রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৯:১০ পূর্বাহ্ন

বগুড়ায় যুবনেতার ওপর হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবি

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ায় যুব ইউনিয়ন নেতা সুলতান আহমেদের ওপর হামলার প্রতিবাদে সোমবার বেলা ১১ টার দিকে শহরের সাতমাথায় বাংলাদেশ যুব ইউনিয়ন বগুড়া সদর কমিটি মানববন্ধন করে। মানববন্ধনে হামলকারীদের দ্রুত গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান নেতারা।

যুব নেতা আবু বাশার চঞ্চল এর সভাপতিত্বে  সমাবেশে বক্তারা বলেন, ঈদের দিন রাতে জেলা স্কুলে পুনর্মিলনীর অনুষ্ঠান শেষে যুব নেতা  সুলতান বাড়ি ফেরার পথে কাটনারপাড়া এলাকায় সন্ত্রাসী ও হামলাকারীদের দ্বারা আক্রান্ত হয়ে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম হয়ে শজিমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। 

যুব নেতা সুলতান আহমেদের ওপর এই হামলা পরিকল্পিতভাবে হত্যার উদ্দেশ্যে করা হয়েছিল বলে বক্তারা উল্লেখ করেন।তারা বলেন, এ ঘটনায় সন্ত্রাসী ও হামলাকারীদের নাম উল্লেখ করে সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোন চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও হামলাকারী গ্রেফতার হয়নি।

বক্তারা বলেন, আইনের কার্যক্রম না থাকলে দুষ্কৃতিকারীদের সাহস আরও বেড়ে যাবে। এমন ঘটনা বারবার ঘটতে থাকবে।
এমন উদ্বেগ প্রকাশ করে তারা দ্রুত এজাহারভুক্ত ব্যক্তিদের গ্রেফতারের দাবি জানান।  একই সঙ্গে এই সন্ত্রাসীদের গড ফাদার ও পৃষ্ঠপোষক কারা তাদের চিহ্নিত করতে হবে।  

সমাবেশে সুলতান আহমেদের ওপর হামলাকারীদের গ্রেফতার না হওয়া পর্যন্ত এমন প্রতিবাদ সভা চালিয়ে যাওয়ার হুশিয়ারি দেন নেতারা ।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রবীণ রাজনীতিবিদ মাহফুজুল হক দুলু, সিপিবি জেলা কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জিন্নাতুল ইসলাম,  সাধারণ সম্পাদক মোঃ আমিনুল ফরিদ, কৃষক সমিতি বগুড়া জেলা কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সন্তোষ কুমার পাল, সাধারণ সম্পাদক হাসান আলী শেখ, উদীচী বগুড়া জেলা কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহমুদুস সোবহান মিন্নু, টি ইউ সি বগুড়া জেলা কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফজলুর রহমান, বাংলাদেশ যুব ইউনিয়ন বগুড়া জেলা কমিটির সভাপতি সাজেদুর রহমান ঝিলাম, সাধারণ সম্পাদক শাহ নেওয়াজ কবির খান পাপ্পু,   ছাত্র ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহসভাপতি নাদিম মাহমুদ ও সিপিবি নারী সেলের নেত্রী যুথি রাণী, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন বগুড়া জেলা সংসদের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ মে ঈদের রাতে কাটনার পাড়া এলাকায় দুষ্কৃতিকারীরা পথরোধ করে সুলতান আহমেদ রবিনকে ধরে মারধর করেন। পরে তাকে জোরপূর্বক দত্তবাড়ী এলাকার পানির ট্যাংকি ঘাটে নিয়ে যান।  সেখানে তাকে ইট দিয়ে মাথা, পায়ে গুরুতর আঘাত করে আহত করেন।  

সুলতান আহমেদ বাংলাদেশ যুব ইউনিয়নের বগুড়া সদর কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক। পরে খবর পেয়ে রবিনের পরিবার ও সংগঠনের লোকজন গিয়ে তাকে উদ্ধার করেন। সেখান থেকে প্রথমে মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। এখনও সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।  পরে এ ঘটনায় ১৫ মে সদর থানায় মামলা করা হয়। 

হামলার পর আহত সুলতান আহম্মেদ রবিন বলেন, তারা পূর্বপরিকল্পিতভাবে আমাকে অপহরণ করে এবং আমাকে মারধর করেন। এজাহারভুক্ত মিল্টনের নেতৃত্বে ওরা আমার ওপর হামলা চালায়।  

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com