Breaking News
Home / অপরাধ-আদালত / পুলিশের মোটরসাইকেলে ইয়াবা পাচার: এএসআই প্রত্যাহার

পুলিশের মোটরসাইকেলে ইয়াবা পাচার: এএসআই প্রত্যাহার

যমুনা নিউজ বিডি ঃ হবিগঞ্জের বাহুবলে পুলিশের মোটরসাইকেলে করে ইয়াবা পাচারের অভিযোগে এএসআই কবীরকে প্রত্যাহার (ক্লোজড) করা হয়েছে। আজ বুধবার সকালে তাকে বাহুবল থানা থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়।

বাহুবল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মাসুক আলী এএসআই ক্লোজড হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মঙ্গলবার রাতেই উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তাকে প্রত্যাহার করার আদেশ প্রদান করে।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৩টায় বাহুবল থানার এএসআই কবীরের মোটরসাইকেলে করে ইয়াবা পাচারের সময় সালাউদ্দিন (২২) নামের এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে স্থানীয়রা।

আটক সালাউদ্দিন শ্রীমঙ্গল থানার সুরমাভ্যালী এলাকার কনা মিয়ার ছেলে। তিনি গত দুই বছর ধরে বাহুবল উপজেলার সাতপাড়িয়া গ্রামের তাহির মিয়ার ওয়ার্কশপে কাজ করছিলেন। ওয়ার্কশপে কাজের পাশাপাশি পুলিশের সঙ্গে হাত মিলিয়ে তিনি মাদক ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিলেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বাহুবল থানা পুলিশের এএসআই কবীরের থানা থেকে ইস্যুকৃত ব্যবহৃত মোটরসাইকেল নিয়ে উপজেলার পশ্চিম জয়পুর গ্রামে ইয়াবা বিক্রয় করতে আসেন সালাউদ্দিন। বিষয়টি সন্দেহ হলে স্থানীয়রা তাকে আটক করে। পরে তার দেহ তল্লাশি করে পাঁচ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। এ সময় সালাউদ্দিন জানান, অনেক দিন ধরে এএসআই কবীরের সঙ্গে মাদক ব্যবসার লেনদেন করে আসছিলেন তিনি। সেদিনও কবীর তাকে পশ্চিম জয়পুর গ্রামের ইয়াবা ব্যবসায়ী শাহিন মিয়ার কাছে ইয়াবা দিতে ও টাকা আনতে পাঠান। ইয়াবা দিয়ে আসার পথে তাকে আটক করে স্থানীয়রা।

খবর পেয়ে থানার এসআই অমৃত ও এএসআই সেলিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে মোটরসাইকেলসহ তাকে থানায় নিয়ে আসেন।

বাহুবল মডেল থানার ওসি মাসুক আলী আজ বুধবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘আটক সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে এএসআই-কে বরাদ্দ সরকারি মোটরসাইকেল মাদক পাচার কাজে ব্যবহারের সত্যতা পাওয়া গেলে তাকে ক্লোজড করা হয়।’

Check Also

সহপাঠীর হাত ধরে চলায় মারধর খুবই খারাপ আলামত

যমুনা নিউজ বিডি ঃ সহপাঠীর হাত ধরে চলায় মারধরের ঘটনা খুবই খারাপ আলামত বলে মন্তব্য …

Powered by themekiller.com