Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / যৌথভাবে সমরাস্ত্র তৈরিতে যাচ্ছে ভারত-ইসরাঈল
180326-N-UK333-189 PACIFIC OCEAN (March 26, 2008) An unarmed Trident II D5 missile launches from the Ohio-class ballistic missile submarine USS Nebraska (SSBN 739) off the coast of California. The test launch was part of the U.S. Navy Strategic Systems Program’s demonstration and shakedown operation certification process. The successful launch certified the readiness of an SSBN crew and the operational performance of the submarine’s strategic weapons system before returning to operational availability. (U.S. Navy photo by Mass Communication Specialist 1st Class Ronald Gutridge/Released)

যৌথভাবে সমরাস্ত্র তৈরিতে যাচ্ছে ভারত-ইসরাঈল

যমুনা নিউজ বিডিঃ ইসরাঈলের সঙ্গে যৌথভাবে অত্যাধুনিক সমরাস্ত্র তৈরি করতে যাচ্ছে ভারত। ইতোমধ্যে দুদেশ অস্ত্র এবং সামরিক সরঞ্জাম তৈরিতে একটি সাব-ওয়ার্কিং কমিটি করেছে । খবর আনন্দবাজার।

সাব-ওয়ার্কিং কমিটিতে রয়েছেন দুই দেশের প্রতিরক্ষা সচিব এবং সমরাস্ত্র নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিরা। দ্বিপাক্ষিক চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি উৎপাদিত অস্ত্র এবং সামরিক সরঞ্জাম অন্য দেশে বিক্রির লক্ষ্য রয়েছে তাদের।

আনন্দবাজার পত্রিকা বলছে, ভারতের প্রতিরক্ষা ও গবেষণা সংস্থা (ডিআরডিও) এবং ইসরায়েলের অ্যারোস্পেস ইন্ডাস্ট্রিজের যৌথ উদ্যোগে ভূমি থেকে উৎক্ষেপণযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র ‘বারাক’-এর তিনটি সংস্করণ তৈরির কাজ চলছে। এটি পেতে ভারতীয় সেনাবাহিনী ১৬ হাজার ৮৩০ কোটি, বিমানবাহিনী ১০ হাজার ৭৬ কোটি এবং নৌবাহিনী ২ হাজার ৯০৬ কোটি রুপি বরাদ্দ দিয়েছে।

হেরন ড্রোন ব্যবহারের মাধ্যমে ক্ষেপণাস্ত্রের নিশানা নির্ভুল করার লক্ষ্যে ইসরায়েলের প্রযুক্তিগত সহায়তায় একটি গবেষণা কর্মসূচি শুরু করেছে ডিআরডিও, যার নাম দেয়া হয়েছে প্রজেক্ট চিতা। ‘অ্যারোস্ট্যাট’ এবং ‘গ্রিন পাইন’ রাডারের কার্যকারিতায় খুশি হয়ে ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ইসরায়েলের থেকে ৬৬টি অত্যাধুনিক ‘এয়ার ডিফেন্স অ্যান্ড ফায়ার কন্ট্রোল রাডার’ কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এতে খরচ হচ্ছে প্রায় ৪ হাজার ৫৭৭ কোটি রুপি।

কয়েক বছর আগে প্রায় ৮ হাজার ১০৭ কোটি রুপি দিয়ে ইসরায়েলের কাছ থেকে তিনটি ‘ফ্যালকন’ এয়ারবোর্ন আর্লি ওয়ার্নিং অ্যান্ড কন্ট্রোল সিস্টেম (অ্যাওয়াক্স) কিনেছিল ভারত। এর কাজ ফাইটার জেটগুলোকে নিখুঁতভাবে লক্ষ্যবস্তু চিহ্নিত করতে সাহায্য করা। পাশাপাশি, শত্রুপক্ষের ওপর নজরদারিও করতে পারে সেগুলো। গত বছর পাকিস্তানের বালাকোটে হামলার সময় ভারতের ১২টি মিরাজ-২০০০ ফাইটার জেট পরিচালনা করেছিল এই ইসরায়েলি অ্যাওয়াক্স।

Check Also

চীনকে ঠেকাতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ প্রতিরক্ষা চুক্তি ভারতের

যমুনা নিউজ বিডিঃ ভারতের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সবসময়ই নয়াদিল্লির পাশে থাকবে ওয়াশিংটন। ভারতের পাশে থাকার বার্তা …

error: Content is protected !!
%d bloggers like this:

Powered by themekiller.com