Breaking News
Home / সারাদেশ / বগুড়া / বগুড়া পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন এ্যাড. মন্টু

বগুড়া পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন এ্যাড. মন্টু

টি আলমঃ আগামী বগুড়া পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সহ-সভাপতি, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য, বগুড়া এ্যাডভোকেটস বার সমিতির সাবেক সভাপতি ও বগুড়া পৌরসভার সাবেক সফল চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেটস রেজাউল করিম মন্টু। দলীয় মনোনয়ন পেলে ও নির্বাচিত হতে পারলে ৫ বছরের মধ্যে মাষ্টারপ্লান তৈরি করে বগুড়া পৌরসভার যানজট ও জলাবদ্ধতা নিরসন করে উন্নত ও সুন্দর শহরে রুপান্তরিত করবেন তিনি। এমন আশার কথাই শোনালেন বগুড়া পৌরসভার সাবেক সফল চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেটস রেজাউল করিম মন্টু।

একান্ত আলাপচারিতায় তিনি বলেন, ১৯৯৯ থেকে ২০০৫ পর্যন্ত তিনি বগুড়া পৌরসভার চেয়ারম্যান ছিলেন। সেই নির্বাচনে আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন নিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। নির্বাচিত হয়ে সেসময় পৌরসভার ১২ টি ওয়ার্ডে সমান ভাবে উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন। শহরকে যানজট ও জলাবদ্ধতা থেকে মুক্ত করতে রাস্তার সংস্কার ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন করেছেন। সাতমাথার আয়তন বৃদ্ধি করেছেন।
তিনি বলেন, বর্তমান মেয়র পৌরসভার অনেক ক্ষতি করেছেন। এখন পৌরসভা দূর্নীতি বাজদের আখরায় পরিনত হয়েছে। গোটা শহর ডাস্টবিনে পরিনত করা হয়েছে। ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন না করায় একটু বৃষ্টি হলেই শহরের অনেক সড়কে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। এমনকি শহরের সাতমাথাতেই জমে থাকছে পানি। পৌর এলাকার অনেক জায়গা আছে যেখানে যাতায়াতের ব্যবস্থা রাস্তা না থাকলেও বাড়ি করা হচ্ছে। পৌরসভা একটু দায়িত্বশীল হলেই পৌর আইন মেনে বাড়ি নির্মানের ব্যবস্থা করতে পারে।
শহরে অনেক রাস্তা আছে যেগুলো অনেক সরু। এই রাস্তাগুলো প্রশস্ত করার জন্য সেসময় সরকারের কাছে বলেঠছলাম। কিন্তু তারা সহযোগিতা কিনি বলে কাজটি করা হয়নি। এখন বগুড়া পৌরসভার আয়তন অনেক বড়। পৌর এলাকাকে বর্ধিত করে ২১ টি ওয়ার্ড করা হয়েছে। কিন্তু বর্ধিত অংশে কোন উন্নয়ন হয়নি। শুধু পৌর এলাকার বাসিন্দা হিসেবেই তাদের পরিচয় দেয়া হয় কিন্তু সুযোগ সুবিধার তেমন কিছুই পায়না তারা।
এ্যাড. রেজাউল করিম মন্টু বলেন, শহরকে সাজানোর জন্য একজন মেয়রের অনেক দায়িত্ব রয়েছে। আগামী পৌরসভা নির্বাচনে দল মনোনয়ন দিলে ও নির্বাচিত হতে পারলে বগুড়া পৌরসভাকে গ্রিন সিটি হিসেবে রুপান্তরিত করা হবে। ৫ বছরের জন্য মাষ্টারপ্লান তৈরিকরে শহরে যানজট ও জলাবদ্ধতা নিরসনে কাজ করা হবে। বগুড়া পৌরসভাকে একটি সুন্দর শহরে রুপান্তরিত করা হবে। স্বদিচ্ছা ও আন্তরিকতা থাকলে এলাকার উন্নয়নে সব কিছুই করা সম্ভব। তিনি বলেন, যে দল যখন ক্ষমতায় থাকে সে দলের লোককে নির্বাচিত করলে এলাকার উন্নয়ন সহজ হয়।

Check Also

লোহাগাড়ায় আগুনে ১৭ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়ে ছাই

যমুনা নিউজ বিডিঃ লোহাগাড়া উপজেলার পুটিবিলার এম চর হাট বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ১৭টি দোকান পুড়ে …

error: Content is protected !!
%d bloggers like this:

Powered by themekiller.com