Breaking News
Home / সারাদেশ / বগুড়া / বগুড়ায় পলাতক জামাই রানা ও তার স্ত্রীর আগ্নেয়াস্ত্রের বিষয়ে অভিযোগ দাখিল

বগুড়ায় পলাতক জামাই রানা ও তার স্ত্রীর আগ্নেয়াস্ত্রের বিষয়ে অভিযোগ দাখিল

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ায় শত কোটি টাকা আত্মসাত মামলার আসামী আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ার হোসেন রানা ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী আকিলা সরিফা সুলতানার বিরুদ্ধে প্রতারণার মাধ্যমে আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স গ্রহণ, বহন ও ভয়-ভীতি দেখানোর অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছে।

আনোয়ার হোসেন রানার দ্বিতীয় স্ত্রী আকিলা সরিফা সুলতানার ৪ বোন এ বিষয়ে গত ৮ অক্টোবর বগুড়া জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন। মাহবুবা খানম, নাদিরা সরিফা সুলতানা, কানিজ ফাতেমা ও তৌহিদা সরিফা সুলতানা স্বাক্ষরিত ওই অভিযোগটি তদন্তের জন্য জেলা প্রশাসকের কার্যালয় গ্রহণও করেছে।
লিখিত অভিযোগে তারা আনোয়ার হোসেন রানার নামে ইস্যু করা শর্টগান এবং আকিলা সারিফা সুলতানার নামে ইস্যু করা রিভলবারের লাইসেন্স বাতিলসহ ওই দু’টি আগ্নেয়াস্ত্রের অবব্যবহার রোধকল্পে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণেরও দাবি জানিয়েছেন। আগ্নেয়াস্ত্রের ভয়-ভীতি দেখিয়ে শত কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে বগুড়া শহরের ধনাঢ্য ব্যবসায়ী প্রয়াত শেখ সরিফ উদ্দিনের স্ত্রী দেলওয়ারা বেগম গত ১ অক্টোবর তার জামাতা নন্দীগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য আনোয়ার হোসেন রানা এবং বড় মেয়ে আকিলা সরিফা সুলতানাসহ তাদের আরও ৩ সহযোগীসহ ৫জনের বিরুদ্ধে বগুড়া সদর থানায় এজাহার দাখিল করেন। প্রাথমিক তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় পুলিশ গত ৫ অক্টোবর মামলাটি রেকর্ড করেছে। বগুড়া সদর থানার ওসি হুমায়ুন কবির নিজেই মামলাটি তদন্ত করছেন।

ওই মামলা রেকর্ড করার তিনদিন পর প্রয়াত শেখ সরিফ উদ্দিনের ৪ কন্যা আনোয়ার হোসেন রানা ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী আকিলা সরিফা সুলতানার বিরুদ্ধে প্রতারণার মাধ্যমে শর্টগান ও রিভলবারের লাইসেন্স গ্রহণের অভিযোগ উত্থাপন করেছেন। জেলা প্রশাসকের কাছে দেওয়া লিখিত অভিযোগে তারা অভিযোগ করেছেন, আইন অনুযায়ী কোন ব্যক্তি আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স গ্রহণ করতে চাইলে তাকে পর পর তিন বছর ২ লাখ টাকা করে আয়কর দিতে হয়। কিন্তু আনোয়ার রানা প্রতারণার মাধ্যমে ভুয়া আয়কর সনদ দেখিয়ে এবং জেলা প্রশাসনকে ভুল বুঝিয়ে শর্টগানের লাইসেন্স গ্রহণ করেছেন। অন্যদিকে আনোয়ার হোসানের দ্বিতীয় স্ত্রী আকিলা সরিফা সুলতানা তার প্রয়াত প্রথম স্বামী সাইফুল ইসলামের নামে থাকা রিভলবারের লাইসেন্সটি প্রথম পক্ষের বিবাহিত ও বিশ্ববিদ্যালয় পড়য়া দুই সন্তান বিদ্যমান থাকা অবস্থায় নিজ নামে করিয়ে নেন। পরে তিনি সেই রিভলবার দ্বিতীয় স্বামী আনোয়ার হোসেন রানাকে ব্যবহারের অনুমতি দেন। ফলে আনোয়ার হোসেন রানা এখন দু’টি অস্ত্রই ব্যবহার করছেন এবং আমাদের ৪ বোন ও তাদের স্বামীদের ভয়-ভীতি দেখাচ্ছেন। এমনকি ওই অস্ত্র দেখিয়েই আমাদের বৃদ্ধ মাকে জিম্মি করে শত কোটি টাকা আত্মসাত করেছে।

Check Also

বগুড়ায় শাশুড়ির শতকোটি টাকা আত্মসাৎ মামলায় আ.লীগ নেতা রানা স্ত্রীসহ কারাগারে

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ায় শাশুড়ির শতকোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় নন্দীগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক …

error: Content is protected !!
%d bloggers like this:

Powered by themekiller.com