Home / সম্পাদকীয় / দশ গার্মেন্টের মুদ্রাপাচার

দশ গার্মেন্টের মুদ্রাপাচার

অর্থনীতিবিদদের মতে, মুদ্রাপাচার বন্ধ করা না গেলে দেশের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড কখনোই কাঙ্ক্ষিত গতি পাবে না। এ নিয়ে অনেক কথাই হচ্ছে, কিন্তু মুদ্রাপাচার পরিস্থিতির তেমন উন্নতি হচ্ছে না। সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী ২০১৫ সালের তুলনায় ২০১৬ সালে শুধু সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশ থেকে মুদ্রাপাচার বেড়েছে ২০ শতাংশ। অন্যান্য দেশে, এমনকি অফশোর ব্যাংকগুলোতেও মুদ্রাপাচারের প্রমাণ পাওয়া গেছে। ওয়াশিংটনভিত্তিক অর্থপাচারবিরোধী সংস্থা গ্লোবাল ফিন্যানশিয়াল ইনটিগ্রিটির (জিএফআই) প্রতিবেদন অনুযায়ী ২০০৫ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত ১০ বছরে দেশ থেকে ছয় লাখ কোটি টাকা পাচার হয়েছে।

মুুদ্রাপাচারের সঙ্গে দুর্নীতি অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। অনেকেই মনে করেন, পাচার বন্ধ করা গেলে দুর্নীতিও অনেকাংশে কমে যাবে। বাংলাদেশ থেকে অর্থপাচারের তালিকায় আগে শীর্ষে ছিলেন রাজনীতিবিদরা। সাম্প্রতিক তথ্য অনুযায়ী রাজনীতিবিদদের ছাড়িয়ে গেছেন ব্যবসায়ীরা, যাঁরা জনগণের অর্থে সরকারের দেওয়া প্রচুর সুযোগ-সুবিধা নিয়ে এ দেশে ব্যবসা করেন। পাচারের তালিকায় তার পরই রয়েছেন দুর্নীতিবাজ সরকারি কর্মকর্তারা। আর যাঁদের পাচার রোধ করার কথা তাঁরাও অনৈতিক সুবিধা নিয়ে পাচারকারীদের সহায়তা করছেন। ব্যবসায়ীরা সাধারণত ওভার ও আন্ডার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে মুদ্রাপাচার করেন। বন্ড সুবিধার আওতায় রপ্তানিমুখী শিল্পে বিনা শুল্কে পণ্য আমদানির যে সুযোগ দেওয়া হয়, তারও অপব্যবহার হয়। সংশ্লিষ্ট ব্যাংক ও এনবিআর কর্মকর্তাদের এই অসাধু প্রবণতা নিয়ন্ত্রণ করার কথা। বিশেষ কারণে তাঁরা সঠিকভাবে সে কাজটি করেন না। আবার মুদ্রাপাচার রোধে বিশেষায়িত কিছু সংস্থা রয়েছে, তাদের কাজও সন্তোষজনক নয়। তৈরি পোশাক খাত দেশের প্রধান রপ্তানি খাত হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই এ খাতে মুদ্রাপাচারের পরিমাণ বেশি। অতীতে বিভিন্ন প্রতিবেদনে তা উঠেও এসেছে। সম্প্রতি শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর এই খাতের ১০টি প্রতিষ্ঠানের ১০৯ কোটি টাকা পাচারের তথ্য-প্রমাণ পেয়েছে।

অর্থনীতির স্বার্থে যেকোনো মূল্যে মুদ্রাপাচার ঠেকাতে হবে। আর তা যে খুব কঠিন কাজ নয় তা পার্শ্ববর্তী দেশগুলো সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দেখাতে পেরেছে। ভারতে ২০১৬ সালে মুদ্রাপাচার আগের বছরের তুলনায় অর্ধেকে নেমেছে। নেপালে চার ভাগের এক ভাগে নেমেছে। এমনকি পাকিস্তানেও মুদ্রাপাচার অনেক কমেছে। তাহলে আমরা কেন পারব না? এ জন্য রাজনৈতিক সদিচ্ছার পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট আইনের কঠোর প্রয়োগ জরুরি।

Check Also

সড়কে মর্মান্তিক মৃত্যু

সড়ক দুর্ঘটনায় মর্মান্তিক মৃত্যু যেন দেশের মানুষের নিয়তি হয়ে দাঁড়িয়েছে। কোনো প্রতিকার নেই। দুর্ঘটনায় একের …

Powered by themekiller.com