বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪৬ অপরাহ্ন

News Headline :
সাম্প্রদায়িক হামলায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ফরিদপুরে মানববন্ধন সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় শতাধিক তালগাছ রোপণ কর্মসূচীর শুভ উদ্বোধন বগুড়ায় সাত দফা দাবিতে বাম জোটের বিক্ষোভ সমাবেশ সন্ধ্যার পর ভাসানচরের সাথে মূল ভূখণ্ডে নৌ-যোগাযোগ বন্ধ থাকবে আধুনিকতার ছোঁয়ায় উদ্বোধন হলো বগুড়ায় আকবরিয়া মিডওয়ে রেস্টুরেন্ট অবসরে যাচ্ছেন ডিএমপি কমিশনার কলাপাড়ায় রাখাইন পাড়ায় পাড়ায় প্রবারণা পূর্ণিমা উৎসব বাংলাদেশে একই সঙ্গে তিন ধর্মের উৎসব উদযাপিত রংপুরে বিপদসীমার ৬০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে পানি নীলফামারতে ভেঙ্গেছে ৩টি বাঁধ ও স্পার প্রায় ৮ সহস্রাধিক পরিবার পানি বন্দী

তিস্তায় পানি বৃদ্ধিতে গঙ্গাচড়ার বাঁধে ভাঙন

রংপুর প্রতিনিধিঃ রংপুরের গঙ্গাচড়ায় হঠাৎ তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় তীব্র স্রোতে কোলকোন্দ ইউনিয়নের বিনবিনাচর এলাকাবাসীর উদ্যোগে স্বেচ্ছাশ্রমে নবনির্মিত বাঁধের প্রায় আধা কিলোমিটার অংশ বিলীন হয়ে গেছে। এতে তলিয়ে গেছে চরের বিভিন্ন ফসল। এছাড়া হুমকিতে রয়েছে কয়েকটি গ্রামের বসতবাড়ি ও রাস্তা। চরের মানুষ গাছ ও বাঁশ দিয়ে ভাঙন ঠেকানোর চেষ্টা করছে।

বিনবিনা এলাকাবাসী জানান, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও এলাকাবাসীর সহযোগিতায় তিস্তার ভাঙন থেকে রক্ষা পেতে স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধটি কিছুদিন আগে নির্মাণ করা হয়েছে। ভাঙন থেকে রক্ষার জন্য এখন বাঁধের কাছে জিওব্যাগ ফেলার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু তার আগেই নবনির্মিত বাঁধটির অর্ধেক বিলীন হয়ে গেছে। ফলে বাদাম, ভুট্টাসহ বিভিন্ন ফসল ও সবজিক্ষেত তলিয়ে গেছে। এছাড়া বাঁধ রক্ষায় সামনে অপর একটি সাপোর্ট বেড়িবাঁধ দেওয়া হয়েছিল, সেটিও ভেঙে গেছে। এতে নদীভাঙন ও পানিতে তলিয়ে যাওয়ার হুমকিতে পড়েছে বিনবিনা, বাঘেরহাট, শংকরদহ, পূর্ব ইচলিসহ কয়েকটি গ্রামের বাড়ি ও এস কে বাজারসংলগ্ন রংপুর-কাকিনা রোডের ব্রিজ এবং চর এলাকার রাস্তাসহ বিভিন্ন শিক্ষা, সামাজিক ও ধর্মীয়প্রতিষ্ঠান।

এলাকাবাসী জানান, কয়েক বছর যাবৎ তিস্তা নদীর মূল স্রোত সরে যাওয়ায় শেখ হাসিনা সেতুর নিচ দিয়ে পানির প্রবাহ যাচ্ছে। ফলে এস কে বাজারসংলগ্ন ব্রিজ দিয়ে এখন তিস্তার পানি প্রবাহিত হচ্ছে। বাঁধটি নির্মাণ ও রক্ষা করা গেলে তিস্তা নদীর মূল স্রোতধারার পানি শেখ হাসিনা সেতু দিয়ে প্রবাহিত হবে। ফলে চরের কয়েকটি গ্রামের মানুষ বন্যার ক্ষতি থেকে রক্ষা পাবে।

কোলকোন্দ ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব আলী রাজু জানান, তিস্তার ক্ষতি থেকে রক্ষার জন্য বর্ষা আসার আগেই এলাকাবাসীকে সঙ্গে নিয়ে ২২ লাখ টাকা ব্যয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধটি নির্মাণ করা হয়। হঠাৎ তিস্তার পানি বৃদ্ধি ও তীব্র স্রোতে বাঁধটি ভেঙে যাওয়ায় চরবাসী আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড-২-এর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সহিদ হোসেন জানান, ভারত থেকে নেমে আসা পানির ঢলে তিস্তা নদীর পানি বিপত্সীমার সামান্য নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বাঁধটি রক্ষায় পরিকল্পিতভাবে কাজ করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com