বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৪:৪৬ পূর্বাহ্ন

যে সকল গুনাহের উপর আল্লাহ ও তার রাসূল লানত করেছেন

যমুনা নিউজ বিডিঃ গুনাহ ছোট হোক বা বড় হোক, সব গুনাহই পরিত্যাহ্য। গুনাহের কারণে অন্তরে কালো দাগ পড়ে যায়। আর বেশি গুনাহে অভ্যস্ত হয়ে গেলে মানুষ ভালো কাজের প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলে। কোরআন হাদিসে বর্ণিত কিছু গুনাহ এমন আছে, যেসব গুনাহ কারীদের উপর সরাসরি আল্লাহ তায়ালার অভিসম্পাত বর্ষিত হয়। তার মধ্যে অন্যতম নিকৃষ্ট গুনাহ গুলো হলো:

১. যে স্ত্রী বা পুরুষ সূঁচের দ্বারা নিজ হাতে নিজের শরীর খোদায় বা অন্যের দ্বারা তা অঙ্কিত করায় তার প্রতি আল্লাহর লা‘নত। (বুখারী: হাদীস নং ৫৯৩৭, মুসলিম: হাদীস নং ২১২৪)
২. যে স্ত্রীলোক নিজ হাতে বা অন্য কারো দ্বারা অন্যের চুল নিজের চুলের সঙ্গে মিশিয়ে নিজের চুলের পরিমাণ বাড়ায় তার উপর রাসূল (সা.) লানত করেছেন। (বুখারী: হাদীস নং ৫৯৩৭, মুসলিম: হাদীস নং ২১২৪)
৩. যে ব্যক্তি নিজে সুদ খায় বা (বিনা অপরাগতায়) অন্যকে সুদ খাওয়ায়, যে সুদের দলিলে বা কারবারে স্বাক্ষী হয়, যে সুদের দলিল লেখে তাদের সকলের উপর রাসূল (সা.) লানত করেছেন। (মুসলিম: হাদীস নং ১৫৯৮)
৪. যে নিজ স্ত্রীকে তিন তালাক দিয়ে হীলা-বাহানা করে হারামকে হালাল করার জন্য সে স্ত্রীকে অন্য কারো নিকট এই শর্তে বিবাহ দেয় যে, বিবাহের পর সহবাস করে তালাক দিতে হবে এবং দ্বিতীয় ব্যক্তি এরূপ শর্ত স্বীকার করে বিবাহ করে উভয় ব্যক্তির উপর রাসূল (সা.) লা‘নত করেছেন। (তিরমিযী শরীফ: হাদীস নং ১১২১)
৫. রাসূল (সা.) ইরশাদ করেছেন: যে ব্যক্তি ডিম বা রশি ইত্যাদি ক্ষুদ্র জিনিসও চুরি করে আল্লাহ তায়ালা তার হাত কাটার হুকুম দিয়েছেন এবং আল্লাহ তায়ালা তার উপর লানত করেছেন। (বুখারী: হাদীস নং ৬৭৯৯, মুসলিম: হাদীস নং ১৬৮৭)
৬. যে মদ তৈরি করে, যার জন্য তৈরি করে, যে মদ পান করে, যে মদ পান করায়, যে মদ বিক্রি করে, যে মদ বিক্রি করে পয়সা খায়, যে মদ বহন করে আনে, যার জন্য বহন করে আনা হয়, যে মদ দান করে, তাদের সকলের উপর রাসূলুল্লাহ (সা.) লানত করেছেন। (তিরমিযী: হাদীস নং ১২৯৮)
৭. যে পিতা-মাতাকে লানত করে আল্লাহ তায়ালা তাদের উপর লানত করেন। (মুসলিম: হা: নং ১৯৭৮)
৮. যে পিতা-মাতাকে গালি দেয় বা সমালোচনা করে আল্লাহ তা‘আলা তার উপর লানত করেন। (মুসনাদে আহমদ: হা: নং ২৮২০)
৯. যে ব্যক্তি তীর বা ধনুকের লক্ষ্য ঠিক করার জন্য কোন প্রাণীকে কষ্ট দিয়ে তাকে নিশানা বানায় তার উপর রাসূল (সা.) লানত করেছেন।
১০. যে পুরুষ স্ত্রীলোকের সুরত ও বেশ-ভুষা বা যে স্ত্রীলোক পুরুষের সূরত বেশ-ভুষা ধারণ করে তার উপর রাসূল (সা.) লানত করেছেন।
