মঙ্গলবার, ১৫ Jun ২০২১, ০৭:০৩ অপরাহ্ন

দেশের বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

যমুনা নিউজ বিডি ডেস্কঃ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সংঘর্ষের খবর পাওয়া গেছে। এ সঘের্ষের ঘটনায় অনেকেই আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

আজ মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) দেশব্যাপী জেলাগুলোতে বিএনপির পূর্বঘোষিত বিক্ষোভ কর্মসূচি চলাকালে এসব সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

নওগাঁয় পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে পুলিশসহ অন্তত ৫০ জন আহত হন। আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে শহরের কেডির মোড় এলাকায় বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে হেফাজত কর্মী নিহতের ঘটনার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে দুপুর ১২টার দিকে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল বের করার চেষ্টা করেন নেতা-কর্মীরা। এ সময় উপস্থিত পুলিশ সদস্যরা তাদের বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেন। এ সময় পুলিশ ও বিএনপির নেতা-কর্মীদের মধ্যে ধস্তাধস্তি শুরু হয়। একপর্যায়ে পুলিশ লাঠিপেটা শুরু করলে বিএনপির নেতা-কর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যান।

এ ঘটনার দুই থেকে তিন মিনিট পর বিএনপির নেতা-কর্মীরা আবারও জড়ো হয়ে দলীয় কার্যালয়ের পূর্ব দিক থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন। পরিস্থিতি নিযন্ত্রণে নিতে পুলিশ কাঁদানে গ্যাসের শেল, রাবার বুলেট ও ফাঁকা গুলি ছোড়ে। পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতা-কর্মীদের অন্তত ২০ মিনিট ধরে সংঘর্ষ চলে। এতে ব্রিজের মোড়–কলেজ মোড় সড়ক ও কেডির মোড়-ব্রিজের সড়ক দিয়ে গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে নওগাঁ সদর থানা ও পুলিশ লাইনস থেকে অতিরিক্ত পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হলে বিএনপির নেতা-কর্মীরা রাস্তা ছেড়ে দেন।

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক হাফিজুর রহমান বলেন, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আমরা দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করার চেষ্টা করি। কিন্তু পুলিশ কোনো কারণ ছাড়াই বিএনপির নেতা-কর্মীদের লাঠিপেটা করতে শুরু করে। বিএনপির নেতা-কর্মীরা কেডির মোড় এলাকা থেকে দলীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিলে সেখানে পুলিশ কাঁদানে গ্যাসের শেল, রাবার বুলেট ও গুলি ছোড়ে। এতে অন্তত ৫০ জন নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন। পুলিশের গুলিতে আহত বিএনপির কর্মী মিলি আখতার ও ছাত্রনেতা আজিজুলকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। অন্যদের নওগাঁ সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রকিবুল আক্তার বলেন, অনুমতি ছাড়াই বিএনপির নেতা-কর্মীরা মিছিল বের করার চেষ্টা করেন। ব্যস্ততম সড়ক দিয়ে মিছিল নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে উপস্থিত সদস্যরা তাদের বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেন। এ সময় বিএনপির কর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন। পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশও কাঁদানে গ্যাসের শেল ও রাবার বুলেট ছোড়ে। বিএনপির কর্মীদের হামলায় ছয় থেকে সাত পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় মামলা করার প্রস্তুতি চলছে। দোষী ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার করা হবে।

টাংগাইল: টাংগাইল জেলা বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল বের করলে তা পুলিশি বাধায় পণ্ড যায়। মিছিলটি জেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয় থেকে বের হয়ে শহরের টাংগাইল প্রেসক্লাবের সামনে এলে পুলিশ তাতে বাধা প্রদান করেন। এ সময় পুলিশের সাথে নেতাকর্মীদের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। পরে অতিরিক্ত পুলিশ এসে তাদের ধাওয়া করলে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

নাটোর: এদিকে দেশের বিভিন্ন স্থানে নেতাকর্মীদের সঙ্গে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সংঘর্ষে নিহত ও আহত হওয়ার ঘটনার প্রতিবাদে নাটোরে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ পুলিশের বাধায় পণ্ড হয়ে গেছে।

মঙ্গলবার সকালে সমাবেশে যোগ দিতে নেতাকর্মীরা আলাইপুরের কার্যালয়ের সামনে জড়ো হতে থাকেন। সেখান থেকে পুলিশ সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হোসেন ও ছাত্রদল সভাপতি কামরুলকে আটক করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টাকালে নেতাকর্মীরা তাদের ছিনিয়ে নেন। এ সময় নেতাকর্মীদের ধাওয়া দিয়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয় পুলিশ। ফলে পণ্ড হয়ে যায় দলটির কেন্দ্র ঘোষিত বিক্ষোভ কর্মসূচি।

এছাড়াও কিশোরগঞ্জে স্টেশন রোডে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে, পুলিশ ফাঁকা গুলি ও টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে।

কুড়িগ্রাম: মহান স্বাধীনতা দিবসে শান্তিপূর্ণ সমাবেশে পুলিশ ও ছাত্রলীগের হামলা এবং গুলি করে সাধারণ নাগরিক হত্যার প্রতিবাদে কুড়িগ্রামে জেলা বিএনপির আয়োজনে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভে বাঁধা দিয়েছে পুলিশ পরে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে মঙ্গলবার দুপুরে মোক্তার পাড়াস্থ জেলা বিএনপি কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করলে দাদামোড়ে পুলিশ বাঁধা দেয়।পরে দলীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
এ সময় বক্তারা বলেন সারাদেশে সরকার যেভাবে পুলিশকে ব্যবহার করছে এবং দলের লোকজন সাধারণ মানুষের উপর অত্যাচার নির্যাতন করছে তাতে স্বাধীনতার মূল চেতনা বিনষ্ট হবে।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com