Home / সারাদেশ / বগুড়া / তীব্র বাক-বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন মির্জা ফখরুল ও জামায়াত নেতা

তীব্র বাক-বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন মির্জা ফখরুল ও জামায়াত নেতা

যমুনা নিউজ বিডি ঃ দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি, খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলন, সিটি নির্বাচনে পরাজয়, বিএনপি-জামায়াতের সাময়িক দ্বন্দ্ব নিয়ে ২০ দলীয় জোটের এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৮ আগস্ট গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ বৈঠকে বিএনপির বিভিন্ন নেতাকর্মীর সঙ্গে অন্যতম মিত্রদল জামায়াতসহ শরিক দলগুলোর নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র জানায়, বৈঠকে তীব্র বাক-বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন মির্জা ফখরুল ও জামায়াত নেতা এটিএম আবদুল হালিম। তর্কের একপর্যায়ে তারা হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়লে কোন রকম সিদ্ধান্ত ছাড়াই বৈঠক শেষ হয়। এদিকে দুই নেতার মারামারির ঘটনায় বিরক্ত হয়ে মির্জা ফখরুল ও জামায়াত নেতাকে আগামী এক মাসের জন্য সব ধরণের রাজনীতি থেকে দূরে থাকার শাস্তি দিয়েছেন লন্ডনে পলাতক বিএনপি নেতা তারেক রহমান। মির্জা ফখরুলকে শাস্তি দেওয়ায় বৈঠকে উপস্থিত সংস্কারপন্থী রিজভী আহমেদ গংরা ব্যাপক খুশি হয়েছেন। বিএনপির একক ক্ষমতা তার হাতে আসায় বৈঠক শেষে রিজভীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন বিএনপির একাধিক সিনিয়র নেতা।

বৈঠক সূত্রে জানা যায়, বেগম জিয়ার মুক্তি, দেশের চলমান পরিস্থিতি এবং জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির দ্বন্দ্বের প্রেক্ষিতে জরুরি সেই বৈঠকের আয়োজন করা হয়। বৈঠকে লন্ডন থেকে টেলিফোনে যোগ দেন তারেক রহমান। বৈঠকের শুরুতে মির্জা ফখরুলকে সালাম না দিয়ে নিজ আসনে জামায়াত নেতা এটিএম আবদুল হালিম বসে পড়ার সাথে সাথে তর্ক শুরু হয়ে যায়। সিনিয়র একজন নেতাকে প্রাপ্য সম্মান না দেখিয়ে অহংকার নিয়ে চেয়ারে বসে পড়ায় মির্জা ফখরুলের তোপের মুখে পড়েন আবদুল হালিম। নিজেদের অহংকার ও মিথ্যা দম্ভের কারণে জামায়াত আজ মাটিতে মিশে গেছে- মির্জা ফখরুলের এমন উস্কানিমূলক বক্তব্যে রেগে গিয়ে তার ওপরে চড়াও হন হালিমসহ উপস্থিত একাধিক জামায়াত নেতা। জামায়াত নেতা হালিম মির্জা ফখরুলের গালে চড় মারতে গেলে ভুল করে সেটি গয়েশ্বর চন্দ্রের গায়ে লেগে যায়। মুহূর্তে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে যায়।

সংখ্যালঘু এবং অমুসলিম হওয়ার কারণে জামায়াত নেতা ইচ্ছা করে গয়েশ্বর চন্দ্রকে চড় মেরেছেন- এমন অভিযোগ করে কেঁদে ফেলেন গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। উদ্ভুত পরিস্থিতি সামাল দিতে টেলিফোনে রেগে যান তারেক রহমান। মির্জা ফখরুল ও হালিমকে একহাত নেন তারেক। ইচ্ছাকৃতভাবে পরিবেশ নষ্ট করে তাকে অপমান করার জন্য মির্জা ফখরুল ও হালিমকে একমাস রাজনীতি থেকে দূরে থাকার ঘোষণা দেন তারেক। পাশাপাশি সব ধরণের সাংগঠনিক দায়িত্ব পালন করার জন্য রিজভী আহমেদকে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ঘোষণা দেন তারেক রহমান। এর পর রাগান্বিত স্বরে মিটিং বাতিল করে টেলিফোন রেখে দেন তিনি। এদিকে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব হওয়ায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত একাধিক সিনিয়র বিএনপি নেতা রিজভী আহমেদকে অভিনন্দন জানান। এসময় রিজভী আহমেদ মুচকি হেসে শুকরিয়া আদায় করেন।

Check Also

ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটে জালিয়াতির প্রমাণ পাওয়া গেছে

যমুনা নিউজ বিডি: সম্প্রতি শেষ হওয়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় ডিজিটাল জালিয়াতির প্রমাণ …

Powered by themekiller.com