রবিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:২৮ অপরাহ্ন

উত্তরে বেড়েছে শীতের তীব্রতা, আসছে শৈত্যপ্রবাহ

যমুনা নিউজ বিডিঃ  উত্তরের জেলাগুলোতে বাড়ছে শীতের তীব্রতা। আবহাওয়া কর্মকর্তারা বলছেন, ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এই অঞ্চলে শৈত্য প্রবাহ বয়ে যেতে পারে। শীত বাড়ায় সেখানকার জেলাগুলোতে বাড়ছে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা। হাসপাতালে বর্তমানে শিশু রোগীর সংখ্যাই বেশি।

পঞ্চগড়ে সকালে সূর্যের দেখা মিললেও নেই উত্তাপ। দুপুর পর্যন্ত ঘন কুয়াশায় ঢেকে থাকছে জনপদ। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষরা। জেলাটিতে এখন পর্যন্ত সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে ১৩ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সামনের দিনগুলোতে আরো কমতে থাকবে।

কুড়িগ্রামে গত এক সপ্তাহ ধরে তাপমাত্রা উঠানামা করছে ১৩ থেকে ১৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে। আবহাওয়া অফিস বলছে, ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। নীলফামারীতে সন্ধ্যা হলেই হিম বাতাস আর কুয়াশায় বাড়ছে শীতের তীব্রতা। আবহাওয়া কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ৩০শে নভেম্বর থেকে তাপমাত্রা নেমে আসবে ১০ থেকে ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। এতে শীতের তীব্রতা আরো বাড়বে।

গাইবান্ধায় শীতের সাথে বাড়ছে ঠাণ্ডাজনিত রোগীর সংখ্যা। হাসপাতালগুলোতে জ্বর, হাঁচি-কাশি, ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। এর মধ্যে বেশিরভাগই শিশু। জেলা সদর হাসপাতালেই ভর্তি আছে দুইশ’র বেশি রোগী।

নওগাঁয় ঘন কুয়াশা আর শীতের প্রকোপ অনেক বেড়েছে। রাত থেকে ঘন কুয়াশার চাদরে ঢেকে যাচ্ছে চারদিক। হিম বাতাসের জন্য শীত অনেক বেড়েছে। ঘন কুয়াশায় দুর্ঘটনা এড়াতে মোটরসাইকেল, বাস, ট্রাকসহ অন্যান্য গাড়িকে দিনের বেলাতেও হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করতে দেখা যাচ্ছে।

এদিকে রংপুরে বাড়ছে শীত। আবহাওয়া কর্মকর্তা জানিয়েছেন,ডিসেম্বরের শুরু থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত থেকে থেকে শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে, উত্তরাঞ্চলের উপর দিয়ে। সিরাজগঞ্জেও শীত বেড়েছে। ভোর রাত থেকে কুয়াশা যেন বৃষ্টির মতো নামছে। সকালের দিকে রোদের দেখা না মেলায় বাড়ছে শীতের তীব্রতা। দিনে ও রাতে জড়াতে হচ্ছে শীতের কাপড়। ঘন কুয়াশার কারণে সকালে মহাসড়কে লাইট জ্বালিয়ে যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com