শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:০৭ অপরাহ্ন

উড়ন্ত গাড়ি ‘এয়ারকার’ বানিয়ে ফেললো স্লোভাকিয়া

যমুনা নিউজ বিডিঃ সায়েন্স ফিকশনের কল্পিত জগত বাস্তবে রূপ নিচ্ছে। রাস্তায় চলমান গাড়ি হঠাৎ আকাশে উড়লো। পৌঁছে গেল এক শহর থেকে আরেক শহরে। আবার রাস্তায় অবতরণ করলো। হ্যাঁ, এমন দৃশ্য সায়েন্স ফিকশনে এতদিন শোনা গেলেও স্লোভাকিয়ায় ভবিষ্যতের উড়ন্ত গাড়ি ‘এয়ারকার’ ভূপৃষ্ঠ থেকে ৮২০০ ফুট উপর দিয়ে উড়ে গেছে ১০৫ মাইল বেগে। আকাশে উড়তে তার সময় লেগেছে তিন মিনিটের মতো। আবার রাস্তায় অবতরণ করে গাড়িতে রূপান্তরিত হতে সময় নিয়েছে তিন মিনিটের কম। এই গাড়ির দাম কত হবে তা জানা না গেলেও আগামী এক বছর বা ১২ মাসের মধ্যে বিক্রি শুরু হবে। এই গাড়িটি প্রোটোটাইপ ১।

এতে আছে ১৬০ হর্ষশক্তি সম্বলিত ফিক্সড প্রপেলার ইঞ্জিন। এর স্রষ্টা প্রফেসর স্টেফান ক্লেইন। স্লোভাকিয়ার প্রতিষ্ঠান ক্লেইন ভিশন থেকে তৈরি করা হয়েছে এই উড়ন্ত গাড়ি। প্রফেসর স্টেফান শুধু এটা আবিষ্কার করেই ক্ষান্তি দেননি, নিজে এটি উড়িয়েও দেখিয়েছেন। এ সময় গাড়ির ভিতরে বসে তিনি নিজে চালিয়েছেন। প্রথম বারের মতো একটি উড়ন্ত গাড়ি এক শহর থেকে আরেক শহরে গেছে উড়ে। আকাশে উড়ার আগে গাড়িটিকে একটি রানওয়েতে দ্রুতবেগে চালাতে দেখা গেছে। তারপর তা আকাশে উড়ে গেছে। এ সময় তাকে জলাভূমি পাড়ি দিতে দেখা যায়। তারপর অবতরণ করেছে। প্রসারিত পাখা দুটি গুটিয়ে নিজের ভিতর নিয়ে নিয়েছে। আবার এটি গাড়ির আকৃতি ধারণ করে স্লোভাকিয়ার রাজধানী ব্রাতিস্লাভাতে একটি সড়কে চালানো হয়েছে গাড়িটি। ক্লেইনভিশন বলেছে, উৎপাদন শুরুর আগে নিত্রা থেকে ব্রাতিস্লাভা পর্যন্ত ৩৫ মিনিট উড়েছে গাড়িটি। এটা একটা মাইলফলক। তারা আরো বলেছে, এই এয়ারকারটি এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে, যাতে পরীক্ষামূলকভাবে সে কমপক্ষে ৪০ ঘন্টা উড়তে পারে। ফলে অবকাশ যাপন এবং নিজে গাড়ি চালিয়ে কোথাও ভ্রমণে যাওয়ার জন্য এটা হবে এক উপযোগী গাড়ি। এমনকি এটাকে কেউ বাণিজ্যিকভিত্তিতে ট্যাক্সি সার্ভিস হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।
এতে আছে একটি বিএমডব্লিউ ইঞ্জিন। সাধারণ পেট্রোলে চলে। একসঙ্গে এতে দু’জন মানুষ ভ্রমণ করতে পারবেন। এয়ারকারের ককপিট থেকে নেমে প্রফেসর ক্লেইন বলেছেন, দ্বৈত যানবাহন যুগে এই গাড়িটি নতুন একটি যুগের সূচনা করেছে

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com