Home / জাতীয় / ভোর থেকে গভীর রাতেও চলছে নির্বাচনী কার্যক্রম

ভোর থেকে গভীর রাতেও চলছে নির্বাচনী কার্যক্রম

যমুনা নিউজ বিডি ঃ কখনো মুখোমুখি অনুষ্ঠান, কখনো মতবিনিময়, আবার কখনো সামাজিক কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ—এসবের মধ্য দিয়েই প্রচার ও গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পার করছেন খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের (কেসিসি) প্রধান দুই মেয়র পদপ্রার্থী। নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে প্রচার চালালেও কাকডাকা ভোর থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে তাঁদের নির্বাচনী অন্যান্য কার্যক্রম।

প্রধান দুই মেয়র পদপ্রার্থী রবিবারও নির্বাচনী কাজে ব্যস্ত সময় পার করেছেন। এর মধ্যে তাঁরা ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল আয়োজিত একটি নাগরিকদের সংলাপে অংশ নেন। এ ছাড়া প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে মতবিনিময়সভায়ও উপস্থিত ছিলেন। আর প্রতিদিনকার গণসংযোগ তো ছিলই।

আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের মেয়র প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক সকাল সাড়ে ৭টায় নগরীর ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের প্লাটিনাম চত্বর থেকে গণসংযোগ শুরু করেন। এরপর তিনি দৌলতপুর জুটমিলস, ক্রিসেন্ট জুটমিলস, আলমনগর মোড়, চরের হাট, পোড়া মসজিদ, চরের হাট ঘাট এলাকায় গণসংযোগ এবং ভোটারদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এরপর এই মেয়র প্রার্থী সিএসএস আভা সেন্টারে ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের অনুষ্ঠান, বিকেল ৩টায় প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে বয়রা মহিলা কলেজে মতবিনিময় ও বিকেলে ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাকি অংশ এবং ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন।

গণসংযোগকালে মেয়র প্রার্থী খালেকের সঙ্গে ছিলেন খালিশপুর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম বাশার, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মোর্শেদ আহমেদ মনি, সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল আলম খোকন, ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী খুরশীদ আহমেদ টোনা, সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী পারভীন আক্তার, পূজা উদ্যাপন পরিষদের নেতা দীপক কুমার দত্ত, শেখ সুলতান আহমেদ, প্রধান শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন ও শহীদুল ইসলাম, ইউসুফ আলী, সাবেক ভিপি এস এম ফারুক আহমেদ, শেখ টিপু সুলতান, মহিদুল ইসলাম মিলন, ইমরুল ইসলাম প্রমুখ।

গণসংযোগকালে তালুকদার আব্দুল খালেক শ্রমিকদের উদ্দেশে বলেন, ‘নির্বাচন এলেই শ্রমিকদের খুশি করতে বিএনপির প্রার্থীরা মিষ্টি মিষ্টি কথা বলেন। আসলে বিএনপি কখনো শ্রমিকবান্ধব ছিল না। বরং বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় এসে খুলনাসহ দেশের  বেশির ভাগ কল-কারখানা বন্ধ করে হাজার হাজার শ্রমিককে বেকার করেছিল। অভাব-অনটনের কারণে শ্রমিক পরিবার মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়েছিল। দুই বেলা সন্তানের মুখে ভাত তুলে দিতে না পেরে অনেকেই আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছিল। বিএনপির শাসনামলে খালিশপুর শিল্পাঞ্চল মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছিল। আর আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে সেই মৃত্যুপুরীতে প্রাণ ফিরিয়ে দিয়েছে। বন্ধ মিল চালুসহ শ্রমিকের বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধের জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করে যাচ্ছে।’

অন্যদিকে মেয়র নির্বাচিত হলে খুলনা সিটি করপোরেশনকে আদর্শ সেবামূলক নাগরিক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের মেয়র পদপ্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু। তিনি আজ নগরীর ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকে অবসর ভাতা নিতে আসা লোকজনের সঙ্গে মতবিনিমিয় করেন। এর আগে তিনি ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের শামসুর রহমান রোড, আক্তার চেম্বার, জলিল টাওয়ার, সিটি সেন্টার, মালেক চেম্বার, মুড়িপট্টি, সিমেট্রি রোড এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করেন।