১১. যে এক আল্লাহ ব্যতীত অন্য কারো নামে প্রাণী যবাহ করে আল্লাহ তায়ালা তার উপর লানত করেছেন। (মুসলিম: হা: নং ১৭৮৯)
১২. যে ইসলাম ধর্মের বাহিরের কোনো কথা ইসলাম ধর্মের ভেতরে দাখিল করে এবং যে এমন ব্যক্তির সহায়তা করে আল্লাহ তায়ালা, ফেরেশতা এবং মানব সকলেই তার উপর অভিসম্পাত করে। (আবূ দাউদ: হা: নং ৪৫১৯)
১৩. যে ব্যক্তি কোনো জীব-জন্তুর ছবি অঙ্কিত করে তার উপর রাসূলুল্লাহ (সা.) লানত করেছেন। (বুখারী: হা: নং ২০৮৬)
১৪. যে লুত আলাইহিস সালামের কওমের পাপকার্যে অর্থাৎ সমকামিতায় লিপ্ত হয় সে অভিশপ্ত। (মুসনাদে আহমাদ: হা: নং ১৮৮০)
১৫. যে কোনো জীবের সঙ্গে কু-কর্ম করে সে অভিশপ্ত। (প্রাগুক্ত)
১৬. যে ব্যক্তি কোনো জীবের মুখের উপর লোহা গরম করে দাগ দিবে অথবা তার মুখের উপর আঘাত করবে সে অভিশপ্ত। (আবূ দাউদ: হা: নং ২৫৬৪)
১৭. যে ব্যক্তি কোন মুসলমানের সহিত ধোঁকাবাজী করে বা জ্ঞাতসারে কোনো মুসলমানের ক্ষতি করে সে অভিশপ্ত। (তিরমিযী: হা: নং ১৯৪৬)
১৮. যে সব স্ত্রীলোক মাজারে যাবে এবং যারা মাজারে গিয়ে সিজদা করবে বা তথায় বাতি জ্বালাবে তাদের উপর রাসূলুল্লাহ (সা.) লানত করেছেন। (তিরমিযী: হা: নং ৩২০)
১৯. যে লোক কারো স্ত্রীকে তার স্বামীর বিরুদ্ধে উস্কানী দিয়ে খাড়া করাবে (বা চাকর-গোলামকে তার মুনিবের বিরুদ্ধে বা শাগরেদকে উস্তাদের বিরুদ্ধে) কুমন্ত্রণা দিয়ে উত্তেজিত করবে রাসূল (সা.) বলেন সে আমার দলভুক্ত নয়। (আবূ দাউদ: হা: নং ২১৭৫)
২০. যে পুরুষ তার স্ত্রীর পশ্চাতদ্বারে সহবাস করবে সে অভিশপ্ত। (আবূ দাউদ: হা: নং ২১৬২)
২১. যে স্ত্রী তার স্বামীর উপর রাগ করে স্বামী থেকে পৃথক রাত্রিযাপন করে তার উপর ফেরেশতাগণ ভোর পর্যন্ত লানত করতে থাকেন। (মুসলিম হা: নং ১৪৩৬)
২২. যে ব্যক্তি পূর্ব পুরুষের বংশ ছেড়ে অন্য বংশের পরিচয় দিবে (যেমন সায়্যিদ বংশ নয় অথচ সায়্যিদ বলে পরিচয় দিবে) তার উপর রাসূল (সা.) লানত করেছেন। (তিরমিযী: হা: নং ২১৬৭)
২৩. রাসূল (সা.) বলেছেন: যে ব্যক্তি কোনো মুসলমানের দিকে (হাসি, বিদ্রূপ বা ভয় দেখানোর উদ্দেশ্যে) অস্ত্র দ্বারা ইশারা করে ফেরেশতাগণ তার উপর লানত করেন। (তিরমিযী: হা: নং ২১৬২)
২৪. রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন: যদি তোমরা কাউকে আমার সাহাবীদেরকে গালি দিতে বা সমালোচনা করতে দেখ তখন বলবে তোমাদের কু-কাজের জন্য তোমাদের উপর আল্লাহ তায়ালার লানত হোক। (তিরমিযী: হা: নং ৩৮৭৫)
২৫. আল্লাহপাক বলেন: যারা আল্লাহ এবং আল্লাহর রাসূলকে কষ্ট দিবে আল্লাহ তায়ালা তাদেরকে দুনিয়া এবং আখিরাতে অভিসম্পাত করেন। (সূরায়ে আহযাব: ৫৭)
