মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৪৫ অপরাহ্ন

মাঝ বয়সে প্রেম, ভালো না খারাপ?

যমুনা নিউজ বিডিঃ আমাদের দেশে সাধারণত এমনিই প্রেম-ভালোবাসাকে বাঁকা নজরে দেখা হয়। আবার সেই প্রেম যদি হয় মাঝ বয়সে তাহলে তো কথার শেষ নেই। যে কারণে অনেকেই এই বয়সে প্রেমে জড়ালে তা আড়াল করার চেষ্টা করে। এটা স্পষ্ট প্রমাণিত যে মাঝ বয়সে অনেকেরই প্রেমে পড়ার প্রবণতা অনেক বেড়ে যায়। কেউ কেউ তো এই বয়সের প্রেমকে অনৈতিকও বলে থাকেন। আচ্ছা, মাঝ বয়সে মানুষ কেনো প্রেমে পড়ে আর এই প্রেমে পড়া কী খারাপ? এ বিষয়ে জেনে নেয়া যাক-

প্রেম হচ্ছে একটি জটিল মনস্তাত্ত্বিক ব্যাপার। একজন মানুষ কখন, কিভাবে কার প্রেমে পড়ে যায় তা আগে থেকে বলা খুবই মুশকিল। তবে প্রেমে পড়ার পেছনে নির্দিষ্ট কারণ থাকতে পারে, বিশেষ করে বলা যেতে পারে মাঝ বয়সী এই প্রেমের ব্যাপারে।

বিজ্ঞান বলছে, মানুষের মাঝ বয়সে বা যৌবনের শেষ পর্যায়ে কিছু শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তন হয়ে থাকে। সেই সঙ্গে হরমোনজনিত কিছু পরিবর্তনও হয়ে থাকে। নির্ধারিত এই বয়সে মানুষ কিছু চাপে থাকেন। কেউ কেউ তো বিধ্বংসীও বনে যায়। বিশেষজ্ঞদের মতে, যৌবন চলে যাচ্ছে এ কারণে মানসিক অবসাদে ভুগতে থাকেন। এই সময় অনেকে নতুন কিছু করার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেন। বিশ্বের অনেক দেশে এই সমস্যাকে ‘মিডল এজ ক্রাইসিস’ও বলা হয়ে থাকে। ফলে দেখা যায়, কেউ কেউ গোপনে অন্য কারও সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। এমনকি পরকীয়া সম্পর্কেও জড়ান অনেকে। এক্ষেত্রে অবিবাহিত মাঝ বয়সীদের মাঝে খুব একটা সমস্যা দেখা যায় না। তবে বিবাহিতদের জীবনে ঠিকই এর কুপ্রভাব পড়ে।

বিদেশে অনেকে নির্দিষ্ট বয়স অতিক্রম হলেও বিয়ে করতে পারেন না। মনের মতো কাউকে না পেয়ে বা ক্যারিয়ার গড়তে গিয়ে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। যে কারণে অনেকে বিয়ে না করার সিদ্ধান্ত নেন। এ সকল মানুষের জীবনে প্রেম যেন আশীর্বাদ। তারা নতুন করে জীবনকে গুছিয়ে নিতে পারেন। তাই তাদের ক্ষেত্রে মধ্য বয়সে প্রেম কিন্তু খারাপ নয়। একইভাবে ডিভোর্সি নারী-পুরুষ বা অল্প বয়সে বিধবাদের ক্ষেত্রেও এই প্রেম খারাপ কিছু নয়। এই প্রেমের ফলে নতুন করে তারা জীবনের অর্থ খুঁজে পায়।

বিশেষজ্ঞদের মতে, যৌবনের শুরুতে এবং যৌবনের শেষ দিকে মানুষের মধ্যে যৌন চাহিদা প্রবল বৃদ্ধি পায়। যে কারণে মাঝ বয়সে যৌবনের শেষ মুহূর্তে মানুষ কারণে-অকারণে প্রেমে আসক্ত হয়ে পড়ে। কিন্তু এই সম্পর্কটা অধিকাংশ সময়ই জুনিয়রদের সঙ্গেই হয়ে উঠে। কারণ এখানে কেবলই শারীরিক চাহিদাকে গুরুত্ব দেয়া হয় বেশি। এই সম্পর্ক কিছুদিন মানসিক তৃপ্তি দিলেও পরবর্তীতে নৈতিক অবনতি, সামাজিক গঞ্জনা ও শারীরিক সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। ফলে নিজেকে আরও ছোট মনে হয়। তাই অনৈতিক কোনো সম্পর্কে না জড়ানোই ভালো।

সূত্র : কলকাতা ২৪

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com