বৃহস্পতিবার, ২৪ Jun ২০২১, ১১:৫২ অপরাহ্ন

ফের আসছে রোহিঙ্গারা, জোরদার টহলে বিজিবি

যমুনা নিউজ বিডিঃ নতুন করে কক্সবাজারের সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের চেষ্টা বেড়েছে। তবে কঠোর অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিজিবি)। জোরদার করা হয়েছে সীমান্ত টহল।

জানা গেছে, চলতি বছরের মার্চ-এপ্রিলে অনুপ্রবেশের চেষ্টাকালে ১০৪ জন রোহিঙ্গাকে ফেরত পাঠানো হয়। এর আগের দুই মাসে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করেছিল ২৯ রোহিঙ্গা। এছাড়া কক্সবাজার সীমান্ত দিয়ে মিয়ানমার থেকে ৩১ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করে কক্সবাজারের শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নিয়েছে বলে স্বীকার করেছে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন)।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, চলতি বছরের প্রথম দুই মাসের তুলনায় পরবর্তী দুই মাসে মিয়ানমারের নাগরিকদের বাংলাদেশে প্রবেশের চেষ্টা বেড়েছে তিনগুণের বেশি।

এ তথ্য নিশ্চিত করে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিজিবি) কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ওই সীমান্তে গত ২১ এপ্রিল থেকে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে টহল জোরদার করেছেন তারা।

বিজিবি পরিচালক (অপারেশন্স) লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফয়জুর রহমান বলেন, মিয়ানমারের নাগরিকদের অনুপ্রবেশের চেষ্টা যেমন বেড়েছে, আমাদের প্রতিহত করার চেষ্টাও বেড়েছে। অবৈধ অনুপ্রবেশ ঠেকাতেই আমরা মিয়ানমার সীমান্তে টহল দ্বিগুণ করেছি। ওই সীমান্তে আমাদের নজরদারি সার্বক্ষণিকই ছিল। বিজিবি সদস্যদের টহল বৃদ্ধিতে এটা আরো জোরদার হয়েছে।

বিজিবি সদর দফতরের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, জানুয়ারিতে ১৬ ও ফেব্রুয়ারিতে ১৩, অর্থাৎ প্রথম দুই মাসে মাত্র ২৯ জন মিয়ানমারের নাগরিক অনুপ্রবেশের চেষ্টা করেছিল। পরবর্তীতে শুধু মার্চেই অনুপ্রবেশের চেষ্টা করে ৫৬ জন।

এছাড়া এপ্রিল মাসে (২৯ এপ্রিল পর্যন্ত) ৪৮ জনকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে বিজিবির একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এ হিসাবে চলতি বছরে মোট ১৩৩ জন মিয়ানমারের নাগরিককে পুশব্যাক করেছে বা ফেরত পাঠিয়েছে বিজিবি। যার মধ্যে শুধু মার্চ-এপ্রিলেই ফেরত পাঠানো হয়েছে ১০৪ জনকে।

সর্বশেষ বুধবার সাত অনুপ্রবেশকারীকে ফেরত পাঠিয়েছে সীমান্তরক্ষী বাহিনীটির টেকনাফ ব্যাটালিয়ন। নাফ নদী দিয়ে নৌকায় করে আসা ওই সাত জনের সবাই ছিল পুরুষ।

একাধিকবার চেষ্টা করেও অনুপ্রবেশ প্রসঙ্গে টেকনাফ বিজিবির (দুই নম্বর ব্যাটালিয়ন) কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে কক্সবাজার বিজিবির (৩৪ নম্বর ব্যাটালিয়ন) অধিনায়ক লে. কর্নেল আলী হায়দার আজাদ জানান, সীমান্তে বিজিবি কঠোর অবস্থানে রয়েছে। নতুন করে কাউকে ঢুকতে দেওয়া হবে না। যদিও জানুয়ারি থেকে গত ২১ এপ্রিল পর্যন্ত টেকনাফ ব্যাটালিয়ন ৮০ এবং কক্সবাজার ব্যাটালিয়ন ২০ জনকে ফেরত পাঠিয়েছে বলে জানিয়েছে বিজিবির সদর দফতর।

অনুপ্রবেশ বাড়ার নেপথ্যে

বিজিবি কর্মকর্তা ফয়জুর বলেন, মিয়ানমার সম্প্রতি জেলে আটকে থাকা অনেক নাগরিককে মুক্তি দিয়েছে। তাদের অনেকের আত্মীয়-স্বজন বাংলাদেশে রয়েছে। যে কারণে তারা এদিকে আসার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে টেকনাফের লেদার নতুন শরণার্থী শিবিরের রোহিঙ্গা নেতা মোস্তফা কামাল বলেন, কারামুক্তদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন যাদের পরিবার আগে থেকেই বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। যে কারণে তারা এখানে আসতে চাচ্ছে। এছাড়া কিছু অসুস্থ রোহিঙ্গা নারীও এখানে চিকিৎসা নিতে আসছে শুনেছি। কারণ, সেখানে (রাখাইনে) তাদের চিকিৎসার কোনও ব্যবস্থা নেই।

প্রসঙ্গত, নববর্ষ উপলক্ষে মিয়ানমারের সামরিক সরকার ১৩৭ জন বিদেশিসহ মোট ২৩ হাজার ৪৭ বন্দিকে সাধারণ ক্ষমার আওতায় মুক্তি দিয়েছে বলে দ্য গার্ডিয়ান, ভয়েস অব আমেরিকাসহ একাধিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে গত ১৭ এপ্রিল খবর প্রকাশিত হয়েছিল।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com