জানতে পারি। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে আমাকে এখনো কিছু জানানো হয়নি।
আন্দোলনের বিষয়ে প্রশ্ন করলে পরিচালক বলেন, ডা. মামুনকে গ্রেফতারের ঘটনায় সবাই ক্ষুব্ধ, তারা আমার কাছে এসেছেন, আমি তাদের বলেছি, আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি প্রপার চ্যানেলে বিষটি সুরাহা করার। তাদের বলেছি, রোগীদের দুর্ভোগ হয় এমন কিছু না করতে। এ কারণে তারা রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া শুরু করেছেন। আশা করছি সব ঠিক হয়ে যাবে।

আদাবরের মাইন্ড এইড হাসপাতালে চিকিৎসার নামে জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) আনিসুল করিমকে পিটিয়ে হত্যার মামলায় জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের রেজিস্ট্রার ডা. আব্দুল্লাহ আল মামুনকে মঙ্গলবার গ্রেফতার করে রিমান্ডে নেয় পুলিশ।

ডা. মামুনের পরামর্শেই আনিসুলকে মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল থেকে আদাবরের ওই বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়া হয়েছিল এবং মাইন্ড এইডে রোগী পাঠানোর জন্য তিনি কমিশন পেতেন বলে পুলিশ কর্মকর্তাদের ভাষ্য।

Check Also

মাস্ক পরতে বাধ্য করতে আরও কঠোর হচ্ছে সরকার

বগুড়া নিউজ ২৪ঃ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে মানুষকে মাস্ক পরার জন্য বাধ্য করতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!
%d bloggers like this:

Powered by themekiller.com