Breaking News
Home / সারাদেশ / সাভারে পাঁচ ঘণ্টা ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ-বিক্ষোভ

সাভারে পাঁচ ঘণ্টা ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ-বিক্ষোভ

যমুনা নিউজ বিডি ঃ সাভারে একটি তৈরি পোশাক কারখানার ভেতরে অসুস্থ হয়ে এক শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনায় প্রায় পাঁচ ঘণ্টা ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে নিহতের সহকর্মী ও কারখানার অন্যান্য শ্রমিকরা। বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা এ সময় কারখানার সামনে পার্কিং করে রাখা বেশ কয়েকটি গাড়ি ও কারখানার প্রধান ফটক ভাঙচুর করে। আজ শনিবার দুপুরে সাভার পৌর এলাকার উলাইল মহল্লায় অবস্থিত প্রাইড গ্রুপের ফ্যাশন নিট কারখানায় এ শ্রমিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

নিহত শ্রমিকের নাম মো. রাশেদুল ইসলাম (২৭)। তিনি কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর থানার বাসিন্দা। নিহত রাশেদুল পৌর এলাকার কাতলাপুর মহল্লায় পরিবার নিয়ে ভাড়া থেকে ওই কারখানায় সুইং অপারেটর হিসেবে কাজ করতেন। তার তিন বছরের একটি সন্তান রয়েছে বলে জানিয়েছে তাঁর সহকর্মীরা।

নিহতের সহকর্মী মাজেদা বেগম জানান, রাশেদুল দুপুরের খাবার খেয়ে মেশিনে এসে কাজ করতে বসলে কিছুক্ষণ পরই তার বুক ও মাথা ব্যথাসহ বমি হতে থাকে। এ সময় তাকে কারখানার নিজস্ব চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে গেলে চিকিৎসক একটি ব্যথার ওষুধ সেবন করতে দেন। কিন্তু ওই ওষুধটি খাওয়ার পরও তার শরীর ঠিক না হওয়ায় তিনি হাসপাতালে যাওয়ার জন্য কারখানার পিএম আব্দুল্লাহ আল মামুনের কাছে ছুটি চান। পর্যায়ক্রমে ফ্লোর ইনচার্জ জুলহাস এবং এপিএম রুবেলসহ সবার কাছেই ছুটি চেয়ে ব্যর্থ হন রাশেদুল। এর কিছুক্ষণ পর তিনি অচেতন হয়ে পড়েন। এ ঘটনায় কারখানা কর্তৃপক্ষ তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাশেদুলকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

কারখানার শ্রমিক ওসমান গণি বলেন, রাশেদুল বার বার ছুটি চাওয়ার পরও পিএম তাকে ছুটি দেয়নি। একপর্যায়ে ছুটি না পেয়ে কারখানায় ভেতরেই তার মৃত্যু হয়। মারা যাওয়ার পর তাকে বাইরের হাসপাতালে নেয়া হয়। আমেনা বেগম নামে অপর একজন শ্রমিক জানান, কারখানার ৫ তলায় কাজ করতেন রাশেদুল। মৃত্যুর বিষয়টি সকল শ্রমিকদের মাঝে ছড়িয়ে পড়লে শ্রমিকরা বেলা ৩টা থেকে কাজ বন্ধ রেখে বিক্ষোভ করতে থাকে। এ সময় বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা দোষীদের বিচারের দাবিতে বিকেল সোয়া ৪টার দিকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে গিয়ে উভয়মুখি যান চলাচল বন্ধ করে দেয়।

এ সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল সাভার উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে স্থানীয় একটি সাপ্তাহিক পত্রিকার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে মহাসড়কের উল্টা পথে আসেন এবং ফিরে যাওয়ার সময় গাবতলীর পথে না গিয়ে আশুলিয়ার পথে যান।

খবর পেয়ে আগে থেকেই সাভার মডেল থানা পুলিশ ও শিল্প পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে শ্রমিকদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। বিচারের আশ্বাস দিয়ে প্রাথমিকভাবে বিকেল ৪টার দিকে কিছুক্ষণের জন্য শ্রমিকদেরকে রাস্তা থেকে সরিয়ে দেয় পুলিশ। কিন্তু শ্রমিক-পুলিশ বৈঠক চলার পর বিষয়টি সমাধান না হওয়ায় ফের বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা আবারও মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। পরে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা গিয়ে শ্রমিকদের সঙ্গে আলাপ করে ফের বিচারের আশ্বাস দিয়েও ব্যর্থ হয়।

বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের অভিযোগ, কেন কারখানা কর্তৃপক্ষ অসুস্থ হওয়ার পরও রাশেদুলকে ছুটি দিল না। এ ঘটনায় দায়ীদেরকে বরখাস্তসহ বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান তারা। এ ছাড়া নিহতের তিন বছরের একটি বাচ্চা থাকায় তার ভবিষ্যতের জন্য নগদ ১০ লাখ টাকা এবং রাশেদুলের যাবতীয় পাওনা পরিশোধেরও দাবি জানায়।

শ্রমিকদের দাবির প্রেক্ষিতে কারখানা মালিকের ছেলে নাহিদ হাসান ঘটনাস্থলে এসে প্রাথমিকভাবে দুই লাখ টাকা প্রদানের কথা জানান। এ ঘটনায় শ্রমিকরা উত্তেজিত হয়ে তার ওপর চড়াও হয় এবং কারখানার সামনে রাখা বেশ কয়েকটি গাড়ি ও কারখানার মূল ফটকে ব্যাপক ভাঙচুর করে। এ সময় পুলিশ বাধা দিলে শ্রমিকদের সাথে পুলিশের ধস্তাধস্তি হয়। এক পর্যায়ে শ্রমিকদের উপর পুলিশ লাঠিচার্জ করার উদ্যোগ নিলে শ্রমিকরা রাস্তায় শুয়ে পড়েন। এ সময় রাত সাড়ে ৮টার দিকে মালিকপক্ষ নিহত ওই শ্রমিকের পরিবারকে আইন অনুয়ায়ী ক্ষতিপূরণ দেওয়ার আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা রাত পৌনে ৯টার দিকে মহাসড়ক অবরোধ ছেড়ে স্থান ত্যাগ করে।

শিল্প পুলিশের ইন্সপেক্টর মো. হারুন উর রশিদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, শ্রমিকরা প্রায় পাঁচ ঘণ্টা মহাসড়ক অবরোধ করে তাণ্ডব চালিয়েছে। পরবর্তীতে যেকোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সর্বাত্মক প্রস্তুতি রয়েছে পুলিশের। তবে বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। তবে কারখানার কোনো কর্মকর্তা সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপ করতে সম্মত হননি।

Check Also

শাজাহানপুর উপজেলা চেয়ারম্যান পদে লড়তে চান বাশার

আগামী মার্চ মাসে আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে শাজাহানপুর উপজেলা থেকে চেয়ারম্যান পদে লড়তে আগ্রহী উপজেলা বিএনপি’র …

Powered by themekiller.com