Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / করোনায় ইউরোপে প্রতি ১৭ সেকেন্ডে একজন মারা যাচ্ছে: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

করোনায় ইউরোপে প্রতি ১৭ সেকেন্ডে একজন মারা যাচ্ছে: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

যমুনা নিউজ বিডিঃ ইউরোপীয় দেশগুলোতে করোনাভাইরাসের আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা আবারও আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাওয়ার পর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে, আগামী ছয় মাস ইউরোপীয় দেশগুলোকে কঠিন পরিস্থিতির মধ্যদিয়ে যেতে হবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’র ইউরোপীয় অঞ্চলের পরিচালক হ্যান্স ক্লুগ গতকাল বৃহস্পতিবার ডেনমার্কের রাজধানী কোপেনহেগেনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ সতর্কবাণী উচ্চারণ করে বলেছেন, ইউরোপে গত এক সপ্তাহে কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়ে ২৯ হাজার মানুষ মারা গেছে। এই পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে তিনি বলেন, ইউরোপীয় দেশগুলোতে প্রতি ১৭ সেকেন্ডে করোনা আক্রান্ত হয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু হচ্ছে।

ক্লুগ অবশ্য একথাও বলেন, কিছু দেশে লকডাউন কড়াকড়ি করার মাধ্যমে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা কমানো সম্ভব হয়েছে।  গত মাসে ইউরোপে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পর এই ভাইরাসের প্রকোপ ঠেকানোর জন্য বেশিরভাগ ইউরোপীয় দেশে লকডাউন বাস্তবায়নে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’র পরিসংখ্যান অনুযায়ী ইউরোপে এ পর্যন্ত এক কোটি ৫৭ লাখের বেশি মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এবং তিন লাখ ৫৪ হাজার মানুষ মারা গেছে। আক্রান্ত ব্যক্তিদের বেশিরভাগ ব্রিটেন, রাশিয়া, ফ্রান্স, স্পেন, ইতালি ও জার্মানির নাগরিক। এসব দেশের মধ্যে ব্রিটেনে সর্বাধিক ৫৩ হাজার মানুষ মৃত্যুবরণ করেছে। অন্যদিকে আক্রান্তদের সংখ্যার দিক থেকে ফ্রান্স সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে। দেশটিতে এ পর্যন্ত ২০ লাখের বেশি মানুষ কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়েছে।

হ্যান্স ক্লুগ বলেছেন, বিশ্বের মোট কোভিড আক্রান্ত রোগীর ২৬ শতাংশ এবং মোট মৃত্যুবরণকারীদের ২৮ শতাংশ ইউরোপের অধিবাসী। তিনি করোনাভাইরাসের টিকা আবিষ্কারের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, খুব শিগগিরই ভোরের সুবাতাস বইবে কিন্তু তার আগে আগামী ছয় মাস ইউরোপকে কঠিন পরিস্থিতির মধ্যদিয়ে যেতে হবে।

Check Also

দক্ষিণ চীন সাগরে ইন্দোনেশিয়ার নৌবাহিনী মোতায়েন

যমুনা নিউজ বিডিঃ দক্ষিণ চীন সাগরের বিরোধপূর্ণ এলাকার কাছে নৌবাহিনী মোতায়েনের ঘোষণা দিয়েছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!
%d bloggers like this:

Powered by themekiller.com