Home / সারাদেশ / বগুড়া / শিবগঞ্জ সরকারি জলমহল কে কেন্দ্র করে ২ গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে আহত ১০ নিহত ১

শিবগঞ্জ সরকারি জলমহল কে কেন্দ্র করে ২ গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে আহত ১০ নিহত ১

শিবগঞ্জ (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়ার শিবগঞ্জ তিয়াইল মৌজার সরকারি
জলমহল কে কেন্দ্র করে ২ গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ আহত ১০ নিহত ১
এলাকায় উত্তেজনা।
জানা যায়, শিবগঞ্জ উপজেলার আটমূল ইউনিয়নের তিয়াইল গ্রামের আঃ
রশিদ এর পুত্র অত্র ইউনিয়নের ইউপি সদস্য ও ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের
সভাপতি মোঃ রায়হান আলী, তিয়াইল উত্তরপাড়া মৎস্যজীবী সমবায়
সমিতির মাধ্যমে তিয়াইল মৌজার ১ একর ৮ শতক জলমহল সরকারি বিধি
মোতাবেক ডেকে নিয়ে মৎস্য চাষ করে আসছে। জলমহলটি নিয়ে উক্ত
গ্রামে ২ গ্রুপের মধ্যে বিরোধী চলে আসার একহ পর্যায়ে গত ২৮
শে নভেম্বর সকাল অনুমান ৮টার দিকে তফসিল বর্ণিত জলমহল নিয়ে
একই গ্রামের আঃ সালাম, আঃ জোব্বার, আঃ রাকিব গং গ্রামের
একটি দোকানের সামনে দেশী অগ্নেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ১৫/২০ জনের
সংঘবদ্ধ দল নিয়ে ইউপি সদস্যগংদের উপর অতর্কিত ভাবে হামলা চালিয়ে
এলোপাথারী ভাবে মারপিট শুরু করে। মারপিটের ঘটনায় রেজ্জাকুল
ইসলামের চিৎকার দিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পরে। ইউপি সদস্য তাকে উদ্ধার
করতে আসলে তার উপর পাল্টা হামলা চালায়। এ সময় উভয় পক্ষের ১০জন আহত
হয়। আহতরা হলেন তিয়াইল গ্রামের ইউপি সদস্য ও আওয়ামীলীগ নেতা
রায়হান আলী (৪০) ও তার ফুফাতো ভাই রিজ্জাকুল ইসলাম, আফজাল
হোসেন (৩০), বুলু মিয়া (৫৫), রাজু মিয়া (২২), শাহেরা বেগম (৪৫),
মোছাঃ হাছনা বেগম (৫৫), মজিদা বেগম (৬০), আকতার শিবগঞ্জ
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এদিকে রিজ্জাকুল ইসলামের অবস্থা
আশংকা জনক হওয়ায় বগুড়া শজিমেকে এর কর্তব্যরত ডাক্তার উন্নত
চিকিৎসার জন্য রিজ্জাকুল ইসলাম কে ঢাকায় প্রেরণ করেন। ঢাকায়
একটি হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে থাকার গত ২৯ নভেম্বর তাঁর মৃত্যু
হয় বলে তার পরিবার সূত্রে জানা গেছে। গতকাল সমবার জানাজা নামাজ
শেষে তিয়াইল গ্রামে তার পারিবারিক কবর স্থানে তাকে দাফন করা হয়।
বিষয়টি নিয়ে আওয়ামীলীগ নেতা রায়হান আলীর সাথে কথা বললে তিনি
বলেন আমার মাথায় প্রচন্ড আঘাত লেগেছে। আপনার সাথে কথা বলতে
কষ্ট হচ্ছ্ধেসঢ়; তাও বলছি সরকারি বিধি মোতাবেক জলমহল টি ডেকে
নিয়ে সমিতির লোকজন সুন্দর ভাবে মাছ চাষ করে আসছে। দীর্ঘদিন
থেকে জলমহলটি নিয়ে ছালাম গংদের সাথে মত বিরোধ চলে আসছে।
কিন্তু তারা হঠাৎ করে আমাদের উপর হামলা চালাবে আমি কখন ভাবতে
পারিনি। ওদের হামলায় আমাদের ৭জন লোক গুরুতর আহত হয়েছে। হামলায়

আমার ফুফাতো ভাই রিজ্জাকুল ইসলাম মারা গেল। একে একে আমরা
সবাই মারা যাব আমাদেরকে গুরুতর ভাবে আহত করা হয়েছে। বিষয়টি
নিয়ে থানায় মামলা করেছি। আমি প্রশাসনের নিকট সুষ্ঠু তদন্তের
দাবী জানাচ্ছি। এব্যাপারে সালামগংদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা
করা হলে তাদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এ ঘটনায়
শিবগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ এসএম বদিউজ্জামান বলেন, এ
সংক্রান্তে মামলা নেওয়া হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Check Also

শিবগঞ্জে জনশুমারী ও গৃহগননা-২০২১ প্রকল্পের প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের উদ্বোধন

শিবগঞ্জ (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়া শিবগঞ্জে জনশুমারী ও গৃহগণনা – ২০২১ প্রকল্পের প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!
%d bloggers like this:

Powered by themekiller.com