Home / সারাদেশ / বগুড়া / শেরপুরে রাস্তার বেহাল দশায় ভোগান্তিতে হাজারও মানুষ

শেরপুরে রাস্তার বেহাল দশায় ভোগান্তিতে হাজারও মানুষ

যমুনা নিউজ বিডিঃ  দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় বগুড়ার শেরপুর উপজেলার শাহবন্দেগী ইউনিয়নের শেরুয়া টু ধুনটমোড় বাইপাস সড়ক ও শেরুয়া বটতলা টু ভবানীপুর সড়কে অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়ে সড়কটির এখন বেহাল দশা। এতে এ সড়ক দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে উপজেলার শাহবন্দেগী, মির্জাপুর, ভবানীপুর ইউনিয়নের ইউনিয়নের দেড় হাজার মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। দীর্ঘদিন ধরে এলাকাবাসী সড়কটি মেরামতের দাবি জানালেও তা পূরণ হয়নি।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার ১০ নং শাহবন্দেগী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের শেরুয়া বটতলা বাজার থেকে শুরু করে ১ কিলোমিটার পাকা রাস্তা ও শেরুয়া বটতলা থেকে ফরেস্ট রোড পৌর মেয়র (আব্দুস সাত্তারের) বাড়ী হয়ে ধুনটমোড় তালতলা পৌঁছানোর সড়কের শতাধিক স্থানে পিচের ঢালাই উঠে বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টিতেই এসব গর্তে পানি জমে। এতে সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় প্রায়ই যানবাহনের চাকা সড়কে আটকে যাচ্ছে। এতে যাত্রীরাও ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

শহরের সঙ্গে সংযোগ স্থাপনে এবং চলাচলে এই সড়ক দুটি কয়েকটি গ্রামের দেড় হাজার মানুষের  একমাত্র সম্বল। গত ২ বছরেরও  অধিক সময় ধরে সংস্কার না হওয়ায় কয়েকটি স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। দূর থেকে দেখলে মনে হবে এটি রাস্তা নয়, যেন একটি মরা খাল।   তাছাড়া. পানি নিষ্কাশনের কোন সু-ব্যাবস্থা না থাকায় সামান্য বৃষ্টিতেই কাঁদামাটিতে একাকার হয়ে যায় সড়কটি।  এর ফলে দীর্ঘদিন যাবৎ নানা ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে এ সড়কে চলাচলকারী মৎস্য খামারী, বাছাই মিল, চাতাল ব্যবসায়ীসহ শিক্ষার্থী ও এলাকার বাসিন্দাদের।

তাছাড়া এই সড়কটি দিয়েই প্রতিদিন শতশত কৃষক তার পণ্য নিয়ে হাট বাজারে যান। এই সড়ক লাগোয়া প্রায় ৩০ থেকে ৪০টি ছোট বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায়ীরাও তাদের মালামাল আনা নেওয়াতে ঝক্কি ঝামেলায় পড়ছে।  সিএনজি চালক মাজেদ, অটো চালক সোহাগসহ অটোভ্যান ও ভটভটি চালকরা এ প্রতিবেদককে বলেন, আমরা হাইওয়ে দিয়ে সিএনজি চালাতে পারিনা। যারফলে এই বাইপাস দিয়ে ভবানীপুর পর্যন্ত চলতে হয়। কিন্তু এই সড়কের বেহাল অবস্থায় কয়েক স্থানে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে গাড়ী পার করতে হয়। যা আমাদের জন্য খুবই কষ্টকর। অনেক সময় যানবাহন উল্টে যায়।

অন্যদিকে, এই দেড় হাজারের অধিক মানুষের স্বাস্থ্যসেবার প্রয়োজন মেটাতেও উপজেলা স্বাস্থ্য কম্প্লেক্সে যেতে এই সড়ক দুটির উপরই ভরসা করতে হয়। সড়কের বেহাল দশায় হঠাৎ কেউ অসুস্থ হলে উপজেলা স্বাস্থ্য কম্প্লেক্স বা প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে যেতেও পড়তে হয় মহাবিপদে। মেরামতের অভাবে চলাচলের অযোগ্য এই সড়ক দিয়েই বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার হাজার হাজার মানুষকে প্রতিনিয়ত চলাচল করতে হচ্ছে। চাতাল ব্যবসায়ী আমজাদ বলেন, যানবাহন তো দূরের কথা! এ সড়কে এখন পায়ে হেঁটে চলায় দুস্কর। পথচারীদের এই চরম ভোগান্তির শেষ কোথায় কে জানে? আমরা সরকারের বিভিন্ন দফতরে বহুবার অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু কোনো প্রতিকার পাইনি। এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, প্রতিনিয়তই এই সড়কটি ব্যবহার করে উপজেলার বারোদুয়ারী হাট এবং রেজিস্ট্রি অফিসসহ জেলাতে যাতায়াত করতেও সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা ব্যবহার করে এই সংযোগ সড়কদুটি।

অসুস্থ ব্যক্তিরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এই সড়ক দিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন হাসপাতালে যান। এরপরও কর্তৃপক্ষ সড়কটি সংস্কারের উদ্যোগ কেন নিচ্ছে না এটা বোধগম্য হয়না। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ১০নং শাহবন্দেগী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড সদস্য ছানোয়ার হোসেন বলেন, সড়কটি দ্রুত মেরামতের দাবিতে এ নিয়ে গত জুন ২০১৯ সালে ইউএনও বরাবর লিখিত অভিযোগও দায়ের করা হয়েছিল। এ নিয়ে বিভিন্ন গনমাধ্যমে ২ জুন ২০১৯ সালে “বগুড়ার শেরপুরের শেরুয়া এলাকায় পানি নিষ্কাষনে ড্রেন নির্মাণের দাবী এলাকাবাসীর” শিরোনামে সংবাদও প্রকাশ হয়েছে এবং বিভিন্ন দপ্তরে বলা হলেও তা আজ পর্যন্ত সংস্কার করা হয়নি।

জানতে চাইলে ১০নং শাহবন্দেগী ইউপি চেয়ারম্যান আল আমিন সরকার জানান, ওইসব এলাকায় সড়ক সংস্কারের আগে ড্রেনেজ ব্যবস্থা করতে হবে। ড্রেনেজ ব্যবস্থা তৈরী করতে বড় অর্থের প্রয়োজন।

জনভোগান্তি সম্পর্কে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. লিয়াকত আলী সেখ বলেন, সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানের দেওয়া প্রকল্পের মাধ্যমে শীঘ্রই ভূক্তভোগীদের সমস্যা সমাধান করা হবে।

Check Also

বগুড়ার ১৫নম্বর ওয়ার্ডে গফুরের নির্বাচনী মতবিনিময় সভা

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ আসন্ন আগামী বগুড়া পৌরসভার নির্বাচন উপলক্ষে ১৫নম্বর ওয়ার্ডে নির্বাচনী মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। …

error: Content is protected !!
%d bloggers like this:

Powered by themekiller.com