২৬. যে লোক ইনসাফের রাজত্বের মধ্যে জুলুম ও অত্যাচার করে এবং শান্তির দেশের মধ্যে অশান্তি আনয়ন করে বা আত্মীয়-স্বজন ও অন্যান্যদেরকে কষ্ট দেয় আল্লাহ তায়ালা তার উপর লানত করেন। (সুরায়ে মুহাম্মদ: ২২-২৩)
২৭. যে ব্যক্তি আল্লাহর কিতাব এবং আল্লাহর হুকুম ও আইন জানা সত্বেও তা গোপন করে রাখে আল্লাহ এবং অভিসম্পাতকারীগণ তার উপর অভিসম্পাত করে। (সুরায়ে বাকারা:১৫৯)
২৮. যে ব্যক্তি ঈমানদার সতী নারীর উপর মিথ্যা অপবাদ লাগাবে অথচ সে এ বিষয়ে অবগতও নয়, সে দুনিয়া ও আখিরাতে অভিশপ্ত হবে। (সুরায়ে নূর: ২৩)
২৯. যে ব্যক্তি মুসলমান অপেক্ষা কাফেরদেরকে বেশী ভালোবাসবে এবং মুসলমানদের বিরুদ্ধে কাফেরদের সহযোগিতা করবে তার উপর লানত। (তিরমিযী শরীফ: হা: নং)
৩০. রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন: যে ঘুষ খাবে, যে বিনা অপারগতায় ঘুষ দিবে, যে ঘুষের ব্যবস্থা করবে সকলের উপর আল্লাহ তায়ালার লানত। (মুসনাদে আহমাদ হা: নং ৬৫৪০)
৩১. হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন: ছয় প্রকার লোককে আমি লানত করেছি এবং সকল নবীগণ (আ.) লানত করেছেন। অথচ সকল নবীদের দোয়া ও বদ দোয়া কবুল হয়ে থাকে। যথা:
১. যারা বিকৃত করে কোরআনের অর্থ করবে।
২. যারা আল্লাহর সৃষ্টি তাকদীরকে অবিশ্বাস করবে।
৩. যারা আল্লাহর হারাম করা জিনিসকে হালাল করবে।
৪. যারা জোর জবরদস্তী করে নেতৃত্ব ও কর্তৃত্বের শক্তি অর্জন করত: দুষ্ট পাপী লোকদের শ্রেষ্ঠত্ব দান করে নেতৃত্বের আসনে বসাবে।
৫. যার আমার (রূহানী ও জিসমানী) বংশধরদের অবমাননা করবে।
৬. যারা আমার উম্মত হয়ে আমার সুন্নাত (আমার প্রবর্তিত নীতি, আমার প্রদর্শিত পথ এবং আমার প্রকৃত আদর্শ) পরিত্যাগ করে ভিন্ন আদর্শ, ভিন্ন পথ ও ভিন্ন নীতি অনুসরণ করবে। (তিরমিযী: হা: নং ২১৫৪)
৩২. রাসূলুল্লাহ (সা.) তার উপরও লানত করেছেন (অর্থাৎ, আল্লাহ যাতে তাদের সাহায্য ও সহানুভূতি না করেন এ জন্য বদ দোয়া ও অভিশাপ দিয়েছেন) ও যে আল্লাহর ডাক (হাইয়্যা ‘আলাস সলাহ, হাইয়্যা ‘আলাল ফালাহ) (আসো তোমরা জীবনের স্বার্থকতার দিকে, নামাযের জামাতের দিকে) শ্রবণ সত্ত্বেও আদেশ পালন করেনি। অর্থাৎ শরীয়ত সম্মত উজর না থাকার সত্ত্বেও জামাতে উপস্থিত হয়নি।
৩৩. রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন: আল্লাহর লানত তাদের উপর যারা জমিনের সীমানা বা সীমানার খুঁটি পরিবর্তন করে। (মুসলিম: হা: নং ১৯৭৮)

আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে এসব নিকৃষ্ট গুনাহ থেকে সবসময় দূরে থাকার তৌফিক দান করুন। আমিন।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com