গণসংযোগকালে মঞ্জুর সঙ্গে ছিলেন বিজেপি সভাপতি লতিফুর রহমান লাবু, খেলাফত মজলিসের নগর সম্পাদক মাওলানা নাসিরউদ্দিন, বিএনপি নেতা সিরাজুল ইসলাম, ফখরুল আলম, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, শেখ আব্দুর রশিদ, আবু হোসেন বাবু, মোল্লা মোশারফ হোসেন মফিজ, আজিজা খানম এলিজা, কে এম হুমায়ুন কবির, কাউন্সিলর প্রার্থী সাব্বির আহমেদ, আবু বক্কর আবু, অধ্যাপক ডা. সেখ মো. আখতার উজ জামান, একরামুল কবির মিল্টন, আব্দুর রাজ্জাক, আব্দুল আজিজ সুমন, শামসুজ্জামান চঞ্চল, খায়রুল ইসলাম খান জনি, মাওলানা শফিকুল ইসলাম, রিয়াজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম বাবু, হেলাল আহমেদ সুমন, আফজাল হোসেন পিয়াস, নাসির খান, খান মুজিবর রহমান প্রমুখ।

গণসংযোগকালে মঞ্জু বলেন, ‘আমি নির্বাচিত হলে দল-মত, জাতি-ধর্ম, নারী-পুরুষ-নির্বিশেষে অভিজ্ঞ ও গুণী ব্যক্তিদের সমন্বয়ে একটি পরামর্শক পরিষদ গঠন করা হবে। এই পরিষদের সাহায্যে নগরীর উন্নয়নে স্বল্প, মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদি নাগরিক পরিকল্পনা তৈরি করা হবে।’ তিনি বলেন, ‘জনসংখ্যার একটি উল্লেখযোগ্য অংশ সিনিয়র সিটিজেন। জীবনসায়াহ্নে এসে যারা বাড়তি যত্ন ও নজরদারির দাবিদার। তাদের জীবনমান উন্নয়ন ও অবসর-বিনোদনে কেসিসির পক্ষ থেকে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।’

খুলনায় ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল : সকাল সাড়ে ১১টায় নগরীর আভা সেন্টারে ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়র পদপ্রার্থীদের জন্য ‘সংলাপে নাগরিক অগ্রাধিকার’ শীর্ষক একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে মেয়র প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক ও নজরুল ইসলাম মঞ্জু খুলনা নগরীর উন্নয়ন কার্যক্রম ও কার্যকরী সেবাদান ব্যবস্থা নিয়ে তাঁদের পরিকল্পনার কথা জানান।

প্রার্থীরা খুলনা নগরীর অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও জলাবদ্ধতা নিরসন, যানজট সমস্যা দূর করা, স্বাস্থ্যসেবাদান ব্যবস্থা উন্নত করা, মাদক সমস্যা নির্মূল, সিটি করপোরেশনের সেবা বিকেন্দ্রীকরণ এবং নগরবাসীর বিনোদন, খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সুযোগ বাড়ানোর লক্ষ্যে কাজ করে যাবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্যে ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের চিফ অব পার্টি কেটি ক্রোক বলেন, ‘খুলনার নাগরিকবৃন্দ ও মেয়র প্রার্থীদের এ গঠনমূলক সংলাপ আয়োজনে আমি অভিভূত। আমি আশাবাদী, এই মেয়র পদপ্রার্থীদের সঙ্গে সংলাপ অনুষ্ঠানটি দেশজুড়ে আসন্ন নির্বাচন চলাকালে অনুকরণীয় মডেল হয়ে থাকবে।’

Check Also

নড়াইলের মামলায় ফের খালেদার জামিন নামঞ্জুর

যমুনা নিউজ বিডি ঃ নড়াইলের আদালতে দায়েরকৃত মানহানি মামলায় আবারও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন …

Powered by themekiller.com