সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৩৯ পূর্বাহ্ন

বেহাল সড়কে চলাচলে ভোগান্তি, বৃষ্টি হলেই গৃহবন্দি

যমুনা নিউজ বিডিঃ রাজধানীর এয়ারপোর্ট সংলগ্ন কসাইবাড়ী রেল গেইট ও উত্তরা ৪ নং সেক্টর যাওয়ার (এপিবিএন মসজিদ গেইটের সামনে) সড়কের বেহাল চিত্র। এই সড়কের কয়েকটি স্থানে ছোট-বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। সড়কটির পাশেই এপিবিএন হেডকোয়ার্টার আর এপিবিএন ও পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের আবাসিক কোয়ার্টার। মূলত দক্ষিনখান-কাঁচকুড়া যাওয়ার রাস্তা এটি। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অধিকাংশ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবনও এই এলাকাতে। তারা চলাচল করেন এই সড়ক দিয়ে। এছাড়া পাশেই বিমানবন্দর রেল ষ্টেশন। রয়েছে অসংখ্য গার্মেন্টস-শিল্প কলকারখানা।

এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়কের বেহাল দশা। এতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে উক্ত সড়ক দিয়ে চলাচলকারীদের। দীর্ঘদিন ধরে ভাঙা ও গর্তের সৃষ্টি হওয়া সড়ক দিয়ে রিকশা-ভ্যান, সিএনজি, প্রাইভেট কার, স্টাফ বাস ও ট্রাকসহ সব ধরনের যানবাহন চালকরা ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। মাঝে মধ্যেই ঘটছে ছোটখাট দুর্ঘটনা।

অবিলম্বে সড়কটি সংস্কারে পদক্ষেপ নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেছে অত্র এলাকার বাসিন্দা ও উক্ত সড়কে চলাচলকারীরা।

এদিকে গোটা দক্ষিনখান এলাকার বিভিন্ন সড়কের অনেক অংশেই বেহাল দশা। জলাবদ্ধতা তো এদিকের বাসিন্দাদের বহু বছরের প্রধান সমস্যা বলা চলে। `বর্ষাকাল` যেন আতঙ্ক ও সীমাহীন ভোগান্তির নাম। বিভিন্ন স্থানে একে তো ভাঙ্গাচুরা-গর্ত, তারমধ্যে সামান্য বৃষ্টিতে সড়ক ও পাড়া-মহল্লার রাস্তা পানিতে ডুবে থাকে। প্রায় সময় টানা বৃষ্টি হলে সুয়ারেজ লাইনের পানি আর বৃষ্টির পানি মিলে মিশে একাকার হয়ে যায়। এতে মানুষের গৃহবন্দি থাকার মত পরিস্থিতি হয়। দিনের পর দিন জমে থাকে পানি, বাসা-বাড়ির পায়খানার পানি নামার পাইপ জ্যাম হয়ে যায়। মুসল্লিদের নোংরা পানি ডিঙ্গিয়ে মসজিদে নামাজ আদায় করতে যেতে হয়। এছাড়া সংস্কার কাজের নামে বিভিন্ন সংস্থার যখন-তখন রাস্তা খোঁড়াখুঁড়িতে সৃষ্ট ভোগান্তি তো এলাকাবাসীর জন্য কাঁটা ঘায়ে লবনের ছিটা দেওয়ার মতন।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com