বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৫:২২ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশে গরুর মাংসের দাম বাড়ায় খুশি ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

বাংলাদেশে গরুর মাংসের দাম বাড়ায় খুশি হয়েছেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। তার দাবি, এটা ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে গরু পাচার রোধে বিএসএফের সাফল্যের প্রমাণ।

তিনি বলেন, ‘সেদিন বাংলাদেশের হাইকমিশনার আমার সঙ্গে দেখা করতে এলে গরু পাচার নিয়ে আমরা কথা বলছিলাম । তখন রাষ্ট্রদূত জানালেন, সীমান্তে এই কড়াকড়ি শুরু হওয়ার পর সে দেশে গরুর মাংসের দাম না কি ৫০ শতাংশ বেড়ে গেছে। শুনে আমি খুশি হয়েছি।’

রাষ্ট্রীয় গোধন মহাসঙ্ঘ নামের একটি সংগঠনের  সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।

ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি তাদের নির্বাচনী ইশতেহারে গোরুকে গোধন বলে বর্ণনা করে থাকে। বিজেপি-শাসিত রাজ্যগুলোতেও গোমাংস নিষিদ্ধ করার জন্য নানা উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং জানান, এই পদে আসার এক মাসের মধ্যেই তিনি ঠিক করে ফেলেছিলেন যে কোনওভাবে হোক বাংলাদেশে গরু পাচার রুখবেন।

তিনি বলেন, ‘প্রথমবার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত সফরে গিয়েই আমি জওয়ানদের বলেছিলাম আমার এই সফর তখনই সার্থক হবে যখন সীমান্ত পেরিয়ে আর একটি গরুও বাংলাদেশে যেতে পারবে না। সেই কাজে তারা দারুণ সফল হয়েছেন।’

মন্ত্রী অবশ্য সেই সঙ্গেই ব্যাখ্যা দিয়েছেন, বাংলাদেশের মানুষের গরুর মাংস কিনতে কষ্ট হচ্ছে বলে তিনি খুশি নন, তিনি খুশি ভারত থেকে গরু পাচার কমছে বলে।

গোসম্পদ রক্ষা করতে তাদের সরকারের অঙ্গীকারের কথা পুনর্ব্যক্ত করে রাজনাথ সিং আরও বলেন, ভারতে যে কোন জনদরদী সরকারের উচিৎ সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দুদের ভাবাবেগের মর্যাদা দিয়ে গোহত্যা নিরুৎসাহিত করা। তার এই যুক্তি প্রতিষ্ঠা করতে রাজনাথ সিং ইতিহাস থেকে মুঘল ও ব্রিটিশ শাসকদের দৃষ্টান্তও টেনে আনেন।

তিনি বলেন, ‘মুঘল বাদশাহরা ভারতে শত শত বছর রাজত্ব করতে পেরেছিলেন কারণ মুসলমান হওয়া সত্ত্বেও তারা কখনও গোহত্যায় উৎসাহ দেননি… । মুঘল বাদশাহরা এই বাস্তবতাটা জানতেন অবাধে গোহত্যার অনুমতি দিলে বা গোমাংস খেতে দিলে প্রজাদের মন পাওয়া যাবে না – রাজত্বও বেশিদিন টিকবে না। এমনকি বাবরও তার উইলে সে কথা লিখে গেছেন। কিন্তু ইংরেজ শাসকরা আসার পরই ভারতের প্রাচীন সংস্কৃতি ও পরম্পরাকে তারা উপেক্ষা করা শুরু করলেন।’

ভারতীয় ইতিহাসের বিশেষজ্ঞ ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক কিংশুক চ্যাটার্জি অবশ্য মনে করেন, হিন্দুদের সংবেদনশীলতা নিয়ে মুঘল ও ব্রিটিশ উভয়েই সচেতন ছিলেন।

তিনি বলেন, ‘আকবরের নির্দেশ ছিল জবাইখানাগুলো যেন শহরের পরিধির বাইরে হয়। অন্য মুঘল বাদশাহরাও সেই রীতি বজায় রাখায় কোনও সমস্যা হয়নি। কিন্তু ব্রিটিশ আমলে শহরের সীমা বাড়তে বাড়তে যখন সেটাকে ছুঁয়ে ফেলল, তখনই গন্ডগোলের শুরু। ব্রিটিশ আমলে ১৮৯২-৯৩ সালে প্রথম যে বড় দাঙ্গা হয়েছিল, তার পেছনেও ছিল এই কারণ।’

এখনকার বিজেপি আমলে সরকার অবশ্য এই জবাইখানাগুলোই পুরোপুরি বিলোপ করার কথা বলছে – যদিও তারা সে ব্যাপারে আইন প্রণয়নের ভার ছেড়ে দিচ্ছে রাজ্য সরকারগুলোর ওপরেই। এমনকি, দুধ দেওয়া বন্ধ করার পর ভারতের গরুর ঠিকানা যাতে বাংলাদেশ বা জবাইখানা না-হয়, সেজন্য নিখরচায় তাদের পশুখাদ্য দেওয়ার প্রস্তাবও সরকারের বিবেচনায় আছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

Please Share This Post in Your Social Media


© All rights reserved ©  jamunanewsbd.com